কলাপাড়ায় করোনা ঝুঁকি এড়াতে রাতভর থানকুনি পাতা গুজব!

মানবকণ্ঠ
থানকুনি পাতা - ছবি : প্রতিবেদক

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১৮ মার্চ ২০২০, ২০:৩০

'পীর সাহেবের স্বপ্নে পাওয়া তথ্যে প্রাপ্ত, থানকুনি পাতা খেলে মরণঘাতি করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি মিলবে'- এমন গুজবে কান দিয়ে পটুয়াখালীর কলাপাড়া পৌরশহরে থানকুনি পাতা সংগ্রহ ও খেতে রাতভর ছোটাছুটি করেছে সাধারণ মানুষ। হিড়িক পড়েছে থানকুনি পাতা খাওয়ার। এমনই এক গুজবে রাতের ঘুম হারাম হয়েছে কলাপাড়া পৌরবাসীর।

একজন কথিত পীর সাহেব স্বপ্ন দেখেছেন- এমন গুজবের ওপর ভিত্তি করে তথ্য রটে যায়, দু’রাকাত নামাজ পড়ে থানকুনি পাতা খেলে করোনাভাইরাস আর সংক্রমিত করতে পারবে না। মিলবে মুক্তি। এ গুজব ঠিক কে, কীভাবে শহরে প্রথম ছড়িয়েছে তা জানা যায়নি।

তবে এই গুজবে সাড়া দিয়ে কলাপাড়া ও এর পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন অ লে রাতের আঁধারে থানকুনি পাতা সংগ্রহে নেমেছেন বহু মানুষ। ইতোমধ্যে অনেকে সে পাতা চিবিয়ে খেয়েছেনও। তাদের বিশ্বাস, পীর সাহেবকে স্বপ্নে বলে দেয়া এই থানকুনি পাতাই করোনা ভাইরাসের উত্তম প্রতিষেধক। এর কোন ভিত্তি নেই বলে জানিয়েছেন কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. চিন্ময় হাওলাদার। তিনি বলেন, থানকুনি পাতার ঔষধী গুণাবলি থাকতে পারে। তবে এর সাথে করোনাভাইরাস এর কোনো সম্পর্ক নেই।

জানা গেছে, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টা থেকে পৌর শহরে শুরু হয় এই গুজব। এ নিয়ে অনেকে ফেসবুকে পোস্টও দিচ্ছেন। কেউ কেউ থানকুনি পাতা সংগ্রহ করতে পেরেছেন জানিয়ে ছবিও পোস্ট করেছেন। কেউ কেউ আবার বন্ধু বান্ধব ও স্বজনদের ফোন করে জরুরি ভিত্তিতে থানকুনি পাতা সংগ্রহের তাগিদ দিচ্ছেন। এনিয়েই রাতভর নির্ঘুম কাটিয়েছে পৌরবাসী।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, একজন পীর স্বপ্নে দেখেছেন যে, তিনটি থানকুনি পাতা আর এক গ্লাস পানি খেলে করোনাভাইরাস ছুঁতেও পারবে না। আর এই রাতের মধ্যেই পাতা তিনটি খেতে হবে। তবে ফজরের আজানের পূর্বেই পাতা তিনটি খেতে হবে।

কলাপাড়া চৌকি আদালতে প্রাকটিসরত আইনজীবী নাসির উদ্দীন সোহাগ বলেন, তার মা তাকে প্রত্যুষে পাশের বাসা থেকে সরবরাহকৃত থানকুনি পাতা খেতে বলেছিলেন। সাথে সাথে দু’রাকাত নফল নামাজ পড়ার জন্য বলেছিলেন।

একই আদালতে প্রাকটিসরত অপর আইনজীবী আবুল হোসেন বলেন, গভীর রাতে পাশের বাসার ভাবী কলিংবেল বাজিয়ে তাঁর ভবনের কলাপসিবল গেট খুলতে বাধ্য করে। এরপর কিছু থানকুনি পাতা দিয়ে খেতে অনুরোধ করে।

ধানখালী ডিগ্রী কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষক মো: আনোয়ার হোসেন তার ফেসবুক ষ্ট্যাটাসে বলেন,'আমার স্ত্রী রাত দুপুরে আমাকে বাঁচাতে থানকুনি পাতা খাইয়েছে। আমি স্ত্রীর অনুরোধ ফেলতে পারিনি।'

কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. চিন্ময় হাওলাদার বলেন, ৩টি থানকুনিপাতা খেলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবে না, আমি একজন চিকিৎসক হিসেবে এমন কথা শুনেনি বা চিকিৎসা বিজ্ঞানে পাইনি। তবে কারো পেটে সমস্যা থাকলে তার জন্য থানকুনি পাতা উপকারী।

মানবকণ্ঠ/এইচকে/গোফরান





ads







Loading...