ম্যাচ ফিক্সিং করা অপরাধ নয় : ভারতীয় আদালত


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২২ জানুয়ারি ২০২২, ২০:৫৭

ম্যাচ ফিক্সিং ক্রিকেটের কলঙ্কজনক অধ্যায়গুলোর একটি। যেকোনো ক্রিকেটার বা সংশ্লিষ্ট কেউ এই অপরাধে জড়ালে তাকে শাস্তি পেতে হয়। তবে এবার ভারতের কর্নাটক হাইকোর্ট এক রায়ে জানিয়েছে, ম্যাচ ফিক্সিং করা কোনো অপরাধ নয়।

২০১৯ সালে কর্নাটক প্রিমিয়ার লিগে চার জনের বিরুদ্ধে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগের মামলার রায় দিতে গিয়ে বিচারপতি শ্রীনিবাস হরিশ কুমার বলেন, ‘ম্যাচ পাতানোয় অর্থ অসততা, বিশৃঙ্খলা, দুর্নীতি হতে পারে। তার জন্য শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দায়িত্ব ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের। কিন্তু ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২০ নম্বর ধারা অনুযায়ী ম্যাচ গড়াপেটার জন্য এফআইআর দায়ের করা যাবে না।’

আদালত কর্নাটক পুলিশ অ্যাক্টের ২(৭) ধারা উল্লেখ করে বলেছেন, এখানে বলা আছে জুয়া খেলার মধ্যে কোনও অ্যাথলেটিক স্পোর্টের অন্তর্ভুক্তির কথা বলা হয়নি। কর্নাটক প্রিমিয়ার লিগের দুই ক্রিকেটার সিএম গৌতম ও আবরার কাজি, জুয়াড়ি অমিত মালভি এবং বেলাগাভি প্যান্থার্স দলের মালিক আলি আসফাকের বিরুদ্ধে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ ছিল। এই চার জনের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২০ নম্বর ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছিল।

শুনানির সময় অতিরিক্ত অ্যাডভোকেট জেনারেল বলেন, ক্রিকেটপ্রেমীরা টাকা দিয়ে টিকিট কেটে খেলা দেখতে যান। যেহেতু এখানে টাকা জড়িত, তাই ৪২০ ধারা বলবৎ করা হোক। কিন্তু বিচারপতি বলেন, ক্রিকেটপ্রেমীদের মনে হতে পারে যে, তারা যেহেতু টাকা দিয়ে টিকিট কেটে খেলা দেখতে যাচ্ছেন, যেন পরিচ্ছন্ন খেলা হয়। কিন্তু তারা সবাই নিজের ইচ্ছায় টিকিট কেটেছেন। এখানে টিকিট কাটার ক্ষেত্রে কোনও প্ররোচনার ব্যাপার নেই।

শুধু ৪২০ ধারাই নয়, ভারতের ওই আলাদাত জানিয়েছে, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০বি ধারাও আনা যাবে না। এই ধারায় ফৌজদারি চক্রান্তের কথা বলা আছে। বিচারপতি বলেন, চার্জশিটে যে অভিযোগগুলি আনা হয়েছে, সেগুলো যেহেতু ৪২০ ধারায় পড়ছে না, তাই ১২০বি ধারা প্রয়োগ করার কোনও প্রশ্নই নেই।

সূত্র : আনন্দবাজার



poisha bazar


ads