আজ থেকে আজানের সুর শোনা যাবে সাভারের দৃষ্টিনন্দন মসজিদ থেকে


  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১০ জুন ২০২১, ১৫:২১

মুজিববর্ষ উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন স্থানে ৫৬০টি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মাণ করছে সরকার। সাভার সহ সারাদেশের ৫০টি মসজিদ একযোগে উদ্বোধন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডের নিকট, গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি এ মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মডেল মসজিদটির ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ফারুক হাসান তুহিন বলেন, সাভারের এ মসজিদে একসঙ্গে ১৫ শতাধিক মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। নারীদের জন্য রয়েছে আলাদা ওযু ও নামাজের স্থান। এছাড়াও রয়েছে অটিজম কর্নার ও খাবারের ব্যবস্থাসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা। নিরবিচ্ছন্ন বিদ্যুতের জন্য রয়েছে ৩০ কেভি জেনারেটর ও সোলার সিস্টেম।

তিনি আরও বলেন, আজ যোহরের ওয়াক্ত থেকে নবনির্মিত এ মসজিদে নিয়মিত নামাজ আদায় করবেন মুসল্লীরা। যোহরের আজানই হবে এ মসজিদের প্রথম আজান।

গণপূর্ত অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, নকশা অনুযায়ী তিন ক্যাটাগরিতে জেলা পর্যায়ে চার তলা বিশিষ্ট মসজিদ এ-ক্যাটাগরি, উপজেলা পর্যায়ে তিন তলা বিশিষ্ট মসজিদ বি-ক্যাটাগরি এবং উপকূলীয় এলাকায় তিন তলা বিশিষ্ট সি-ক্যাটাগরির মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে। এসব মসজিদের মধ্যে জেলা পর্যায়ে হচ্ছে ৬৯টি, উপজেলা পর্যায়ে ৪৭৫টি এবং উপকূলীয় অঞ্চলে ১৬টি। এ-ক্যাটাগরির মসজিদের আয়তন প্রায় ৪০ হাজার বর্গফুট, বি ও সি ক্যাটাগরি আয়তন প্রায় ৩০ হাজার বর্গফুট।

একযোগে উদ্বোধন হওয়া ৫০ টি মসজিদের অবস্থান হলঃ ঢাকার সাভার, ফরিদপুরের মধুখালি, কাঁথা, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া, কুলিয়ারচর, মানিকগঞ্জের শিবালয়, রাজবাড়ী সদর, শরীয়তপুর সদর, গোসাইরহাট, বগুড়ার সারিয়াকান্দি, শেরপুর, কাহালু, নওগাঁর কাপাকের, পোরশা, পাবনার চাটমোহর, সিরাজগঞ্জ সদর, রাজশাহীর গোদাগাড়ী, পবা, দিনাজপুরের খানসামা, বিরল, লালমনিরহাটের পাটগ্রাম, পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ, রংপুর সদর, পীরগঞ্জ সদর, বদরগঞ্জ, ঠাকুরগাঁওয়ের হরিদপুর, জামালপুরের ইসলামপুর সদর, ময়মনসিংহের গফরগাঁও, তারাকান্দা, ভোলা সদর, ঝালকাঠির রাজাপুর, ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর, নবীনগর, চা্ঁদপুরের কচুয়া, চট্টগ্রাম জেলা সদর, লোহাগড়া, মিরসরাই, স্বন্দীপ, কুমিল্লার দাউদকান্দি, খাগড়াছড়ির পানছড়ি, নোয়াখালীর সুবর্ণচর, খুলনা জেলা সদর, চুয়াডাঙা জেলা সদর, কুষ্টিয়া জেলা সদর এবং সিলেটের দক্ষিণ সুরমা।

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ৫৬০টি মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ৮ হাজার ৭২২ কোটি টাকা। আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধাসহ এসব মসজিদে থাকছে ইসলামিক সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স পাঠাগার, গবেষণা কেন্দ্র, ইসলামিক বই বিক্রয়কেন্দ্র, পবিত্র হেফজ বিভাগ, শিশুশিক্ষা।

এছাড়া অতিথিশালা, পর্যটকদের আবাসন, শবদেহ গোছলের ব্যবস্থা, হজযাত্রীদের নিবন্ধন ও প্রশিক্ষণ, ইমামদের প্রশিক্ষণ, গণশিক্ষা কেন্দ্র ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রসহ একটি পূর্ণাঙ্গ কমপ্লেক্স হবে একেকটি মসজিদ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাভারের সাংসদ এবং দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ এনামুর রহমান এনাম, ঢাকা জেলা প্রশাসক মোঃ সহিদুল ইসলাম, ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার, সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজীব, সাভার পৌর মেয়র আব্দুল গণি, সাভারের ধামসোনা ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামসহ আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীবৃন্দ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে নামফলক উন্মোচন করেন ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ এনাম।

এ সময় তিনি বলেন, মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী ৫৬০টি মডেল মসজিদের মধ্যে ৫০টি উদ্বোধন করলেন। বাকিগুলো মসজিদের কাজও দ্রুত সম্পন্ন হবে। এমন উপহারে ধর্মপ্রাণ মুসল্লীরা অত্যন্ত আনন্দিত। এত সুন্দর মসজিদ মুসল্লীদের নামাজ আদায়ে আরো উদ্বুদ্ধ করবে।

মানবকণ্ঠ/এমএ


poisha bazar

ads
ads