নারী-শিশু বান্ধব জেলা গড়তে চান এক ঘণ্টার ডিসি জান্নাতুল


  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১৩:৫৫,  আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১৬:২৪

ঝালকাঠি জেলা প্রশাসকের প্রতিকী দায়িত্ব পালন করেছে জান্নাতুল ইসলাম (১৬) নামের এক কিশোরী। ঘোষণা দিয়েছে নারী ও শিশু বান্ধব জেলা গড়ার। বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলীর কাছ থেকে এক ঘণ্টার জন্য দায়িত্ব গ্রহণ করে সে।

জেলা প্রশাসকের অফিসিয়াল কভার ফাইলের মাধ্যমে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন বর্তমান জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী ও দায়িত্ব গ্রহণ করে ন্যাশনাল চিলড্রেনস টাস্কফোর্স (এনসিটিএফ) ঝালকাঠি জেলা শাখার চারবার নির্বাচিত পার্লামেন্টারিয়ান, সরকারী হরচন্দ্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী জান্নাতুল ইসলাম। সে পশ্চিম চাঁদকাঠি টিঅ্যান্ডটি সড়কের ব্যবসায়ী সরোয়ার হোসেনের দুই ছেলেমেয়ের মধ্যে সর্বকণিষ্ঠা।

এক ঘণ্টার প্রতিকী জেলা প্রশাসকের দায়িত্ব পালনকালে জান্নাতুল ইসলাম বলে, ‘আমি একজন কিশোরী হয়েও ঝালকাঠি জেলা প্রশাসকের দায়িত্ব পালন করতে পেরে নিজেকে ধন্য ও গর্বিত মনে করছি। এতে আমি আরও আত্মবিশ্বাসী এবং নিজের স্বপ্নপূরণে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়েছি।

বর্তমানে ঝালকাঠি জেলার অবকাঠামো, পরিবেশ ও বিনোদন এবং সৌন্দর্যবর্ধণে ব্যাপক কাজ চলমান। তবে নারী ও শিশুদের জন্য নিরাপদ এবং যৌন হয়রানি বা নির্যাতন এবং বৈষম্যহীন শ্রেষ্ঠ জেলা হিসেবে গড়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে সে।

জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী বলেন, নারীদের বা আমাদের কন্যাদের একটু বেশি সুযোগ দিলে তারা অনেক কিছুই করতে পারে। তাদের সুযোগ দেওয়া প্রয়োজন। আজ আমার খুবই ভালো লাগছে। কিশোরী ডিসির চেয়ারে বসে তার অবস্থান থেকে বক্তব্য দিচ্ছে। এ বয়সে আমরা ঠিকমতো কথাও বলতে পারতাম না।  সে ঝালকাঠি জেলাকে নারী ও শিশু বান্ধব জেলা হিসেবে গড়ার প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেছে। আমরা আমাদের কর্মপরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করবো এবং বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেবো।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. কামাল হোসেন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবেকুন্নাহার, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) আহমেদ হাছান, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজবীর হোসেন, এনসিটিএফ ডিস্ট্রিক্ট ভলান্টিয়ার উম্মে আয়মন জ্যোতি, নয়ন তালূকদার।

গার্লস টেকওভার আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের একটি বৈশ্বিক কার্যক্রম। কন্যা শিশুরা সমান সুযোগ এবং সমঅধিকার পেলে, বদলে দিতে পারে তাদের নিজের জীবন। তাদের আশপাশের সমাজ এবং সমাজের মানুষদের এমন বিশ্বাস থেকেই গার্লস টেকওভার কর্মসূচির উদ্যোগ গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন করে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল। এ কর্মসূচির মাধ্যমে একজন কিশোরী, কন্যাশিশু অথবা তরুণীকে নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করা হয়। যাতে তার আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং নিজের স্বপ্ন পূরণে সে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়।


poisha bazar

ads
ads