ভারতের ২০ উইকেট নেয়া অনেক বড় চ্যালেঞ্জ: মিরাজ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

ভারতের ২০ উইকেট নেয়া অনেক বড় চ্যালেঞ্জ
মেহেদী হাসান মিরাজ - ফাইল ছবি।

poisha bazar

  • ০৮ নভেম্বর ২০১৯, ১৭:০৭

মেহেদী হাসান মিরাজ। জাতীয় দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ। টেস্ট ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়া বধের নায়ক।  অনূর্ধ্ব-১৯ দলে থাকতে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন ব্যাটিং অলরাউন্ডার হিসেবে।  কিন্তু জাতীয় দলে প্রবেশ ঘটে বোলিংকে প্রাধান্য দিয়ে।  এখনো জাতীয় দলে বোলার মিরাজেরই গুরুত্ব বেশি।  টেস্ট দলে খেলার পর বাকি দুই ফরম্যাটেও তিনি প্রবেশ করেন।  কিন্তু নিজের অবস্থান ধরে রাখতে পারেননি।  থাকেন আসা-যাওয়ার মাঝে।  সেই পথ চলায় এবার ভারত সফরেও জায়গা হয়নি কুড়ি ওভারের দলে।  খেলবেন শুধুই সাদা পোশাকের ম্যাচ।  আজ সকালে ভারত যাবেন নতুন দলনেতা মুমিনুলের সাথেই।  আরো সঙ্গী হবেন সাদমান ইসলাম, আবু জায়েদ রাহী, ইমরুল কায়েস, এবাদত হোসেন, নাঈম হাসান, সাইফ হাসানও।  গতকাল টেস্ট সিরিজ নিয়ে মিরাজ কথা বলেন সাংবাদিকদের সাথে।  তার বলা কথার উল্লেখ্যযোগ্য অংশ মানবকণ্ঠের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

প্রশ্ন: প্রথমবারের মতো ভারত সফরে টেস্ট সিরিজকে কিভাবে দেখছেন

মিরাজ: আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ এটা।  মানসিকভাবে প্রস্তুতি ভালো করে নিতে হবে।  ভারতের মাটিতে টেস্ট আমাদের জন্য এত সহজ হবে না।  অনেক চ্যালেঞ্জ নিয়ে খেলতে হবে।  আমি মনে করি আমরা সেভাবেই প্রস্তুত। যেভাবে আমাদের প্রস্তুতি চলছে তাতে আমরা ভালো কিছুই করতে পারব।  আমরা এখন আত্মবিশ্বাসী।  আমাদের শুরুটা ভালো হয়েছে ভারতের মাটিতে।  আমরা সবাই যার যার জায়গা থেকে সেরাটা দিতে পারলে ভালো কিছু করতে পারব।

প্রশ্ন: এবার তো সফরকে সামনে রেখে সেভাবে প্রস্তুতি হয়নি। তো প্রস্তুতি কীভাবে নিয়েছেন?

মিরাজ: আমি গত এক সপ্তাহ খুব ভালো অনুশীলন করেছি।  আমি শারীরিক ফিটনেস নিয়ে কাজ করেছি।  জিম, রানিং, ব্যাটিং, বোলিং সব করেছি।  বিশেষ করে আমার যেসব জায়গায় দুর্বলতা আছে ওগুলো নিয়ে কাজ করেছি।  সবমিলিয়ে গত এক সপ্তাহ আমার স্কিল, ফিটনেস সব নিয়েই কাজ করেছি, যার কারণে আমি সন্তুষ্ট।  ভারতে যাওয়ার আগে এরকম একটা প্রস্তুতি দরকার ছিল।  যেটুক প্রস্তুতি নিয়েছি সেটা যদি শতভাগ করতে পারি, আমার মনে হয় আমার জন্য অনেক ভালো হবে।

প্রশ্ন: ভারতের বিশ্ব সেরা ব্যাটিং লাইনের ২০ উইকেট নেয়া কি সম্ভব?

মিরাজ: ওদের ২০ উইকেট নেয়াটা আমাদের বোলারদের জন্য বড় একটি চ্যালেঞ্জ।  কতটুকু আমরা মানসিকভাবে শক্ত থাকব বা কতটুকু আমরা মানসিকভাবে এগিয়ে থাকব এটা আমাদের অনুশীলনের ওপর নির্ভর করছে। আমরা জানি সাকিব ভাই আমাদের দলে থাকলে আমরা এগিয়ে থাকি। কিন্তু তিনি খেলবেন না।  অবশ্যই স্পিনারদের জন্য একটা বাড়তি চাপ থাকবে।  আমি, তাইজুল ভাই, নাঈম- যারাই আছি একটা বাড়তি চাপ থাকবে।  এরপরেও আমার মনে হয় আমরা যদি ভালো লাইন লেন্থে বল করতে পারি তাহলে ওদের ব্যাটসম্যানদের বিপদে ফেলতে পারব।  ওদের বিপদে ফেলতে পারলে আমাদের সুযোগ থাকবে।  ওরা সবাই দারুণ ব্যাটসম্যান।  স্পিনারদের চাপ নিতে হবে।

প্রশ্ন: সাকিব-মিরাজের বোলিং জুটি, এখন সাকিব নেই, দায়িত্ব বেড়েছে?

