পাকিস্তান সফর নিয়ে পিসিবির সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় বিসিবি


poisha bazar

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • ১৫ মার্চ ২০২০, ১৪:০৭

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে শুধু জনজীবনই নয়, একেবারে থমকে গেছে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গন। পিছিয়ে গেলে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ-আইপিএল। ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা ওয়ানডে সিরিজও বাতিল। অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে একটি মাত্র ম্যাচ খেলে দেশে ফিরছে নিউজিল্যান্ডও। এই ওয়ানডে সিরিজও বাতিল ঘোষণা হয়েছে। ফুটবলে ইতালিয়ান সিরি’আ, স্প্যানিশ লা লিগা, ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের পর জার্মান বুন্দেসলিগাও স্থগিত ঘোষণা হয়েছে।

ক্লোজ ডোরে (দর্শকশূন্য মাঠে) চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচ আয়োজনের কথা থাকলেও উয়েফাও হেঁটেছে বাকিদের পথে। স্থগিত ইউরোপিয়ান এই প্রতিযোগিতাও। আসন্ন টোকিও অলিম্পিক নিয়েও আছে শঙ্কা। এক কথায় বলতে গেলে, স্থমিত ক্রীড়াক্ষেত্র। এই ভাইরাসের ধাক্কা সামলে উঠে আদৌ এই মৌসুমের বাকি ম্যাচগুলো মাঠে গড়াবে কি-না তা নিয়েও আছে সন্দেহ!

একই কারণে এবার বাংলাদেশের তৃতীয় দফায় পাকিস্তান সফর বাতিল হওয়াও এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। পাকিস্তানের ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট পিএসএল চললেও আন্তর্জাতিক সিরিজটি স্থগিত হয়ে যেতে পারে যে কোনো সময়। আগামী ১ এপ্রিল করাচিতে একটিমাত্র ওয়ানডে আর ৫ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া এক টেস্ট খেলতে ২৯ না হয় ৩০ মার্চ করাচি যাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশ জাতীয় দলের। বিসিবি (বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড) সরাসরি এই সফর বাতিলের কথা না জানালেও পরিস্থিতির নিবিড় পর্যবেক্ষণ রেখেছে। গতকাল শনিবার বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন সুজনের কথায় আভাস মিলল এই সিরিজ মাঠে না গড়ানোর ব্যাপারে। আঁকার ইঙ্গিতে বিসিবি সিইওর পরিষ্কার বুঝিয়েছেন, বিসিবি এখন নিজেরা যেচে ‘না’ বলতে চাচ্ছেন না। যেহেতু স্বাগতিক পাকিস্তান, তাই বিসিবি চাচ্ছে ওই এক ওয়ানডে ও টেস্ট আপাতত স্থগিতের ঘোষণাটি পিসিবির কাছ থেকেই আসুক।

ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ শুরু হবে আজ থেকে। গতকাল আসরের টাইটেল স্পন্সর ঘোষণার অনুষ্ঠানে উপস্থিত বিসিবি সিইওর কাছে বেশিরভাগ প্রশ্ন গেল করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত ইস্যুতে। প্রশ্ন ওঠে এই কারণে জাতীয় দলের পাকিস্তান সফর নিয়ে। বর্তমানে সিরিজ নিয়ে দুদেশের দুই বোর্ড কী ভাবছে? গোটা বিশ্বে করোনা ভাইরাসের কারণে অনেক আন্তর্জাতিক আসর ও সিরিজ বন্ধ। এ রকম অবস্থায় জাতীয় দল কি করাচি যাবে? এমন প্রশ্নর জবাবে নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজন বলেন, ‘পাকিস্তান আয়োজক দেশ। তাই সিদ্ধান্তটা তারাই নেবে। আমরা দেখি পাকিস্তান কি সিদ্ধান্ত নেয়। আপনারা দেখেছেন, তাদের ঘরোয়া যে প্রতিযোগিতা (পিএসএল) হচ্ছে সেখান থেকে ৯ -১০ জন বিদেশি খেলোয়াড় চলে গেছে। আমরা পাকিস্তানের সিদ্ধান্ত জানার অপেক্ষায় আছি। আমরা তো সফরকারী দল। আমরা যে কোনো সময়ই নিজেদের সিদ্ধান্ত নিতে পারি। ট্রাভেল অ্যাডভাইজরি কিন্তু এখন প্রতিদিন নতুন করে তৈরি হচ্ছে। মুভমেন্টের জন্য করণীয় আসছে নতুন করে। আমরা অবশ্যই এটা নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং ক্লোজ মনিটরিংয়ে রাখছি। আমরা প্রত্যাশা করছি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড খুব শিগগিরই তাদের সিদ্ধান্ত জানাবে।’

গত শুক্রবার পিসিবির প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খানও এই সফর নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানাতে পারেননি। তিনি জানান, এই সফর বাতিলের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বরং দুইপক্ষের মধ্যে সিরিজ আয়োজন নিয়ে আলোচনা চলছে। আগামী তিনদিনের মধ্যে একটা সিদ্ধান্তে পৌঁছানো যাবে বলে শুক্রবার জানিয়েছেন তিনি। পিএসএলের এক ম্যাচের ফাঁকে ওয়াসিম খান বাংলাদেশের তৃতীয় দফা সফর নিয়ে বলেন, শুক্রবার আমি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে কথা বলেছি। আগে তিনি তাদের বোর্ডের সঙ্গে কথা বলবেন। তার সঙ্গে আমার যোগাযোগ রয়েছে, ইনশাআল্লাহ আগামী তিন দিনের মধ্যে পরিস্থিতি পরিষ্কার হয়ে যাবে।’





ads







Loading...