‘বাংলাদেশি লেখক-নির্মাতাদের মধ্যে নকলের প্রবণতা বেশি’

‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’-এর নির্মামাতা সুদ হাসান উজ্জ্বল
‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’-এর নির্মামাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বল

  • অচিন্ত্য চয়ন
  • ১৪ নভেম্বর ২০২০, ১১:১৫,  আপডেট: ১৪ নভেম্বর ২০২০, ১৩:১২

হালের প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ পরিচালক মাসুদ হাসান উজ্জ্বল। ২০০৬ সালে টেলিভিশন নাটক ‘যান্ত্রিক ফড়িং এক’ নির্মাণের মাধ্যমে পরিচালনা শুরু করেন। নাটক নির্মাণ করে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে তাঁর প্রথম চলচ্চিত্র ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’। তরুণ এই নির্মাতার সঙ্গে কথা বলেছেন- অচিন্ত্য চয়ন

শুরুর গল্প...
২০০৬ সালে টেলিভিশন নাটক ‘যান্ত্রিক ফড়িং এক’ পরিচালনার মাধ্যমে আমার পরিচালক হিসাবে কাজ শুরু। কিন্তু এটি প্রথমে প্রচারিত হয়নি। প্রথম প্রচারিত টিভি নাটক ‘স্বস্তিকা কি যে অস্বস্তি’।

বাংলাদেশের পরিচালকদের দুর্বলতা...
বাংলাদেশি পরিচালকদের দুর্বল দিক হলো- যথেষ্ট কল্পনাশক্তি এবং কারিগরি জ্ঞানের অভাব। একজন পরিচালকের জন্য যা খুবই জরুরি।

প্রতিবন্ধকতা...
এই দেশের চলচ্চিত্রের পদে পদে প্রতিবন্ধকতা! পেশাদার কর্মী এবং শিল্পী সংকটের পাশাপাশি কার্যকর কোনো চলচ্চিত্র নীতিমালা না থাকা, মানসম্পন্ন সিনেমা হলের অভাব, পেশাদার প্রযোজক সংকট, নানা ধরনের সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য, সনাতন পদ্ধতির অস্বচ্ছ বিপণন ব্যবস্থা, সিনেমা হল এবং প্রযোজকের মধ্যে বৈষম্যমূলক প্রফিট শেয়ারিং অন্যতম! লভ্যাংশের খুব সামান্য অংশ প্রযোজক পেয়ে থাকেন !

পরিচালনায় আসার কারণ...
আজন্ম স্বাধীনচেতা মানুষ আমি। যেই কাজ আমাকে টানে না সেই কাজ আমি করি না। একমাত্র চলচ্চিত্রই আমাকে টানে, তাই এই পেশাতে আসা।

‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’-এ সাড়া...
বলতেই হয় গত তিন সপ্তাহে অভূতপূর্ব সাড়া পেয়েছি। বিশেষত বসুন্ধরা সিটি স্টার সিনেপ্লেক্স এবং চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রীনে টানা তিন সপ্তাহ অধিকাংশ শো’ই হাউস ফুল গিয়েছে। ঢাকার বাইরেও পর্যায়ক্রমে হল বাড়ছে। দেশের বাইরে অস্ট্রেলিয়াতে এই মাসের শেষ দিকে মুক্তি পাবে। নর্থ আমেরিকা এবং কানাডায় হল খুলে দিলেই সেসব জায়গায় ঊনপঞ্চাশ বাতাস মুক্তি পাবে। দর্শকদের ইতিবাচক রিভিউতে ভাসছে ঊনপঞ্চাশ বাতাস।

বাংলাদেশের অনেক সিনেমার গল্প নিয়ে নকলের প্রশ্ন...
বাংলাদেশি লেখক-নির্মাতাদের মধ্যে ভয়ানক নকল প্রবণতা রয়েছে! যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসের অভাব এবং অনুকরণ প্রিয়তা এর প্রধানতম কারণ। দর্শকের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ নানা মাধ্যমে বিদেশি ছবি দেখে বাংলাদেশি লেখক-নির্মাতাদের এক ধরনের মানসিক চাপ প্রয়োগ করে থাকেন বিদেশি ছবির আদলে ছবি বানাতে, সেটার কারণে অনেকেই বিভ্রান্ত হয়ে নকলে উদ্বুদ্ধ হন। তাছাড়া শুরুতেই যে বললাম, যথেষ্ট কল্পনা শক্তির অভাবের কারণে নকল করাটাকেই সহজতর পথ বলে মনে করেন অনেকে। কোনো একটা পেশায় যোগ্য মানুষ না থেকে অযোগ্য মানুষে ভরে উঠলে যা হয় আর কি!

পরিচালনায় আসার জন্য প্রস্তুতি...
১৪ বছর টেলিভিশন এবং বিজ্ঞাপনে কাজ করার পর চলচ্চিত্র নির্মাণে আসতে পেরেছি। একজন চলচ্চিত্র পরিচালক হওয়ার বাসনা নিয়ে কিশোর বয়স থেকে চলচ্চিত্রের সবগুলো শাখায় প্রশিক্ষিত এবং দক্ষ হওয়ার চেষ্টা করেছি।

নিজেকে পরিচালক হিসেবে নিতে পেরেছেন কি?
নিজেকে পরিচালক হিসেবে নিতে পেরেছি কি না বা সফল কি না এসব নিয়ে আমি ভাবি না। আমার পরিচয় মহাকাল নির্ধারণ করে দেবে। আমি কেবল গভীর মনোযোগ আর সততার সাথে আমার কাজটুকু করে যেতে পারি।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা...
ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সিনেমা বানানো এবং বানাতে থাকা।

পরবর্তী প্রজন্মকে কিছু বলুন...
কাউকে উপদেশ দেয়ার সময় এখনো আমার আসেনি। পরবর্তী প্রজন্মের সাথেও আমি একাত্মতা প্রকাশ করে সমসাময়িক থাকার বাসনা রাখি।

মানবকণ্ঠ/এইচকে



poisha bazar

ads
ads