করোনায় একদিনে আরও ৬ হাজার মৃত্যু, আক্রান্ত এক লাখ

'তোরে গাঁজা, বাবা দিয়া ধইরা পুলিশে দিমু’: 'চালচোর' সেই চেয়ারম্যানের হুমকি
- ছবি : সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৪ এপ্রিল ২০২০, ১০:৩১

করোনাভাইরাসের দাপটে ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রে পাতার মতো ঝরছে প্রাণ। একদিনে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। আক্রান্ত হয়েছেন এক লাখ মানুষ।

আজ শনিবার (৪ মার্চ) সকাল পর্যন্ত করোনায় বিশ্বব্যাপী মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৯ হাজার ১৬০ জনে। আক্রান্ত হয়েছেন ১০ লাখ ৯৮৪৩৪ জন। অপরদিকে ২ লাখ ২৮ হাজার ৯২৩ জন চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

আক্রান্তের সংখ্যায় সবার ওপরে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। সেখানে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৭৭১৬১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৭ হাজার ৩৯২ জনের।

মৃত্যুর দিক দিয়ে সবার ওপরে থাকা ইতালিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন এক লাখ ১৯ হাজার ৮২৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৪ হাজার ৬৮১ জনের।

এরপরই রয়েছে স্পেন। সেখানে এখন পর্যন্ত নিহত হয়েছেন ১১১৯৮ এবং আক্রান্তের সংখ্যা এক লাখ ১৯ হাজার ১৯৯ জন। এ তথ্য জানিয়েছে করোনাভাইরাস নিয়ে লাইভ আপডেট দেয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডমিটার।

প্রসঙ্গত, চীনের উহান ছড়িয়ে পড়া করোণাভাইরাস গত তিন মাসে বিশ্বের ২০০টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। চীনে করোনার প্রভাব কমলেও বিশ্বের অন্য কয়েকটি দেশে মহামারি রূপ নিয়েছে। এই ভাইরাসে চীনের মূল ভূখণ্ডে আক্রান্ত হয়েছেন ৮১ হাজার ৬৩৯ জন। আর মারা গেছেন ৩ হাজার ৩২৬ জন।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নেয়া হয়েছে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ। অধিকাংশ দেশেই মানুষের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করতে মানুষের চলাফেরার ওপর বিভিন্ন মাত্রায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ। কোনো কোনো দেশে আরোপ করা হয়েছে সম্পূর্ণ লকডাউন, কোথাও কোথাও আংশিকভাবে চলছে মানুষের দৈনন্দিন কার্যক্রম। এ ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার কারণে পৃথিবীর বিভিন্ন এলাকার প্রায় অর্ধেক মানুষ চলাফেরার ক্ষেত্রে কোনো না কোনো মাত্রায় নিষেধাজ্ঞার ওপর পড়েছেন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। নিউমোনিয়ার মত লক্ষণ নিয়ে নতুন এ রোগ ছড়াতে দেখে চীনা কর্তৃপক্ষ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে সতর্ক করে। এরপর ১১ জানুয়ারি প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

করোনাভাইরাস মূলত শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ ঘটায়। এর লক্ষণ শুরু হয় জ্বর দিয়ে, সঙ্গে থাকতে পারে সর্দি, শুকনো কাশি, মাথাব্যথা, গলাব্যথা ও শরীর ব্যথা। সপ্তাহখানেকের মধ্যে দেখা দিতে পারে শ্বাসকষ্ট। উপসর্গগুলো হয় অনেকটা নিউমোনিয়ার মত। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো হলে এ রোগ কিছুদিন পর এমনিতেই সেরে যেতে পারে। তবে ডায়াবেটিস, কিডনি, হৃদযন্ত্র বা ফুসফুসের পুরোনো রোগীদের ক্ষেত্রে ডেকে আনতে পারে মৃত্যু।

মানবকণ্ঠ/জেএস




Loading...
ads






Loading...