ভারতীয় পেঁয়াজ আসা বন্ধ, বিপাকে আমদানিকারকরা

- ফাইল ছবি

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫:৩৯


ভারতের হঠকারী সিদ্ধান্তের কারণে সোমবার থেকে হিলি স্থলবন্দরসহ দেশের সকল স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। পূর্ব নির্দেশনা ছাড়া ভারতীয় কর্তৃপক্ষ পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয়ায় বিপাকে পড়েছে দেশের পেঁয়াজ আমদানিকারকরা।

এদিকে দেশে পেঁয়াজ আমাদানি বন্ধের খবরে আবারো অস্থির হয়ে উঠেছে বন্দরের পেঁয়াজের মোকাম। ৩৫ টাকা কেজি দরের পেঁয়াজ এখন বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকায়। এ অবস্থায় বাজার মনিটরিংয়ের দাবি আমদানিকারকদের।

ভারতে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ার অযুহাতে গত সোমবার থেকে কোন রকম পূর্ব নির্দেশনা ছাড়াই হিলি স্থলবন্দরসহ দেশের সকল স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত। ভারত সরকারের এই হঠকারি সিদ্ধান্তে বিপাকে পড়েছে বন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারকরা। ঋণপত্র খুলেও পেঁয়াজ না দেয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন তারা। ভারতের এই হঠকারী এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি তাদের।

এদিকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধের খবরে হিলি স্থলবন্দরের পাইকারী বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে দ্বিগুন হয়েছে। ৩৫ টাকা কেজি দরের পেঁয়াজ এখন বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে।

হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়া বিভিন্ন অঞ্চল থেকে হিলি স্থলবন্দরে পেঁয়াজ কিনতে আসা ব্যপারিরাও পড়েছে চরম বিপাকে। অনেককে অর্থাভাবে পেঁয়াজ না কিনে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে।

এদিকে বন্দরের ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারত সরকার পেয়াজ রফতানি বন্ধ করলেও মিশর, তুরস্ক, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশ থেকে পেঁয়াজ আমানির ঋণপত্র ইতিমধ্যে খোলা হয়েছে।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ কিনতে আসা আফজাল হোসেন ব্যাপারী জানান, গত সোমবারে ৩৫ থেকে ৪০ টাকায় পেঁয়াজ কিনেছি। ভারত সরকার পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয়ায় প্রকারভেদে ৬৫ টাকা থেকে ৭০ টাকায় পেঁয়াজ কিনলাম। এখন জানি না পেঁয়াজ নিয়ে গিয়ে লোকসান হয় না-কি।

পেঁয়াজ আমদানিকারক সাইফুল ইসলাম জানান, ভারত সরকার পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই হঠাৎ করে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয়ায় আমরা লোকসানের মুখে পড়েছি। যেসব পেঁয়াজ আমদানির জন্য আমরা এলসি জমা দিয়েছি সেই পেঁয়াজগুলো যেন আমদানি করতে পারি তার ব্যবস্থা যেন সরকার গ্রহণ করেন।

হিলি স্থলবন্দর আমদানি ও রফতানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশিদ হারুন জানান, আমরা ভারতে থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি করছিলাম। কিন্তু ভারতের অভ্যন্তরে পেঁয়াজের দাম উর্ধগতির বাহানায় পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে। প্রায় ১০ হাজার মেট্রিকটন পেঁয়াজের এলসি জমা দেয়া হয়েছে। এগুলো আমদানি করতে না পারলে আমদানিকারক ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়বে।

মানবকণ্ঠ/এসকে





ads







Loading...