ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করে কমিটি হয়েছে: মেয়র জাহাঙ্গীর

- ফাইল ছবি

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:৩৮

গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম শনিবার দুপুরে ফেসবুক লাইভে এসে নবগঠিত ওয়ার্ড কমিটির আনন্দ মিছিলের কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা দিয়ে বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বটবৃক্ষ, এই বটবৃক্ষের ছায়ায় থাকুন ইনশাআল্লাহ ভাল থাকবেন। আওয়ামীলীগ সব সময় দলের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করে আসছে। কারো উস্কানিতে দলের ত্যাগী নেতাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে কোন প্রকার লাভ হবে না। আন্দোলন করে নিজেদের ক্ষতি নিজেরা ডেকে আনবেন না।

তিনি বলেন, গাজীপুর মহানগরীর ৫৭টি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটির ত্যাগী নেতাদের বিরুদ্ধে যারা আন্দোলন করছেন তাদেরকে জামায়াত-বিএনপি ইন্ধন যোগাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, আন্দোলন করে কোন প্রকার লাভ হবে না। তৃণমূল থেকে যাচাই বাচাই করে আওয়ামী লীগের প্রকৃত ত্যাগী নেতাদের মুল্যায়ন করে কমিটি গঠন করা হয়েছে।

‌‘আওয়ামী লীগ দেশের উন্নয়নের জন্য কাজ করে। জনগণের জন্য কাজ করে। উন্নয়ন কাজ বাধাগ্রস্ত করতে দলে কিছু অনুপ্রবেশকারী জামায়াত-বিএনপির উস্কানিতে এই কমিটির বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে।’

মেয়র আরো বলেন, আওয়ামী লীগ চলে আওয়ামী লীগের সংবিধান অনুযায়ী, আওয়ামী লীগ কারো কথায় চলে না।

যারা দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন তাদেরকে উদ্দেশ্য তিনি বলেন, কারো উস্কানিতে দলের বিরুদ্ধে কাজ করবেন না।

অপরদিকে পদবঞ্চিতদের শান্তনা জানিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। এতে তিনি পদ বঞ্চিতদের হতাশ না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘দল সরকারে থাকলে, প্রার্থীতে প্রতিযোগীদের সংখ্যা বেশি হয়। পদ পাওয়ার জন্য সবাইকে যোগ্য মনে হয়। চুলচেরা বিশ্লেষণে কয়েকজন পদ পায়। হতাশ হওয়ার কিছুই নেই, আপনার জন্য আগামী দিনগুলো অপেক্ষা করছে।’

উল্লেখ্য, গত রোববার বিকালে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের ৩৯টি ওর্য়াড কমিটি ঘোষণার পর থেকে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা সোমবার থেকে গাজীপুর ও টঙ্গীতে মহাসড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ মিছিলসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছিল। অপরদিকে ঘোষিত ওয়ার্ড কমিটির নেতাকর্মীরা পদ পেয়ে পৃথক পৃথকভাবে নিজ নিজ এলাকায় আনন্দ মিছিল করেছে। শনিবার বিকালে মহানগর আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয়ভাবে আনন্দ মিছিলের ঘোষণা দিলে প্রতিপক্ষ একই সময়ে তাদের বিক্ষোভ মিছিল ও মহাসড়ক অবরোধের কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেয়। এতে করে টঙ্গী ও গাজীপুরে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে দলীয় হাই কমান্ড ও প্রসাশনের হস্তক্ষেপে উভয়ের কর্মসূচি স্থগিত করা হয়।

মানবকণ্ঠ/এসকে





ads







Loading...