পরীমনি ডিবি কার্যালয়ে


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৫ জুন ২০২১, ১৮:০৮,  আপডেট: ১৫ জুন ২০২১, ১৮:৩৬

ঢাকা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমনি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয়ে হাজির হয়েছেন। ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে তাঁর করা মামলায় তথ্য দিয়ে পুলিশকে সহায়তা করতে তিনি সেখানে গেছেন।

মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তিনি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (উত্তর) যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশিদের কার্যালয়ে এসেছেন। সেখানে তাঁকে মামলাসংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশ্ন করা হচ্ছে।

চিত্রনায়িকা পরীমনির সঙ্গে সেখানে উপস্থিত হয়েছেন পরিচালক চয়নিকা চৌধুরী, কস্টিউম ডিজাইনার জুনায়েদ করিম জিমি।

ডিবি কার্যালয়ে যাবার আগে পরীমনি সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘মামলার বাদী হিসেবে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে আমাকে ডাকা হয়েছে। পুলিশ আমার বক্তব্য শুনতে চায়।’

সোমবার (১৪ জুন) দুপুরে রাজধানীর উত্তরা-১ নম্বর সেক্টরের-১২ নম্বর রোডের বাসা থেকে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, নাসির উদ্দিন মাহমুদ (৬৫), তুহিন সিদ্দিকী অমি (৩৩), লিপি আক্তার (১৮), সুমি আক্তার (১৯) ও নাজমা আমিন স্নিগ্ধা (২৪)। তাদের গ্রেফতারের পর সন্তোষ প্রকাশ করেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। এ সময় আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিও দাবি করেন তিনি।

এদের মধ্যে নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমি, পরীমণির করা মামলার নামীয় আসামি। ওই রাতেই মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে বিমানবন্দর থানায় তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলা নথিভুক্ত করা হয়। আজ আদালতে সোপর্দ করে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে।


এর আগে রবিবার প্রথমে ফেসবুকে দীর্ঘ স্ট্যাটাসে অভিযোগ তোলার পর রাতে সাংবাদিকদের বনানীর বাসায় ডেকে ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরেন পরীমণি।

সংবাদ সম্মেলনে পরীমণি দুজনের নাম প্রকাশ করে জানান, একজনের নাম নাছির ইউ. মাহমুদ এবং অন্যজন তার (পরীমণি) কস্টিউম ডিজাইনার জেমীর স্কুলবন্ধু অমি নামের এক ব্যবসায়ী।

এসময় পরীমণি আরও জানান, নাসির ইউ. মাহমুদ নিজেকে উত্তরা বোট ক্লাবের (ঢাকা বোট ক্লাব) সাবেক সভাপতি বলে নিজেকে দাবি করেন। পরীমণি বলেন, ‘গত বুধবার (৯ জুন) রাত ১২টায় আমাকে বিরুলিয়ায় নাসির ইউ. মাহমুদের কাছে নিয়ে যায় অমি। সেখানে নাসির ইউ. মাহমুদ আমাকে মদ খেতে অফার করেন। আমি রাজি না হলে আমাকে জোর করে মদ খাওয়ানোর চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে আমাকে চড়-থাপ্পড় মারেন। তারপর আমাকে নির্যাতন ও হত্যার চেষ্টা করেন। অমিও এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত।’

 



poisha bazar

ads
ads