ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ

বিসিবির বিবেচনায় কক্সবাজার ও বিকেএসপি


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৯ জুলাই ২০২০, ১৮:০২

নিজের জন্মদিনে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি জানিয়ে দেন, বাতিল হচ্ছে এশিয়া কাপ। যদিও এখনো পর্যন্ত এই বিষয়ে কিছুই জানায়নি এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)। তবে আসরটি অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই ক্ষীণ।

অপরদিকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়েও একই অবস্থা বিরাজ। আইসিসি বারবার সিদ্ধান্ত নেয়ার তারিখ পেছালেও, দিন যত গড়াচ্ছে তাতে সুখবর আসবে বলে মনে হয় না। এমনটা হলে ডিসেম্বরের আগ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ঘরে বসেই দিন কাটাতে হবে বাংলাদেশকে।

তবে এই সময়টাতে আবারো আয়োজন করা যেতে পারে স্থগিত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) বাকি অংশ। করোনার উদ্ভুত পরিস্থিতির কারণে গত ১৬ মার্চ ডিপিএলের প্রথম রাউন্ড অনুষ্ঠিত হওয়ার পর বন্ধ হয়ে যায় ক্রিকেট।

চার মাসের এই ঘরবন্দি জীবন কাটানোর মাঝে ভার্চুয়াল আড্ডায় মেতে ওঠেন ক্রিকেটাররা। সেখানেই অনেকে মত পোষণ করেন, দেশে আবারো ক্রিকেট ফিরলে সেটা হবে ডিপিএল দিয়েই। কেননা বেশির ভাগ ক্রিকেটারদের আর্থিক সুবিধা নিশ্চিত করছে এই টুর্নামেন্টটির উপর।

এদিকে ১১৭ দিন পর মাঠে গড়িয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই ম্যাচটি থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে ক্রিকেট ফেরানোর পরিকল্পনা নিচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। সেজন্য গত বুধবার ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন (কোয়াব), ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিটন (সিসিডিএম) ও বেশ কয়েকজন শীর্ষ ক্রিকেটারদের সঙ্গে বৈঠকে বসে বোর্ড।

সভার পর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সিসিডিএমের চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদ বলেছেন, ‘গতকাল আমরা কোয়াব এবং বেশ কয়েকজন জাতীয় দলের ও প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। বৈঠকে আমরা প্রিমিয়ার লিগ কবে শুরু করা যায়, সেটি নিয়ে আলাপ করেছি। তবে এই মুহূর্তে কোনও তারিখ চূড়ান্ত না হলেও ক্লাবগুলোকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, প্রিমিয়ার লিগ দিয়েই খেলা শুরু হওয়ার বিষয়টি। সব ক্লাব ১৫ দিনের নোটিশে লিগ শুরুর প্রস্তুতি রাখবে।’

করোনা পরিস্থিতির মাঝে ক্রিকেটকে ফেরাতে হলে দরকার জৈব নিরাপদ পরিবেশ। সে হিসেবে ঢাকায় লিগ আয়োজন করা প্রায় দুঃসহ। তাই বিসিবির বিবেচনায় আছে দুটি ভেন্যু- কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম ও বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি)।

ইনামের বক্তব্য, ‘ঢাকায় ক্রিকেটারদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে আইসোলেশনে রাখা অসম্ভব। তাই আমরা কক্সবাজার কিংবা বিকেএসপিতে ক্রিকেট লিগের খেলাগুলো দেওয়ার প্রস্তাব করেছি। এই দুটি ভেন্যুতে ক্রিকেটার এবং ক্রিকেট সংশ্লিষ্টদের আইসোলেশনে রাখা যাবে। কারণ এই দুই ভেন্যুর সঙ্গে আবাসন সুবিধা আছে।কক্সবাজারে খেলা হলে সেখানে দুই-তিনটা হোটেলে রাখব। ঢাকা থেকে আকাশপথে ক্লাবগুলোকে সেখানে পাঠিয়ে দেওয়া যাবে। এই দুই ভেন্যুতে সব খেলোয়াড়ের থাকা ও খাওয়ার বিষয়টি নিরবিচ্ছিন্নভাবে সাজানো যাবে।’

এদিকে ডিপিএলের চুক্তির শর্ত অনুযায়ী, খেলা শুরু হওয়ার আগেই ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিকের অর্ধেক প্রদান করতে হবে ক্লাবগুলো। কিন্তু বেশ কজন ক্রিকেটারই অভিযোগ করেছেন, সে অর্থ পাননি তারা। বিষয়টি সভায় তুলেছে কোয়াব।

এ ব্যাপারে ইনাম ক্লাবগুলোকে পাওনা অর্থ পরিশোধ করার নির্দেশ দিয়েছেন, 'ব্রাদার্স ইউনিয়ন ও পারটেক্স খেলোয়াড়ড়া আর্থিক শঙ্কার কথা জানিয়েছে, এখনো তারা কোন অর্থ পায়নি। এবার সরাসরি চুক্তিতে ক্লাবগুলো ক্রিকেটার দলে নেওয়া সত্বেও লিগ শুরুর আগেই ৫০ শতাংশ অর্থ প্রদানের নির্দেশ দিয়েছে সিসিডিএম।'

ডিপিএল পুনরায় শুরুর ব্যাপারে ক্লাবগুলোর সঙ্গে আগামী সপ্তাহে আলোচনায় বসবে বিসিবি। তবে কোরবানী ইদের আগে টুর্নামেন্ট নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আসার সম্ভাবনা খুবই কম।





ads






Loading...