মিরাজ: আসলে যেটা আপনি বললেন সাকিব ভাইয়ের সঙ্গে বোলিং জুটি আমার খুব ভালো লাগে।  সাকিব ভাই যখন বোলিং করেন একপ্রান্ত থেকে, তখন আমি ব্যক্তিগতভাবে অনেক কিছু শিখতে পারি এবং অনেক সহায়তা পাই।  যদি কোনো ঘাটতি কিংবা সমস্যা থাকে সাকিব ভাই আমাকে সাথে সাথে বলে যে এখানে সমস্যা আছে। এখানে বল করলে ভালো হবে।  আমি সেভাবেই কাজ করার চেষ্টা করি। এখন যখন সাকিব ভাই নেই। সে কারণে আমাকে নিজেকেও একটু মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। আমার প্রস্তুতিটাও ভালো নিতে হবে। বিশেষ করে এখন আমাদের সঙ্গে কোচ আছেন ড্যানিয়েল ভেট্টরি।  আশা করি ওর কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারব এবং পরামর্শ পাব।  আমরা যদি ওর পরামর্শ অনুযায়ী চলতে পারি, তাহলে হয়তো আমাদের সাফল্য আসার সুযোগ বেশি থাকবে।

প্রশ্ন: দলের বাইরে থাকলে নিজেকে মানসিকভাবে কীভাবে প্রস্তুত করেন?

মিরাজ: আমি গত দুই-আড়াই বছর তিন ফরম্যাটেই খেলেছি।  এখন টেস্ট দলে আছি। আমার মনে হয় এই যে সময়টা পেয়েছি নিজেকে আরো পরিপূর্ণ ক্রিকেটার হিসেবে তৈরি করতে পারছি।  কারণ আমি গত ১০-১২ দিনে যে কাজটা করেছি, আমার কাছে মনে হয় আমি এমন একটি সুযোগ চেয়েছি, এরকম একটু টাইম নিয়ে ব্যাটিং বোলিং, আমার শারীরিক ফিটনেস যে ঘাটতিগুলো আছে সেগুলোর উন্নতি করা।  আমি চাই অনেক বছর ক্রিকেট খেলতে।  অনেক দিন ক্রিকেট খেলতে হলে ফিটনেস, স্কিলের উন্নতি করতে হয়।  কারণ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট যখন খেলি তখন এক জায়গায় পড়ে থাকলে কিন্তু আমি সারভাইব করতে পারব না। আমাকে ডে বাই ডে অনেক উন্নতি করতে হবে। আমি মনে করি এই গ্যাপটা আমার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ।  এই সময়ের কাজগুলো সামনের দিনগুলোতে কাজে লাগাতে পারব।  সামনে আমাদের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ আছে।  টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আছে।  এসব ছোট ছোট যে জিনিসগুলো নিয়ে কাজ করেছি এটা আমার অনেক কাজে লাগবে।

প্রশ্ন: ভারতে আগে যাচ্ছেন। সেখানে গিয়ে পরিকল্পনা কি?

মিরাজ: অবশ্যই এ রকম সুযোগ থাকবে।  এখনো দলের সঙ্গে যুক্ত হইনি।  কাল যাব ইনশাআল্লাহ।  আমি মনে করি ওখানে যে কন্ডিশন আছে খুব তাড়াতাড়ি মানিয়ে নিতে পারব ইনশাআল্লাহ। আমাদের সঙ্গে কোচ আছেন, টিম ম্যানেজমেন্ট আছে ওরা অ্যামাদের সাহায্য করবে।  আশা করি আমাদের ভেতর থেকে অনুশীলনের আগ্রহ বাড়বে এবং প্রস্তুতিটা ভালো হবে।

প্রশ্ন: দলের কারো সঙ্গে কথা হয়?

মিরাজ: এখন পর্যন্ত কথা হয়নি।  কথা তো সব সময় সেরকম হয় না।  কিন্তু খেলা দেখে তো বুঝা যায়, আত্মবিশ্বাস আছে কিনা।  তারপর সবার সঙ্গে তো কম বেশি কথা হয়।  সবাইকে দেখে মনে হয় সবাই আত্মবিশ্বাসী আছে।

প্রশ্ন: পিঙ্ক বলে অনুশীলন করছেন।  আলাদা কিছু করছেন?

মিরাজ: এখন পর্যন্ত আলাদা কোনো কাজ করছি না।  আমি শুধুমাত্র মানিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছি।  আশা ইন্ডিয়াতে যে কোচ আছে ওদের সঙ্গে কথা বলব, বসব।  ওদের সঙ্গে বসে হয়তো আলাপ করব কীভাবে কি করলে ভালো হয়।

মানবকণ্ঠ/আরবি




Loading...
ads





Loading...