অভিনয় আমার পেশা নেশা দুটোই

মানবকণ্ঠ
ছবি - সংগৃহীত।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০১ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:৩৪

গত বছরের ছাত্র আন্দোলনের সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ক্লিপ প্রকাশের কারণে বেশ ঝামেলা পোহাতে হয়েছিল তাকে। সব ঝামেলা কাটিয়ে আবার অভিনয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন অভিনেত্রী, মডেল ও নির্দেশক কাজী নওশাবা আহমেদ। পাশাপাশি একাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি এখন ব্যস্ত আছেন পাপেট শোর নির্দেশনা নিয়ে। বলা চলে নাটকের চেয়ে চলচ্চিত্রে বেশি ব্যস্ত। বড়পর্দার দিকে ঝুঁকে পড়ার কারণটা ব্যাখ্যা করলেন এভাবে- অভিনয়ের শুরু থেকেই স্বপ্ন দেখেছি, সিনেমায় কাজ করব। এখন বিভিন্ন সিনেমায় কাজের সুযোগ পাচ্ছি, তাহলে কেন অভিনয় করব না। বড় ক্যানভাস নিয়ে দর্শকের যেমন আগ্রহ থাকে, শিল্পীদেরও আগ্রহ থাকে অভিনয়ের। এ জন্য ভালো কাজের সুযোগ পেলেই ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে যাই।

তবে বড়পর্দায় কাজ করতে গিয়ে নওশাবা মূলত একের পর এক স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমা বেছে নিচ্ছেন। কিন্তু কেন? এ প্রসঙ্গে নওশাবা বলেন, গল্প ও চরিত্র যদি ভিন্ন ধরনের মনে হয়, তাহলেই অভিনয় করি। সেটা স্বল্পদৈর্ঘ্য নাকি পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা হবে তা নিয়ে খুব একটা ভাবি না। এর মধ্যে শাব্দিক শাহীনের পরিচালনায় ‘দ্য ন্যাকেড সোল’ এবং তানভীর চৌধুরীর পরিচালনায় ‘এসো সুসংবাদ এসো’ নামের যে দুটি শর্টফিল্মে অভিনয় করেছি, তার গল্প একেবারেই ভিন্ন ধরনের মনে হয়েছে।

চলচ্চিত্রে অভিনয়ে চরিত্রের বিষয়টি নিয়ে নওশাবা বলেন, সর্বশেষ যে ক’টি সিনেমায় অভিনয় করেছি, তার সব গল্পই একটি থেকে আরেকটি একেবারে ভিন্ন। প্রতিটি চরিত্রে দর্শক নতুন এক নওশাবাকে আবিষ্কার করবেন। যেমন ‘দ্য ন্যাকেড সোল’ সিনেমার কথাই বলি। এই সিনেমায় আমাকে দর্শক দেখতে পাবেন রাবেয়া নামের এক ট্রাক ড্রাইভারের স্ত্রীর চরিত্রে। রাবেয়া স্বামীর অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে। কিন্তু তারপরও সে বেঁচে যায়। এরপর থেকে সে সমাজের ব্যারিয়ার ভাঙার চেষ্টা করতে থাকে। পুরো সিনেমা ম্যাজিক রিয়ালিজমের ওপর নির্মিত।

অন্যদিকে ‘এসো সুসংবাদ এসো’ সিনেমায় দেখা যাবে নানা ঘাত-প্রতিঘাতে একটি মেয়ে নিঃসঙ্গ হয়ে পড়েছে। বিড়ালের সঙ্গে গড়ে উঠেছে তার প্রেমের সম্পর্ক। একইভাবে আমার ফিচার ফিল্ম ‘চন্দ্রাবতী’, ‘আলগা নোঙর’, ‘নাইনটি নাইন ম্যানসন’র চরিত্রগুলোয় দর্শক ভিন্ন ধরনের চরিত্রে আমাকে দেখতে পাবেন। অনেক বাছ-বিচার করেই এই সিনেমাগুলো অভিনয়ের জন্য নির্বাচন করেছি। কিছুটা তো বাছ-বিচার করে থাকেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে বলেন, যে কাজ দর্শক মনে রাখবেন না, টাকার জন্য সে ধরনের কাজ করার কোনো মানে হয় না। অভিনয় আমার পেশা এবং নেশা দুটোই। কিন্তু আমি কখনও চাই না অভিনয় বিরক্তিকর হয়ে উঠুক। টাকা পাব বলেই মনের বিরুদ্ধে গিয়ে কাজ করব- এই মানসিকতা আমার নেই। অনেক বছর হলো মিডিয়ায় কাজ করছি। কিন্তু সমসাময়িক অনেকের তুলনায় আমার কাজের সংখ্যা কম।

মানবকণ্ঠ/জেএস




Loading...
ads





Loading...