বীরগঞ্জে জামানত হারালো আওয়ামী লীগ প্রার্থী


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ২০:১৬,  আপডেট: ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ২০:১৯

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. মোশারফ হোসেন বাবুলের নিকট জামানত হারালো আওয়ামী লীগের প্রার্থী। তিনি বীরগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় তাকে সভাপতির পদসহ সব পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

মোশারফ হোসেন বাবুল মোবাইল প্রতীক নিয়ে ৩ হাজার ৯৯৩ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ৪৭ ভোটে পরাজিত হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৩ হাজার ৯৪৬ ভোট।

তিনি এর আগেও উপ-নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মেয়র নির্বাচিত হন।

সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. নুর-ই আলম বেসরকারিভাবে এ ফলাফল নিশ্চিত করেন।

এদিকে শৈতপ্রবাহ উপেক্ষা করে করোনা ঝুঁকির মধ্যেও উৎসবমুখর পরিবেশে শেষ হয় পৌরসভার দ্বিতীয় ধাপের ভোট। ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ও ব্যালট দুই পদ্ধতিতেই গ্রহণ করা এই ভোটে ভোটার উপস্থিতি ছিল লক্ষনীয়। বেশকিছু জায়গায় বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষ, ভোটার ও এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়ার মতো ঘটণা ঘটলেও সার্বিকভাবে এই দফার ভোট শান্তিপূর্ণভাবেই সম্পন্ন হয়।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, দ্বিতীয় ধাপে ৬১টি পৌরসভায় ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভার একজন প্রার্থী মৃত্যুবরণ করায় ভোট স্থগিত করা হয়। আর ৬০টি পৌরসভার ৫৬টিতে মেয়র পদে ভোট হয়। নারায়ণগঞ্জের তারাব, সিরাজগঞ্জের কাজিপুর, পাবনার ভাঙুরা ও পিরোজপুরে মোট চারটি পৌরসভায় ভোটের আগেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন। তাই বাকি ৫২টিতে মেয়র পদে ভোট হয়।

গত ২ ডিসেম্বর দ্বিতীয় ধাপের ভোটের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ২৯টি পৌরসভায় ইভিএমে এবং বাকি ৩১টি পৌরসভায় কাগজের ব্যালটে ভোট হয়। এই ধাপের নির্বাচনে মেয়র পদে ২১১ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে দুই হাজার ২৩২ জন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৭২৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।






ads
ads