‘বঙ্গবন্ধুকন্যা, আমাকে কি একটু নিরাপত্তা দিতে পারেন’


  • অচিন্ত্য চয়ন
  • ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:৫২,  আপডেট: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৩৮

জীবনের প্রতিটি সিঁড়িতে জয়-পরাজয়ের গল্প লুকিয়ে থাকে। অন্ধকারেও আলো থাকে। আলোর দেখা পেতে মশাল হাতে যুদ্ধে নামতে হয়— সকাল-বিকাল-সন্ধ্যা অথবা রাতে। রাতের অন্ধকারও আলো জন্ম দেয় যুদ্ধের ময়দানে। যুদ্ধের কৌশল জানলে— অজানা অন্ধকার থেকে আলোর ছটা বের করে পরাজিত জীবনকে আলোকিত করা যায়, কারাফটকের দুয়ার ঠেলেও আলোর দেখা মেলে। তার সদ্য প্রমাণ— পরীমণি। ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমণি সম্প্রতি জামিনে মুক্তি পেয়ে বাসায় ফিরেছেন। তিনি বর্তমানে শুটিংয়ে ফেরার অপেক্ষায় আছেন। এরই মধ্যে গতকাল আবারো আলোচনায় এলেন এক স্ট্যাটাসে। পরী দাবি করেছেন, তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যা, আমাকে কি একটু নিরাপত্তা দিতে পারেন। রাস্তায় মানুষগুলোও এতো অনিরাপদ নয়। একবার একটু দেখেন না আমার দিকে, কিভাবে বেঁচে আছি। ‘তবে কি কারণে অনিরাপদ সে বিষয়ে কিছু বলেননি পরীমণি। প্রশ্ন থেকে যায়— কেন এই নায়িকা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন? উত্তর পরী না বললেও সময় ও পরিস্থিতি বলে দেয় এসব ‘নিরাপত্তাহীনতার’ গল্প।

সমাজ বাস্তবতা একটু ভিন্ন চিন্তায় রাখে— অন্যরকমভাবে ভাবতে হয়। যেখানে একবিন্দু আলোর অপেক্ষায় কেটে যায় ২৬ দিন। ২৭ দিনে পা দিয়ে বাড়ি ফিরতে হয় পরীর। যেখানে দিনের আলোতে চাষ হয় রাতের গভীর অন্ধকার— সেই পথ শিল্পের নয়। তবু ভাবতে হয় শিল্প নিয়ে, সমাজের বিচিত্র চিন্তা নিয়ে।

জীবনের এই দিনগুলোয় বাস করে অজানা অন্ধকার— ধোঁয়াশার আকাশ। জীবন এক বহুরূপী বিকালের নাম। এরপরে আবার তারকার জীবন-জীবিকা। তাদের জীবনে অসংখ্য গল্প বহন করতে হয় অন্ধকার-আলোর মিশেলে! তবে গল্প একটু ভিন্ন— অস্বাভাবিক বিচিত্র রকমের হয়। অন্ধকার থেকে ২৭ দিন পর বাড়ি ফিরেও পরীর নিরাপত্তা নেই। স্বস্তিও সকালের মেঘে ভিড়। এই ভিড়ের মাঝ থেকেই নিরাপত্তা খুঁজে বের করতে হয়। পরীমণি মুক্তি পেয়েছে কিন্তু নিরাপত্তা নেই তার অনুকূলে। তবে হারাননি সাহস— মনোবল সঙ্গে নিয়েই ঘরে আছেন। মুক্তির ক্ষণেই প্রমাণ করে দিয়েছেন তিনি মনোবল হারাননি। কারাগার থেকে বের হয়েছেন হাতে মেহেদী দিয়ে। এই মেহেদীর মাধ্যমে দিয়েছেন বিশেষ বার্তা। তবে সাহস না হারালেও নিরাপত্তার জন্য আবারো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে স্ট্যাটাস দিতে হলো পরীর!

এর আগেও গত জুলাই মাসে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে এক দীর্ঘ স্ট্যাটাস দেন তিনি। সেখানেও নিজেকে অনিরাপদ দাবি করে তার ওপর নির্যাতন করা হয়েছে বলে জানান। সেই স্ট্যাটাসের সূত্র ধরে গ্রেফতার হন ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন আহমেদ। পরে তিনি জামিনে ছাড়া পান। কিন্তু গত ৪ আগস্ট মাদকের মামলায় গ্রেফতার হন পরীমণি। ২৭ দিন আটক থাকার পর ১ সেপ্টেম্বর জামিনে ছাড়া পেয়েছেন তিনি। বর্তমানে বনানীতে নিজের বাড়িতেই অবস্থান করেছেন এই নায়িকা।

তিনি একজন মেধাবী অভিনয়শিল্পী, ভুল শুধরে নিয়ে শোবিজে আবারো কাজ করবেন। তার এই অন্ধকার জীবনের নেপথ্যে কারা ছিলেন, তাদেরও খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনাও জরুরি। মানুষ আশায় থাকে আলোর— আলোকিত জীবনের। দীর্ঘ বিরতির পর হলেও আলো আসে নিজের হয়ে। পরীর জীবনে আলো এসেছে, আরো আসবে, এই আলো কাজে লাগানোর জন্য তার নিরাপত্তা জরুরি। শুধু পরীর এমন আবেদন নয়— এমন আবেদন সবার। আশা করছি, মানবতার জননী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপযুক্ত ব্যবস্থা নিয়ে পরীর স্বাভাবিক জীবন-যাপনের জন্য পরিবেশ করে দেবেন।

মানবকণ্ঠ/এএইচ


poisha bazar

ads
ads