মসজিদের গা ঘেঁষে মূর্তি সাদৃশ্য ডাস্টবিন!

মসজিদের গা ঘেঁষে মূর্তি সাদৃশ্য ডাস্টবিন!

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১৩ মার্চ ২০২০, ১৮:০৯

জামালপুরের সরিষাবাড়ী পৌরসভায় মসজিদ সংলগ্ন সড়কে হনুমানের মূর্তি সাদৃশ্য ডাস্টবিন স্থাপন করেছেন মেয়র রুকুনুজ্জামান রোকন। এতে পৌরবাসীর মধ্যে তীব্র সমালোচনার ঝড় বইছে। শুক্রবার আরডিএম মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন পুরাতন জামে মসজিদে জুমার নামাজের সময় বিষয়টি নিয়ে মুসুল্লিরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ সময় মূর্তিটি অপসারণের জন্য মেয়রের প্রতি চাপ দিতে স্থানীয়দের অনুরোধ জানান ইমাম।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সরিষাবাড়ী পৌরসভার উদ্যোগে গত ৬ মার্চ বিভিন্ন স্থানে হনুমানের মূর্তি সাদৃশ্য কয়েকটি ডাস্টবিন স্থাপন করেন মেয়র। সরিষাবাড়ী আরডিএম মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় গেটেও একটি ডাস্টবিন বসানো হয়। যার পাশেই পুরাতন জামে মসজিদ। মুসল্লিরা নামাজ পড়তে মসজিদে ঢোকার সময়ই মূর্তিটি চোখে পড়ে। এতে ধর্মপ্রাণ মুসুল্লিরা বিব্রত হয়ে অনেকেই চোখ ঢেকে মসজিদে যান। কাউকে কাউকে মসজিদে গিয়ে পুনরায় অজু করতে দেখা যায়।

এ নিয়ে শুক্রবার জুমা নামাজের পূর্ব মুহূর্তে মসজিদের মুসল্লিরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। মসজিদের পেশ ইমাম শফিকুল ইসলাম খুতবায় মূর্তির ডাস্টবিনটি অপসারণের জন্য মুসল্লিদের হাত তুলে প্রতিশ্রুতি আদায় করেন।

ইমাম শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘মসজিদের পাশে মূর্তির মত ডাস্টবিন থাকায় মুসল্লিরা বিব্রত হচ্ছেন। ইসলাম ধর্মমতে মূর্তি হারাম হলেও, একটি মুসলিম শহরে মসজিদে পাশে মূর্তি বসানো ঠিক হয়নি। এটা শিগগিরই অপসারণ করতে হবে।’ বিষয়টি নিয়ে তিনি স্থানীয়দের মেয়রকে চাপ প্রয়োগের কথা বললে সবাই হাত তুলে সম্মতি জানান।

পৌরসভা সূত্র জানায়, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় পৌরসভায় ৫০টি ‘মাঙ্কি ডাস্টবিন’ বসানোর পরিকল্পনা নেয়া হয়। প্রতিটি ডাস্টবিন বাবদ ৩৯ হাজার টাকা করে মোট প্রায় ১৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। ডাস্টবিনগুলো সরকারি টাকায় বসানো হলেও প্রতিটির গায়ে লেখা হয়েছে ‘সৌঃ মেয়র রোকন’। যা নীতিমালা পরিপন্থী।

পৌরবাসীদের মতে, যেসব ডাস্টবিন বসানো হয়েছে তা উন্নত শহর বা শপিংমলের জন্য প্রযোজ্য। সরিষাবাড়ী পৌরসভার অধিকাংশ রাস্তাঘাটই খানাখন্দ; সামান্য বৃষ্টিতে যেখানে হাটুপানি জমে, সে মফস্বল শহরে এসব ডাস্টবিন নাগরিকদের সাথে তামাশা।

এ ব্যাপারে পৌরমেয়র রুকুনুজ্জামান রোকন বলেন, ‘পৌরসভাকে পরিচ্ছন্ন রাখতে ৫০টি ডাস্টবিন স্থাপন করা হয়েছে। তবে ‘মাঙ্কি ডাস্টবিন’ বিতর্ক মনে হলে সেগুলো ভেঙে অন্য মডেলে তৈরি করবো।

মানবকণ্ঠ/আরবি





ads







Loading...