যমুনায় বিরামহীন কর্মযজ্ঞ


  • জেলা প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকন্ঠ
  • ০৮ আগস্ট ২০২২, ১৮:৫৬

যমুনা নদীতে বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর কর্মযজ্ঞ চলছে এখন বিরামহীন। প্রচন্ড গরমে ঘাম ঝরছে কয়েক হাজার কর্মীদের। এদিকে যমুনা শান্ত থাকায় কাজের গতি বেড়েছে কয়েক গুণ। দৃশ্যমান হয়েছে সেতুর ৪২ শতাংশ।

এদিকে উত্তরবঙ্গের ছয় লেনের মহাসড়ক নির্মাণকাজ বেশ আগেই শুরু হয়েছে। আর বড় আকারে এ রেলপথ সংযোগের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলায় উত্তরবঙ্গে বড় আকারে কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে। তবে রেল বিভাগ বলছে, পুরো দেশকে রেল সংযোগের আওতায় আনতে মহাপরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। সেই পরিকল্পনার একটি অংশই রেল হলো বঙ্গবন্ধু রেলওয়ে সেতু। এ সেতু নির্মিত হলে প্রতিদিন ৬৮টি রেল চলাচল করতে পারবে।

বর্তমানে দেশে রেলের মোট ৩৬টি প্রকল্পের কাজ চলছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে খরচ হচ্ছে সোয়া এক লাখ কোটি টাকারও বেশি। আর এসব প্রকল্পের মধ্যে ১৫নং মেগা প্রকল্পটিই হচ্ছে যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু রেলওয়ে সেতু।

প্রাথমিকভাবে সেতুর অনুমোদিত নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ৯ হাজার ৭৩৪ কোটি ৭ লাখ টাকা। পরে উদ্বোধনের আগেই নির্মাণ ব্যয় বেড়ে ১৬ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা করা হয়। এর মধ্যে জাপানি আন্তর্জাতিক সংস্থা (জাইকা) ১২ হাজার ১৪৯ কোটি টাকা সহায়তা প্রদান করছে। বাকি অর্থ দেশের।

সেতুটি নির্মাণ হলে একদিকে যেমন উত্তরের যোগাযোগ খাতে নব-দিগন্তের সূচনা হবে। ঠিক তেমনি খুলবে অর্থনৈতিক সম্ভাবনার দুয়ার।

এদিকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই কাজ শেষ করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতুর (এডিডিআই) অতিরিক্ত চিফ প্রকৌশলী মো. আহসান জাবির।

সেতুর প্রকল্প পরিচালক (পিডি) আল ফাত্তাহ মো. মাসউদুর রহমান মানবকণ্ঠকে বলেন, ২০২৪ সালের ১০ আগস্টের মধ্যে সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হবে বলে আমরা আশা করছি। কারণ আগে কিছু সীমাবদ্ধতার কারণে নদীর দুই প্রান্তে সমানতালে কাজ চলানো সম্ভব হয়নি। তবে এখন বেশ দ্রুতগতিতে কাজ চলছে।


poisha bazar