চাঁদপুরের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে ৪ জনের মৃত্যু : চট্টগ্রাম ডিআইজি


  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৪ অক্টোবর ২০২১, ২০:৩৩

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে একাধিক পূজামণ্ডপে হামলার ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে তিন যুবক ও এক কিশোর নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে তিনজন বুধবার (১৩ অক্টোবর) রাতে ও একজন বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টৈাবর) সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে মারা যান।

এ ঘটনায় বিকেলে জাতীয় সংসদের হুইপ ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেনসহ জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনসহ স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তারা হাজীগঞ্জ পৌর এলাকায় হামলার শিকার কয়েকটি পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশের পাশাপাশি দুই প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন জানান, আত্মরক্ষা ও সম্পদ রক্ষার্থে পুলিশ ঘটনাস্থলে গুলি চালিয়েছে। এতে চারজন নিহত হয়। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। পুলিশ সাতজনকে আটক করেছে।

নির্মাণাধীন একটি বিল্ডিংয়ের ৮ তলায় পুলিশের গুলিতে শ্রমিক নিহতের ঘটনায় এক প্রশ্নের জবাবে ডিআইজি বলেন, পুলিশ জনগণের জানমাল রক্ষা ও আত্মরক্ষার্থে গুলি করেছে। সঙ্গত কারণে সেখানে গুলি যেতে পারে।

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনার পর হাজীগঞ্জ পৌর এলাকায় বুধবার রাত ১২টার পর থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। ঘটনা তদন্তে প্রশাসনের পক্ষ থেকে চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আহ্বায়ক করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কুমিল্লায় পবিত্র কোরআন অবমাননার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার রাতে হাজীগঞ্জ পৌর এলাকায় একটি মিছিল বের করা হয়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে মিছিলকারীদের সংঘর্ষ শুরু হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি ছোড়ে। হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার লক্ষ্মীনারায়ণ জিউর আখড়া (ত্রিনয়নী), দি বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠ মন্দির, পৌর মহাশ্মশান, জমিদার বাড়িসহ কয়েকটি পূজামণ্ডপে হামলার ঘটনা ঘটে।


poisha bazar

ads
ads