হবিগঞ্জে বিয়ের আশ্বাসে কিশোরীকে ধর্ষণ


poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৭:২৮

হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে বিয়ের আশ্বাসে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সুজন আহমেদ নামে এক যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা।

আটককৃত সুজন আহমেদ আজমিরীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের বিরাট উজানপাড়া (আসাম পাড়ার) গ্রামের আবু বক্কর মিয়ার ছেলে।

পুলিশ জানায়, উপজেলার বিরাট উজানপাড়া (আসামপাড়া) গ্রামের আবু বক্কর মিয়ার একমাত্র ছেলে সুজন আহমেদ অনেকটা লম্পট প্রকৃতির। বিভিন্ন সময় তার বিরুদ্ধে মেয়েদের উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ রয়েছে। প্রায় এক বছর আগে পার্শ্ববর্তী সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার শাল্লা গ্রামে নিজের পছন্দে বিয়ে করেন সুজন। সুজনের স্ত্রী বর্তমানে ৮ মাসের অন্তসত্বা বলে জানা গেছে।

এদিকে, কয়েক মাস আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আজমিরীগঞ্জ উপজেলার শিবপাশা ইউনিয়নের সিকন্দরপুর গ্রামের জনৈক ব্যক্তির কিশোরী মেয়ের সাথে পরিচয় হয় সুজনের। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। বৃহস্পতিবার বিকালে সুজন তার বন্ধু মুসলিম মিয়াকে সাথে নিয়ে ওই কিশোরীর বাড়িতে যায়। এ সময় বাড়িতে কেউ না থাকার সুবাদে বিয়ের আশ্বাসে সুজন তাকে ধর্ষণ করে।

স্থানীয় লোকজন বিষয়টি আঁচ করতে পেরে হাতে নাতে সুজন আহমেদকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। সন্ধ্যায় শিবপাশা পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ আশরাফ আলী ঘটনাস্থলে পৌঁছে সুজনকে আটক করে আজমিরীগঞ্জ থানায় নিয়ে যান। পরে রাত ১০ টার দিকে ওই কিশোরী বাদি হয়ে সুজন আহমেদ ও তার বন্ধু মুসলিম মিয়ার নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও কয়েক জনের বিরুদ্ধে আজমিরীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

আজমিরীগঞ্জ থানার (ওসি) মোশারফ হোসেন তরফদার জানান, ‘ধর্ষণের অভিযোগ এনে কিশোরী বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেছে। এছাড়া অভিযুক্ত সুজনকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে আটককৃত যুবকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে এবং ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য কিশোরীকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এসকে





ads