যুবলীগের চেয়ারম্যানের মোবাইল নম্বর ক্লোনিং করায় গ্রেফতার ২


  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৪৮

আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শেখ ফজলে শামস পরশের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর ক্লোনিং করে চাঁদা দাবি করা দুই যুবককে গ্রেফতার করেছে সাইবার ক্রাইম ইউনিট। শেখ ফজলে শামস পরশের পক্ষে ব্যারিস্টার রানা তাজউদ্দিন খানের অভিযোগে তাদের গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) সকালে ফরিদপুর জেলা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। আটককৃতদের কাছ থেকে আরও তথ্য সংগ্রহের জন্য রিমান্ড চাইলে আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ৯ অক্টোবর আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শেখ ফজলে শামস পরশের ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর ক্লোনিং করে অজ্ঞাতনামা দুষ্কৃতিকারীরা। ওই দিন দুপুরে গাইবান্ধা জেলা যুবলীগ এর সভাপতি সরদার মো. শাহীদ হাসান লোটনকে ফোন করে টাকা পাঠাতে বলেন।

একই দিন বিকালে যুবলীগ চেয়ারম্যানের উক্ত নম্বর হতে নেত্রকোনা জেলা যুবলীগের আহবায়ক মো. জনি এবং রাতে সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের আহবায়ক মো. চপলকে টাকা পাঠাতে বলা হয়। একই কায়দায় তার পরের দিন বিকালে বর্ণিত নাম্বার থেকে মুশফিকুল ইউনুছ জায়গীরদার, পাবনা জেলা যুবলীগের আহবায়ক সনি বিশ্বাসকে ফোন দিয়ে টাকা পাঠাতে বলে।

বিভিন্ন অভিযোগ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যানের পক্ষে গত ১৫ অক্টোবর ব্যারিস্টার রানা তাজউদ্দিন খান বাদী হয়ে বনানী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার সকালের ফরিদপুর জেলায় অভিযান চালিয়ে ফিরোজ ও রাকিবুল ইসলাম নামে দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়।

তাদেরকে ২৪/২৬ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ মোবাইল নম্বর ক্লোনিং করিয়া নিজের পরিচয় গোপন করে অপরের রূপ ধারণ করে টাকা দাবি করার অপরাধ আটক করা হয়েছে।

জানতে চাইলে মামলার বাদী ব্যারিস্টার রানা তাজউদ্দিন খান বলেন, আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শেখ ফজলে শামস পরশকে রাজনৈতিকভাবে ও সামাজিকভাবে হেনস্তা করা, অর্থনেতিকভাবে লাভবান হওয় এবং বিভিন্ন তদবিরের কথা বলে দুষ্কৃতিকারীরা। চেয়ারম্যানের নির্দেশেই এই মামলা করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আটককৃতদের আদালতে পাঠালে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।


poisha bazar

ads
ads