ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় যে সাত খাবার

মানবকণ্ঠ
ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় যে সাত খাবার - মানবকণ্ঠ।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৪:৫৬

মানবশরীরের ক্যান্সার রোগের বিকাশের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে ভূমিকা রয়েছে দৈনন্দিন খাদ্যাভ্যাসের। খাদ্যাভাসের দ্বারা ক্যান্সারকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। কোনো কোনো খাবারে এমন বিশেষ কিছু উপাদান রয়েছে যা ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে। তাই নিয়মিত ব্যায়ামের পাশাপাশি এইসব খাবারকে খাদ্যতালিকায় যুক্ত করলে ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যাবে।

প্রক্রিয়াজাত ও ভেজালযুক্ত খাবারকে পরিহার করে স্বাস্থকর এবং পুষ্টিগুণসমৃদ্ধ খাবারকে খাদ্যতলিকায় স্থান দিতে হবে। এসব খাবারের নির্দিষ্ট কিছু পুষ্টিগুণ শরীরে ক্যান্সারের কোষ সৃষ্টিতে বাধা দেয় এবং নিয়ন্ত্রণে রাখে। ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে এমন সাতটি খাবার হচ্ছে-

গ্রীন টি
গ্রীন টিতে রয়েছে সাইটোক্যামিক্যালস নামের এক ধরণের পদার্থ যা স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে। তাই বিশেষভাবে প্রত্যেক নারীর প্রতিদিন গ্রীন টি পান করার অভ্যাস গড়ে তোলা উচিত।

মাছ
ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড দেহে ক্যান্সারের সেল গঠন প্রতিরোধ করার ক্ষেত্রে বেশ কার্যকরী। আর সামুদ্রিক মাছ হচ্ছে এই আসিডের একটি অন্যতম উৎস।

রসুন
বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায় রসুনের অন্যতম প্রধান উপকারিতা হচ্ছে এটি শরীরের বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসাবে কাজ করে বিশেষ ভাবে উল্লেখ্য যে কলোন, স্টোমাক, ইন্টেস্টিনাল, এবং প্রস্টেট ক্যান্সার। রসুন এমন একটি উপকারী ও শক্তিশালী খাদ্য যার আন্টি-বাক্টোরিয়াল ধর্ম শরীরে ক্যান্সার কোষের ছড়িয়ে পড়াকে প্রতিরোধ করতে সক্ষম হয়।

আদা
আদার অনেক উপকারিতা রয়েছে যেমন – জ্বর, ঠাণ্ডা, হার্টের সমস্যা, কোলেস্টেরল কমানো, আর্থ্রাইটিস সহ ক্যান্সার-এর মত জটিল অসুখ নিরসনে আদা কার্যকরী ভূমিকা রাখে। ক্যান্সার নিরাময়ের প্রতিষেধক হিসাবে প্রচলিত কেমোথেরাপি থেকে আদা ১০,০০০ গুন বেশি শক্তিশালী মেডিসিন যা শরীরের নির্দিষ্ট ক্যান্সার কোষগুলো ধংস করতে সাহায্য করে।

হলুদ
মশলার মধ্যে হলুদই ক্যান্সারের সঙ্গে লড়তে আপনার শরীরকে সহায়তা করে। এতে রয়েছে শক্তিশালী কারকিউমিন পলিফেনল নামক পদার্থ। গবেষণার মাধ্যমে প্রমাণিত, কারকিউমিন ক্যান্সার সেলের গ্রোথকে নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।

মৌরি
খাওয়ার রুচি বাড়ানোর জন্য প্রত্যেক গৃহস্থ বাড়িতেই মজুত থাকে মৌরি। মৌরিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইটো-নিউট্রিয়েন্টস, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যানেটহোল যা ক্যান্সার সেলের আক্রমণ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

কাচাঁমরিচ
কাচাঁ মরিচে রয়েছে সাইটোক্যামিকেলস এবং অন্যান্য পুষ্টি, যা ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করে। মরিচে রয়েছে ক্যাপসাইসিন যা ক্যান্সারের কোষ ধবংস করে।

স্বাস্থকর খাদ্যাভাসের পাশাপাশি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ধূমপান এবং যে কোন নেশাজাতীয় দ্রব্য থেকে দুরে থাকা। মারণঘাতী ক্যান্সার রোগের একটি অন্যতম কারণ হচ্ছে ধুমপান।

মানবকণ্ঠ/জেএস/এইচকে 




Loading...
ads




Loading...