ব্যর্থ হলে নিজেই সরে দাঁড়াবেন তামিম

মানবকণ্ঠ
তামিম ইকবাল - ছবি : সংগৃহীত।

poisha bazar

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • ১৫ মার্চ ২০২০, ১৪:১০

বাংলাদেশ ক্রিকেটের অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফি বিন মর্তুজা এখন অতীত। দেশের মাটিতে জিম্বাবুয়ে সিরিজ দিয়েই ওয়ানডে নেতা মাশরাফির ইতি ঘটেছে। দেশের সর্বকালের সেরা এই অধিনায়কের উত্তরসূরি খুঁজে নিতে বেশি দেরি করেনি বিসিবি (বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড)। গত ৮ মার্চ দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনায় বাংলাদেশের ওয়ানডে দলের নতুন অধিনায়ক হিসেবে নির্বাচন করা হয় দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবালকে। যিনি কিনা এর আগে জাতীয় দলকে একদিনের ক্রিকেটে মোট তিনটি ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

ওয়ানডে ক্রিকেটে তামিম যুগের সূচনা হতে পারে আগামী ১ এপ্রিল, পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের একটি মাত্র ওয়ানডে দিয়ে। তবে যদি করোনা ভাইরাসের প্রকোপে এই সিরিজ বাতিল হয় তবে তামিমের অপেক্ষার পালা বাড়বে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তামিম পুরোদমে অধিনায়ক হিসেবে কবে শুরু করেন সে ব্যাপারে নিশ্চয়তা না মিললেও নেতৃত্বের অনুশীলনের সুযোগ আজ থেকেই পেয়ে যাচ্ছেন তিনি। দেশকে নেতৃত্ব দেয়ার আগে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে প্রাইম ব্যাংকের নেতৃত্ব দেবেন তিনি। প্রিমিয়ার লিগে তামিম এর আগেও নেতৃত্ব দিয়েছেন। তবে এবার গল্পটা আসলেই একটু ব্যতিক্রম। দেশের ওয়ানডে অধিনায়ক এখন তিনি। তাই ডিপিএলে অধিনায়ক তামিম কেমন করেন, সেদিকে আলাদা নজর থাকবে সবার। তামিমও মুখিয়ে আছেন নতুন দায়িত্বে ভালো করতে। এর সঙ্গে নিজের ব্যাটিংও ঠিক রাখার চ্যালেঞ্জ সামলাতে হবে তামিমকে। এ দুই দায়িত্বের সঙ্গে মানিয়ে নিতে দর্শক, সংবাদকর্মীদের কাছে সময় চেয়ে নিলেন তামিম। দায়িত্ব ঠিকমতো পালন করতে না পারলে দলের নেতৃত্ব থেকে নিজেই সরে দাঁড়াবেন এমন মন্তব্যও করলেন তিনি।

গতকাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের একাডেমি মাঠে প্রাইম ব্যাংকের অনুশীলনের আগে ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে তামিম বলেন, ‘আমি আপাতত এটাই সবাইকে বলতে পারি, আমার এ ক্ষেত্রে একটু ধৈর্য রাখেন। নিজের ব্যাটিংয়ে এক সিরিজ, দুই সিরিজ বা পাঁচটা ব্যর্থতা- এটা হতেই পারে। আশা করি হবে না। অধৈর্য হব না, আপনারাও হবেন না। দর্শকদেরও একই অনুরোধ করব। চেষ্টা করব যেন, তাড়াতাড়ি ঠিক হয়ে যায়। আর যদি কোনো কারণে কোনো সময়- সেটা ছয় মাস হোক বা এক বছর, আমার যদি মনে হয় আমি দলের সঙ্গে সুবিচার করছি না, তাহলে আমিই হব প্রথমজন, যে সরে দাঁড়ানোর কথা বলবে। আমিই সবার আগে হাত তুলে বলব ‘স্যরি’।’

হুট করেই মাশরাফির শূন্যতা পূরণের আশা দেখাননি তামিম। মাশরাফি ছিলেন মাঠে ও মাঠের বাইরে বাংলাদেশের সেরা অধিনায়ক। তার অভাব পূরণ অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তামিম বুঝিয়ে দিয়েছেন, কাজটি সহজ হবে না তার জন্য। কঠিন হবে অনেক বেশি, ‘আমি এমন একজনের পরে দায়িত্ব পেয়েছি, যিনি অনেক সফল। যার নেতৃত্বে আমরা অনেক কিছু করেছি। আমাদের প্রাপ্তির ভাণ্ডার অনেক ভারি হয়েছে, অর্জনও আছে বেশ। তার জায়গাটা হুট করে নিয়ে, সফল হওয়া সহজ কাজ নয়। কাজেই দায়িত্ব পেয়ে রাতারাতি ও খুব শিগগিরই মাশরাফি ভাইয়ের পর্যায়ে চলে যাওয়া হবে খুব কঠিন। আমি ভালো করে জানি, উনি অনেক বছর অধিনায়কত্ব করেছেন। তার নেতৃত্বে দল হিসেবে আমাদের অর্জন ও প্রাপ্তিও আছে অনেক। তারপরও আমরা যদি খুব জলদি কোনো ভালো পর্যায়ে চলে যেতে পারি, সেটা খুব ভালো। আর না যেতে পারলে একটু সময় চাইব।’

তামিম আরো জানিয়েছেন, দলকে মাঠের ভেতর আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলাতে চান তিনি। কিন্তু সবার আগে মাঠের বাইরের অধিনায়কত্বে হাত পাকাতে চান। খেলোয়াড় ব্যবস্থাপনায় আরো উন্নতি আনতে চান। তামিম মনে করেন, মাঠের বাইরের নিয়ম-শৃঙ্খলায় বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম সেরা দল। তবু এই জায়গায় আরো উন্নতি চান নতুন এই ওয়ানডে অধিনায়ক।





ads







Loading...