করোনা ও নদী ভাঙনে বিপর্যস্ত খুলনার দুই উপজেলার মানুষ

করোনা ও নদী ভাঙনে বিপর্যস্ত খুলনার দুই উপজেলার মানুষ

  • ব্যুরো অফিস, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১২ এপ্রিল ২০২০, ১৪:২৮

একদিকে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস আর অন্য দিকে কয়েকটি নদীতে ভাঙন। দুই প্রাকৃতিক দুর্যোগে চরম বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে খুলনার উপকূলীয় দুই উপজেলা কয়রা ও পাইকগাছার জনগণ।

ভাইরাসের কারণে ঘর থেকে বের হতে না পারা মানুষগুলো এখন ঘর হারা হওয়ার ভয়ে ভীত হয়ে পড়েছেন। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে এই দুই উপজেলায় কম করে হলেও ৫-৬টি স্থানে নদী ভাঙন হয়েছে। লোনা পানিতে তলিয়ে গেছে ফসলি জমি। যা মরার ওপর খাড়ার ঘা হয়ে দেখা দিয়েছে।

সূত্র জানায়, গত সপ্তাহে কয়রা উপজেলার বেদকাশী উপজেলায় কপোতাক্ষ নদে ভাঙনের সৃষ্টি হয়। জোয়ারের প্রবল পানির চাপে বেড়িবাঁধ ভেঙো তলিয়ে যায় ফসলি জমি ও মাছের ঘের। আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এলাকাবাসী। এরপর আবারও কয়রার মহেশ্বরিপুর এলাকায় নদী ভাঙনের সৃষ্টি হয়।

গত ১০ এপ্রিল পাইকগাছার দেলুটি ইউনিয়নের ২২ নং পোল্ডারের কালিনগর এলাকায় ভয়াবহ নদী ভাঙন দেখা দেয়। একদিকে করোনা ভাইরাসে সব কিছু অচল হয়ে পড়েছে, অন্যদিকে নদী ভাঙনে চরম বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে দুই উপজেলার বাসিন্দারা।

তবে এলাকাবাসীর এই চরম দুঃসময়ে পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা করে চলেছেন খুলনা-৬ আসনের (কয়রা-পাইকগাছা) সংসদ সদস্য আকতারুজ্জামান বাবু। দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে ছুটে চলেছেন দুই উপজেলায়।

এমপি বাবু বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে সরকার দুই উপজেলার জন্য ৫০ মেট্রিক টন করে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছে। পাশাপাশি ব্যক্তিগত ও সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রায় সাড়ে ৫ হাজারের বেশি প্যাকেট খাদ্য সামগ্রী জনগণের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। এই দুই উপজেলার মানুষের অধিকাংশই সুন্দরবন ও নদ নদীর উপর নির্ভরশীল। কিন্তু তাদের জীবিকার পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম দুর্বিপাকে পড়েছেন।

তিনি বলেন, ৫-৬ ভাঙন এলাকা এলাকাবাসীর সহায়তায় মেরামত করা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/আরবি



poisha bazar

ads
ads