‘হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে এক হয়ে কাজ করতে হবে’

‘হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে এক হয়ে কাজ করতে হবে’

poisha bazar

  • অচিন্ত্য চয়ন
  • ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৬:২৮,  আপডেট: ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৭:০১

‘কুলি’ সিনেমাখ্যাত চিত্রনায়িকা সাদিকা পারভিন পপি। প্রথম সিনেমায় অভিনয় করেই দর্শকের ভালোবাসা কুড়ান তিনি। এরপর বেশকিছু জনপ্রিয় সিনেমায় অভিনয় করে প্রশংসিত হন। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে তার হাতে উঠেছে চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। সম্প্রতি ‘ভালোবাসার প্রজাপতি’ নামে একটি নতুন সিনেমায় অভিনয় করছেন। ইতোমধ্যে শুটিংও শুরু হয়েছে। বর্তমান কাজ নিয়ে তিনি কথা বলেছেন মানবকণ্ঠের সঙ্গে। তার সঙ্গে কথা বলেছেন- অচিন্ত্য চয়ন

করোনাযুদ্ধের কথা বলুন...
করোনা মহামারী আমাদের অনেক কিছুই শিখিয়েছে। আমি আক্রান্ত হওয়ার পর বেশ আতঙ্কে থাকতাম। ভেবেছিলাম মরেই যাব। ভয়ে মাঝেমধ্যে ভেঙে পড়তাম। সে সময় সবাই খুব মানসিক সাপোর্ট দিয়েছেন। আমি মনোবল শক্ত করে সার্বক্ষণিক চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলেছি। করোনার সঙ্গে যুদ্ধ করে এখন আপনাদের সকলের দোয়া ও ভালোবাসায় ভালো আছি। সবাই আমার ও পরিবারের জন্য দোয়া করবেন। আমিও সবার জন্য দোয়া করি- আমরা যেন দ্রুতই স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারি।

নতুন কী কাজ করছেন?
‘ভালোবাসার প্রজাপতি’ শিরোনামে সিনেমার শুটিং করছি। রাজু আলীম-মাসুমা তানির পরিচালনায় এটি প্রযোজনা করছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। এর গল্প ও চিত্রনাট্য রচনা করেছেন খালিদ মাহবুব তূর্য। গত ১৮ সেপ্টেম্বর রাজধানীর ১২ নম্বর সেক্টরে দৃশ্যধারণের কাজ শুরু হয়।

‘ভালোবাসার প্রজাপতি’ নিয়ে কিছু বলুন...
সিনেমার গল্প এবং আমার চরিত্র ভীষণ ভালো লেগেছে। রোমান্টিক গল্প নিয়ে গড়ে উঠেছে ‘ভালোবাসার প্রজাপতি’ সিনেমার কাহিনি। আমার চরিত্রটি ভীষণ সুন্দর। শিপনের সঙ্গে আমার এটি প্রথম কাজ। শিপন ভালো করছে। আশা করছি তার সঙ্গে এ কাজটিও উপভোগ্য হয়ে উঠবে। আশা করছি, কাজটি সবাই উপভোগ করবেন।

বর্তমান চলচ্চিত্র নিয়ে বলুন...
বর্তমান চলচ্চিত্র নিয়ে অনেকটাই হতাশ। দর্শকরা প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে হতাশা হয়ে ফিরে আসেন। কারণ বাংলা চলচ্চিত্র আগের অবস্থানে নেই। ভালো কাজ হচ্ছে না। দর্শক কেন সময় নষ্ট করে সিনেমা দেখবে বলুন?

তাহলে বাংলা চলচ্চিত্রের ভবিষ্যৎ কী?
বাংলা চলচ্চিত্রের ভবিষ্যৎ ভাল না হলেও আমরা স্বপ্ন দেখি। তবে আমরা কাজে চেয়ে বেশি নিন্দা করছি। দিন যত যাচ্ছে এ প্রবণতা ততই বাড়ছে। আমি মনে করি, হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে সবাই এক হয়ে কাজ করতে হবে। তবেই আলো আসবে বাংলা চলচ্চিত্রে।

কাজ কমিয়ে দেয়ার কারণ...
শুরু থেকেই আমি একটু কোয়ালিটি মেইনটেইন করে কাজ করেছি। এখন যেসব অফার পাই তাতে অভিনয় করতে মন চায় না। কারণ, কোয়ালিটিলেস কাজ করে আমি নিজের অর্জিত রেপুটেশন নষ্ট করতে চাই না। আমাকে যেমন আমার দর্শক এখনো ভালোবাসেন, আমিও তাদের ভালোবাসি। তারা যেন প্রতারিত না হন সেদিকে তো অবশ্যই খেয়াল রাখা উচিত।

ছোট পর্দা নাকি বড় পর্দা কোনটিতে কাজ করে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?
ছোট পর্দা বা বড় পর্দায় বিভক্তি করতে চাই না। অভিনয় হলো শিল্প। তাই ছোট বা বড় পর্দা বলতে আমি কিছুই কখনো বুঝিনি। এখনো বোঝার চেষ্টা করি না। আমি বুঝি অভিনয়। একজন অভিনেত্রী যেখানে অভিনয় করার স্থান পাবেন সেখানেই অভিনয় করা উচিত। আমার মনে হয় সবারই এটাই করা উচিত।

ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য কিছু বলুন...
নতুনদের বলব তারা যেন শোবিজে আসার আগে প্রস্তুতি নিয়ে আসে। শুধু স্টার হলে হবে না। কোয়ালিটি কাজ করতে হবে। কারণ, তারকাদের আয়ু সীমিত। কিন্তু কোয়ালিটি কাজ যুগের পর যুগ বেঁচে থাকে।

মানবকণ্ঠ/এইচকে





ads







Loading...