৬ মিনিটের ব্যবধানে রিয়ালের নাটকীয় ড্র


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১৮:৩৭

জিনেদিন জিদানের মনেই হয়নি এতো নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে শেষ হবে ম্যাচটি। ৮৬ মিনিট পর্যন্ত ২-০ গোলে পিছিয়ে থাকা রিয়াল মাদ্রিদ যে ম্যাচ সমতায় থেকে শেষ করবে কজনে ভেবেছিল তখন? তাই জিদানের মতো মানুষও কম নয়। মাত্র ৬ মিনিটের ব্যবধানে বরুশিয়া মনশেনগ্লাডবাখের মাঠ থেকে ২-২ গোলে ড্র নিয়ে ফেরা রিয়াল মাদ্রিদকে তাই বাহবা দেয়াই যায়।

ম্যাচ শেষে তাই করলেন জিদান। তবে ড্র করায় হতাশা প্রকাশ করতেও ভুলেননি রিয়াল কোচ, ‘আমরা ভাবিনি ম্যাচটা এমন নাটকীয় হবে। তবে আমার দল দেখিয়েছে যে তারা জানে কিভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হয়।আমার মনে হয় প্রথমার্ধে আমরা খুব ভালো খেলেছি। বড় হতাশা হলো, মারাত্মক এক ভুলে আমরা প্রথম গোলটা হজম করেছি। ম্যাচের চূড়ান্ত ফলে আমার খেলোয়াড়দের দৃঢ় মানসিকতার প্রমাণ মেলে। আমরা সবসময় জয়ের জন্য খেলি এবং জয়ের জন্য যে মরিয়া, সেটাই প্রমাণ করি। ড্রয়ে কোনোভাবেই আমরা খুশি হই না।’

ইউরোপিয়ান লিগ বা চ্যাম্পিয়নস লিগ মনশেনগ্লাডবাখের মাঠে কখনোই জয় পায়নি রিয়াল। আসরের ইতিহাসে সবচেয়ে সফল দলকে বরাবরই চেপে ধরেছে স্বাগতিকরা। তার ওপর ৩৫ বছর আগে সর্বশেষ দেখায় দিয়েছে ৫-১ গোলে হারের লজ্জা। তবে গত মঙ্গলবার রাতে রিয়ালই উল্টো দাপট দেখায়। কিন্তু শুরুতে গোলের দেয়ালটাই ভাঙতে পারেনি। অপর দিকে সুযোগ কম পেলেও সেটার সদ্ব্যবহারই করেছে মনশেনগ্লাডবাখ।

৩৩ মিনিটে নিজেদের সীমানায় বল ক্লিয়ার করার অনেকটা সময় পেয়েও পারেননি রাফায়েল ভারানে ও সের্হিও রামোসরা। ডান দিক থেকে সতীর্থের কোনাকুনি পাস ডি-বক্সে পেয়ে প্রথম ছোঁয়ায় জোরালো শটে ঠিকানা খুঁজে নেন স্বাগতিক ফরোয়ার্ড মার্কাস থুরাম। বিরতির পর বেশ কয়েকটা সুযোগ পেয়েও ভাগ্যের কারণে সমতায় ফিরেনি রিয়াল। ধারার বিপরীতে ৫৮ মিনিটে আবারো গোল পায় মনশেনগ্লাডবাখ। ডি বক্সে থাকা আলেসান প্লার নিচু শট ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়েছিলেন গোলরক্ষক থিবো কোর্তোয়া কিন্তু বিপদমুক্ত করতে পারেননি। ফিরতি শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সেই থুরাম।

রিয়াল ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম সেটা কারোরই অজানা। কিন্তু লস ব্লাঙ্কোসরা যে এতোটা সময় নিবে সেটা কেউ আশা করেনি। ৮৭ তম মিনিটে ডেডলক ভাঙেন করিম বেনজেমা। প্রায়ই লাইনে বাইরে চলে যাওয়া বলটিকে হেডের মাধ্যমে ছয় গজ বক্সে পাঠিয়ে দেন ক্যাসেমিরো। অসাধারণ এক ওভারহেড কিকের মধ্য দিয়ে সেটিকে গোলে রূপান্তরিত করেন রিয়ালের নাম্বার নাইন। যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিটে সমতা সুচক গোলটি করেন ক্যাসেমিরো। ডান দিক থেকে লুকা মদ্রিচের ক্রসে হেডে রামোস বল বাড়ান পাশে থাকা ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার। আলতো টোকার মাধ্যমে জাল খুঁজে নেন তিনি।

জয়ের এতো কাছে থেকেও শেষ পর্যন্ত ১ পয়েন্ট পাওয়ার জন্য মনশেনগ্লাডবাখ কোচ মার্কো রোজ দোষ দিচ্ছেন ভাগ্যকেই, ‘শেষ মুহূর্তে দুই গোল খেয়ে পয়েন্ট হারানোর পর কারো মনে ভাল অনুভূতি জাগে না। এটাই রিয়ালের গুণ। শেষ সময় পর্যন্ত আমরা ভালোভাবে রক্ষণ করতে চেয়েছিলাম, তবে কিছু কিছু সময়ে ভাগ্যের প্রয়োজন হয়, যা আজ (মঙ্গলবার) রাতে আমাদের পাশে ছিল না।’

গ্রুপের অন্য ম্যাচে ইন্টার মিলানের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করা শাখতার দোনেত্স্ক দুই ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে। মনশেনগ্লাডবাখ ও ইন্টারের পয়েন্ট সমান ২ করে। গত সপ্তাহে শাখতারের মাঠে ৩-২ গোলে হেরে আসর শুরু করা রিয়াল ১ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের তলানিতে।






ads