শক্তি ও শান্তির রঙে পরীর জন্মদিন


  • বিনোদন প্রতিবেদক
  • ২১ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৪,  আপডেট: ২২ অক্টোবর ২০২১, ১৪:২৫

মানুষের অনুভূতির বারান্দায় রঙের খেলা করে— কল্পনা, চিন্তা, সাংস্কৃতিক গুণাবলি, সামাজিক গতিবিধি এবং মানসিক ব্যাপার যেমন আলাদাভাবে চিহ্নিত করা যায় তেমনি বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য আর প্রকার ভেদে প্রতিটি রঙকে কেন্দ্র করে মানুষ চিন্তার প্রকাশ করে। সাদা রঙকে বলা হয় শান্তির প্রতীক, লাল বেশ শক্তিশালী একটি রঙ। লাল রঙ মূলত শক্তি ও যুদ্ধের প্রতীক। রঙের গল্প বলছি হালের ক্রেজ চিত্রনায়িকা পরীমণির জন্য।

যার জীবনযুদ্ধ হয় রঙের ভাষায়। জীবনের প্রতিটি সিঁড়িতে জয়-পরাজয়ের গল্প লুকিয়ে থাকে। অন্ধকারেও আলো থাকে। আলোর দেখা পেতে মশাল হাতে যুদ্ধে নামতে হয়— সকাল-বিকাল-সন্ধ্যা অথবা রাতে। রাতের অন্ধকারও আলো জন্ম দেয় যুদ্ধের ময়দানে।

যুদ্ধের কৌশল জানলে— অজানা অন্ধকার থেকে আলোর ছটা বের করে পরাজিত জীবনকে আলোকিত করা যায়, তার সদ্য প্রমাণ ঢালিউডের এই সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা পরীমণি।

ঢাকাই সিনেমার আলোচিত এই অভিনেত্রীর সব কিছুতেই ভিন্নতা পছন্দ করেন— জীবনযুদ্ধে অথবা ব্যক্তিজীবনে। যে কারণে তার যে কোনো প্রতিবাদ ও উদযাপন হয় ভিন্নধর্মী এবং প্রশংসিত। একদিন পরেই তার শুভ জন্মদিন। প্রতিবারই বেশ জমকালো আয়োজনে জন্মদিন উদযাপন করেন তিনি। এবারো তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না। এবার লাল-সাদায় সাজবেন পরীমণি ও তার সুহৃদরা। অতীতের মতো এবারো জমকালো আয়োজনে জন্মদিন উদযাপন করবেন পরীমণি।

আগামী ২৪ অক্টোবর পরীমণি ঘটা করে জন্মদিন পালন করবেন। দিনটি আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও চলচ্চিত্রের মানুষদের সঙ্গে কাটাবেন তিনি। মূলত পরীমণি যে থিমে তার আয়োজন সাজান, সেই রঙের সঙ্গে মিল রেখে অতিথিদের সাজপোশাক পরতে বলেন। এবারো নির্দিষ্ট রঙের থিম ব্যবহার করবেন তিনি। আমন্ত্রিত অতিথিরা সেই রঙের ড্রেসকোড মেনে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে আসবেন।

এবার লাল অথবা সাদা রঙের পোশাক পরে আসতে হবে বলে জানান পরীমণি। গত বছরের জন্মদিনে ড্রেসকোড ছিল সবুজ। শোবিজ অঙ্গনে আলোচনায় জানা যায়— পরীর আগে বাংলাদেশে কোনো চলচ্চিত্র তারকাকে এভাবে ধারাবাহিকভাবে জাঁকজমকপূর্ণ জন্মদিনের অনুষ্ঠান করতে দেখা যায়নি।

এবার পরীমণি ভিন্ন ইঙ্গিত দিয়েছেন একটি গল্প বলে। পরী তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে গল্পটিতে লিখেছেন— ‘এক লোক একটা আস্ত বড় গরু গ্রিল করে তার মেয়েকে বললেন, আমার শুভাকাঙ্ক্ষীদের ভোজের জন্য ডাক। ‘মেয়েটি রাস্তায় গিয়ে চিত্কার করতে থাকল, আমাদের বাসায় আগুন লেগেছে কে কোথায় আছো আমাদের সাহায্য কর।’

অল্প কিছুসংখ্যক মানুষ সাহায্যের জন্য এগিয়ে এলেন। বাকিরা এমন ভাব করলেন, যেন তারা কিছু শুনতেই পাননি! যারা সাহায্যের জন্য এলেন, তারা পেটপুরে মজাদার সেই খাবার খেলেন।’

পরী গল্পে আরো লেখেন— ‘বাবা আশ্চর্য হয়ে মেয়েকে জিজ্ঞেস করলেন- মা, যারা এসেছেন তাদের কাউকেই আমি চিনি না! আমাদের শুভাকাঙ্ক্ষীরা সব কোথায়?

‘মেয়েটি উত্তরে বলল- যারা এসেছেন তারাই আমাদের শুভাকাঙ্ক্ষী! তারা কিন্তু খাবার খেতে আসেননি। তারা এসেছেন আমাদের বাড়ির আগুন নেভাতে। এরাই আমাদের আপনজন।’ গল্প শেষে পরীমণি লেখেন— ‘যারা বিপদের সময় তোমার পাশে থাকেনি, তারা তোমার আনন্দের অংশীদার হওয়ার যোগ্যতাও রাখে না।’ কথাগুলো লেখার কারণ স্পষ্ট হয় একদম শেষের হ্যাশট্যাগের লেখা থেকে। পরী হ্যাশট্যাগ দিয়ে লিখেছেন ’২৪ অক্টোবর ফ্যাক্ট’। এইদিনই পরীমণির জন্মদিন।

আর এ থেকেই বোঝা যাচ্ছে এবারে অন্যবারের মতো আমন্ত্রিতদের তালিকাটা লম্বা হবে না। বিপদে যারা পাশে থাকেন তারাই প্রকৃত সুহৃদ। পরীমণি এমন সব সুহৃদদের নিয়েই জন্মদিনের উত্সব করবেন।

বর্তমানে পরী ব্যস্ত রয়েছেন গিয়াস উদ্দিন সেলিমের ‘গুনিন’ এর শুটিংয়ে। এরপর প্রীতিলতা, বায়োপিক, অন্তরালে, মাসহ আরো বেশ কিছু ছবির শুটিং শুরু করার কথা রয়েছে তার। জন্মদিনের পর নবোদ্যমে কাজে ফিরতে চান এই তারকা। ‘গুনিন’ সিনেমার শুটিং করছেন। একটানা শুটিং শিডিউল রয়েছে তার।
তবে জন্মদিনে একদিনের ছুটি নেবেন বলে জানান এই নায়িকা। বিশেষ দিনটি পালনের জন্য আগামীকাল ঢাকায় ফিরবেন বলে নিশ্চিত করেছেন। শক্তি ও শান্তির রঙে পরীর জন্মদিনে আবার নতুন কোন বার্তা দিতে পারেন— এমন ইঙ্গিতও পাওয়া যায়। জন্মদিন পালন করে আবার নতুন উদ্যোমে শুটিংয়ে অংশ নেবেন তিনি।


poisha bazar

ads
ads