লিগের সম্ভাবনা দেখছেন না পাপন

বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসাস পাপন।
বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসাস পাপন। - ফাইল ছবি

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৪ এপ্রিল ২০২১, ১৮:০৯

করোনার ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে আপাতত স্থগিত রয়েছে বাংলাদেশের ঘরোয়া সব ধরনের খেলাধূলা। গেলো বছর করোনা ভাইরাসের কারণে সবধরেনের খেলা স্থগিত হয়ে গিয়েছিলো। ক্রিকেট লিগও স্থগিত হয়ে গিয়েছিলো। প্রকোপ কমায় আবার মাঠে গড়িয়েছে ক্রিকেট।

তবে এই বছর জাতীয় ক্রিকেট লিগ শুরু হবার পর আবার স্থগিত করতে হয়েছে লিগ। মার্চের শুরু থেকে করোনার প্রকোপ আবার বেড়েছে দেশে। ফলে কঠোর লকডাউনের পথে হেটেছে সরকার। ২৮ এপ্রিল থেকে আবার লকডাউন উঠে যাবে। ফলে লিগ আবার শুরু হবে কিনা এনিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা।

এবছর ঘরোয়া ক্রিকেটে ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট ডিভিশন লিগ শুরু হবার কথা মে মাসের ৬ তারিখ থেকে। তবে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে যে অবস্থা তাতে নির্ধারিত সময়ে কোনভাবে লিগ মাঠে গড়ানোর সম্ভাবনা দেখছেন না বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসাস পাপন।

শনিবার সস্ত্রীক রাজধানী কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেন পাপন। সেখানেই গনমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেছেন তিনি।

পাপন বলেন, ‘এখন যে পরিস্থিতি আছে তাতে প্রিমিয়ার লিগ শুরু করা কঠিন। এমন পরিস্থিতি আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি কোনোভাবেই খেলা মাঠে নামানো উচিত হবে না। যতোক্ষণ জৈব সুরক্ষা বলয় নিশ্চিত করতে না পারবো, ততোক্ষণ পর্যন্ত খেলার কোন প্রশ্নই ওঠে না, সেটি একটা টিম হোক বা দশটা টিম হোক।’

চলতি বছরের ১৪ মার্চ সিসিডিএম থেকে জানানো হয়, আগামী ৬ মে থেকে শুরু হবে স্থগিত থাকা ডিপিএল। তবে এবার ওয়ানডের পরিবর্তে এই টুর্নামেন্ট হওয়ার কথা ছিল টি২০ ফরম্যাটে। করোনাভাইরাসের কারণে সেটিও অনিশ্চিত।

তবে একেবারে আশা ছাড়েননি পাপন, ‘বিসিবি চেষ্টা করে যাচ্ছে। যদি ওরা আমাকে কনভেন্স করতে পারে যে না সুরক্ষা বলয়ে নিশ্চিত করে খেলাটা চালিয়ে যেতে পারবে, তাহলে আমরা খেলব। তবে আমার কাছে মনে হচ্ছে সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ।’

বর্তমান জাতীয় দলের পারফরমেন্সে যথেষ্ট আশাবাদী নাজমুল হাসান পাপন। জানালেন তিনি দলকে দেখতে চান বিশ্বের সেরা ৫ দলের মধ্যে। তিনি বলেন, ‘আপনাদেরকে আমি একটা জিনিস নিশ্চিত করে বলতে পারি, আমি মনে-প্রাণে বিশ্বাস করি, আমরা এমন কোনো দল নাই, যাদের হারাতে পারি না। তাই বলে আমরা কিন্তু সেরা দল না। কেউ যদি মনে করে, আমরা মনে করছি আমরা সেরা দল, না, প্রশ্নই ওঠে না। কিন্তু আমাদের সে সক্ষমতা আছে, সেটি ধারাবাহিক করাটাই বড় চ্যালেঞ্জ।

আমাদের পাইপলাইনে যে খেলোয়াড় আছে, নতুন খেলোয়াড় আছে, ওদেও খেলা দেখে আমি আশাবাদী। ওই দিন আর বেশি দূরে না, যখন আমরা সেরা ৫টা দলের মধ্যে থাকবো। সেটিও হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ। পাইপলাইনের খেলোয়াড়দের নিয়ে যথেষ্ট উচ্ছ্তসিত বিসিবি সভাপতি। অনেকবারই তাদেরকে ঘিরে টেস্ট ক্রিকেটে আলাদা পরিকল্পনার কথা ভেবেছেন তিনি।

তার এই পরিকল্পনা কতদূর এগিয়েছে সে বিষয়ে পাপন বলেন. ‘এটা খুব কঠিন। কিছু করতে পারছি না। যা, যা পরিকল্পনা ছিল ডেভেলপমেন্টের, সেটি তো হচ্ছে না করোনাভাইরাসের কারণে। এটা অনেকেরই হচ্ছে, শুধু একা বাংলাদেশের না। আমি যেটা আপনাদের বলছি, জেতার পর বেশি খুশি হওয়ার কিছু নাই, হেরে গেলে বেশি কষ্ট পাওয়ার কিছু নাই। হারলে তো কষ্ট লাগবেই,। আমরা চাই বাংলাদেশ সবগুলো ম্যাচে জিতুক। কিন্তু আমরা এত বেশি বলি, অনেক সময় এটা টিমের ওপর প্রভাব ফেলে।’



poisha bazar

ads
ads