সংস্কারের অভাবে ডিটি রোডের বেহাল দশা

মানবকণ্ঠ
- ছবি : প্রতিবেদক

poisha bazar

  • এম এম খালেদ, চট্টগ্রাম
  • ১৩ জুলাই ২০২০, ১৫:১৩

চট্টগ্রাম শহরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ডিটি রোড। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের যাতায়তের পাশাপাশি বন্দরের মালামাল পরিবহন ছাড়াও কদমতলী এবং শুভপুর বাস স্টেশনের গাড়িগুলো চলাচলের অন্যতম ভরসা দেওয়ানহাট টু অলংকার পর্যন্ত ৫কিলোমিটারের এই ডিটি রোড।

নতুন সড়কে চলাচলের এক পযার্য়ে সড়কের স্থায়িত্ব হারাতে, পরে সংশ্লিষ্ট রা সংস্কারের মাধ্যমে সড়কের অবস্থান পুনরায় ফিরিয়ে আনে। তবে সেক্ষেত্রে দেওয়ানহাট থেকে অলংকার (ডিটি রোড) পর্যন্ত ৫ কিলোমিটারের এই সড়কে, সঠিক নজরদারি এবং সংস্কারের গড়িমসির কারণে বেহাল অবস্থায় পরিণত হয়েছে।

সরেনজমিনে দেখা যায় যে, ১২ নং ওয়ার্ডে রুপসা বেকারির সামনে, কাঁচা রাস্তা থেকে আবুল বিড়ির মোড়, সিটি ব্যাংক এর সামনে থেকে লাকি হোটেল এর মোড়, (১২ নং ওয়ার্ড কমিশনার অফিস এর সামনে), হাজী ক্যাম্প থেকে হাক্কানি পেট্রোল পাম্প এর সামনে, যোলা পাড়া থেকে অলংকার মোড় পর্যন্ত সড়কটি অতিরিক্ত ভাঙা এবং গর্ত। যা এলাকার জনসাধারণের জন্য ভোগান্তির পাশপাশি প্রতিদিন দূর্ঘটনা ঘটেই যাচ্ছে।

দেওয়ানহাট এলাকার বাসিন্দা সাফায়েত মানবকণ্ঠকে বলেন, আমি এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন অফিসে যাতায়াত করি। শহরের অন্যান্য সড়কে নিয়মিত সংস্কারের কাজ চললেও ডিটি রোডে হয় না। এই সড়ক জুড়ে চলাচল করে বন্দরের বড় বড় লরি। এই ধরনের ভারি লরি চলার কারণে রাস্তার উপর বাড়তি চাপ তৈরি করে, যা পরবর্তীতে যান চলাচলে ভোগান্তি সৃষ্টি করে।

এ ব্যাপারে ১২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা জামাল উদ্দিন মানবকণ্ঠকে বলেন, রাস্তার এমন অবস্থার জন্য বড় বড় মালবাহী ট্রাক/লরিগুলো দায়ি। এবং এরই সাথে ওয়াসার কর্মীরা তাদের কাজ করার পর তা পুনরায় সংস্কার না করার কারণে সড়কটির অবস্থা এখন আরো খারাপ হয়ে যায়।

অত্র এলাকার আরেক বাসিন্দা নূরজাহান বলেন, অনেকদিন যাবৎ রাস্তাটির এ অবস্থা। কিন্তু সড়কটি সংস্কারের কাজে এখনো কাউকে এগিয়ে আসতে দেখে যায়নি।রাস্তাটির বর্তমান অবস্থা খারাপ। অল্প বৃষ্টিতে সড়কটি কাদা যুক্ত হয়ে যায়। যা জনসাধারণের চলাচলে সমস্যা সৃষ্টি করছে।

এ বিষয়ে ১২ নং দক্ষিণ পাহাড়তলি ওয়ার্ডের কাউন্সিল সাবের সওদাগর বলেন, রাস্তার দুই পাশে নালার কাজ এবং রাস্তা মাঝখানে আইলেনের কাজ চলার কারণে রাস্তা সংস্কারের কাজ স্থগিত রয়েছে। তাছাড়াও নালার কাজ প্রায় শেষের পথে। আমি নিজে তা পর্যবেক্ষণ করছি তবে আগামী ২০/২৫ দিনের মধ্যে আশা করি নালা আর আইলেনের কাজ শেষ হবে। তারপরেই আমরা রাস্তা ডালায়ের কাজ শুরু করে দিবো এবং নতুন ভাবে সংস্কার করে এলাকাবাসীর এই দুর্দশা থেকে মুক্ত করবো।

মানবকণ্ঠ/এইচকে

 





ads






Loading...