বিশ্ব মিডিয়ায় হেফাজতের সহিংসতা


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৮ মার্চ ২০২১, ১৮:২৬,  আপডেট: ২৮ মার্চ ২০২১, ১৮:৪২

হরতালের নামে সারাদেশে হামলা-ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ চালিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নেতাকর্মীরা। ইসলামি সংগঠনটির সহিংস এই কর্মসূচির চিত্র দেশীয় গণমাধ্যমের পাশাপাশি উঠে এসছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোতেও।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের পর দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়া সহিংসতার খবর গুরুত্বসহ প্রকাশ করেছে বিশ্বের প্রভাশালী মিডিয়াগুলো।

ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা রয়টার্স ‌‘মোদির সফরের পর বাংলাদেশে সহিংসতা, হিন্দু মন্দির-ট্রেনে হামলা’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কট্টরপন্থী ইসলামি গোষ্ঠী হেফাজতে ইসলামের শত শত সদস্য বাংলাদেশের পূর্বাঞ্চলে হিন্দু মন্দির এবং ট্রেনে হামলা চালিয়েছে। নরেন্দ্র মোদির দু’দিনের বাংলাদেশ সফর শেষে দেশজুড়ে এই সহিংসতা ছড়িয়েছে।

রয়টার্স বলেছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের বিরোধিতায় ইসলামি গোষ্ঠী হেফাজতের বিক্ষোভের সময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০ জন নিহত হয়েছেন। প্রাণহানির ঘটনা ঘিরে ক্ষোভ বৃদ্ধি পাওয়ায় মোদির বিদায়ের পর সহিংসতা ছড়িয়েছে সারাদেশে।

ফরাসী বার্তাসংস্থা এএফপি ‌‘বাংলাদেশে নতুন বিক্ষোভ থেকে সহিংসতা ছড়িয়েছে’ শিরোনামের এক প্রতিবেদনে বলেছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের বিরোধিতায় টানা তৃতীয় দিনের মতো ইসলামপন্থী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে কমপক্ষে এক ডজন মানুষ আহত হয়েছেন। শুক্রবার চারজন এবং পরের দিন আরও ছয়জনের মৃত্যুর পর মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশের প্রধান প্রধান বেশ কয়েকটি জেলায় ব্যাপক সহিংসতা হয়েছে।

রাজধানী ঢাকার পার্শ্ববর্তী শহর নারায়ণগঞ্জে নতুন করে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ ছড়িয়েছে; যেখানে হেফাজতের সমর্থকরা ঢাকা-চট্টগ্রামের সঙ্গে সংযোগকারী মহাসড়ক অবরোধ করে সড়কে বিভিন্ন ধরনের আসবাবপত্র এবং টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে মোদিবিরোধী স্লোগান ও গুলির ঘটনার তদন্তের দাবি জানান। সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখানোয় পুলিশ রাবার বুলেট এবং টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে। এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাথর নিক্ষেপ করে বিক্ষোভকারীরা।

এএফপি বলছে, বিক্ষোভকারীদের বেশিরভাগই কট্টরপন্থী ইসলামি গোষ্ঠী হেফাজত-ই-ইসলামের সদস্য। ভারতের মুসলিমদের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা চালানোর অভিযোগে নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করেছে এই গোষ্ঠী।

ভারতীয় সংবাদ সংস্থা ইন্দো এশীয় নিউজ সার্ভিসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশজুড়ে ডাকা সকাল-সন্ধ্যার হরতালের সময় রোববার হেফাজত-ই-ইসলামের কর্মীরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় কেন্দ্রীয় গণ-গ্রন্থাগারে আগুন দিয়েছেন। দূরপাল্লার কোনো বাস সড়কে চলাচল করছে না। তবে ঢাকায় রিকশা, অটোরিকশা ও বাস চলাচল করতে দেখা গেছে।

এছাড়াও ভারতের টাইমস অব ইন্ডিয়া, এনডিটিভি, টাইমস নাউ, সৌদি আরবের সংবাদমাধ্যম আরব নিউজ, সিঙ্গাপুরের চ্যানেল নিউজ এশিয়া, যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক টাইমসসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গণমাধ্যমে হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের খবর উঠে এসেছে।

মানবকণ্ঠ/এসকে


poisha bazar

ads
ads