লাউগাছের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা!

লাউগাছের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা!

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১২ মার্চ ২০২০, ২১:২৩

কুমিল্লা বুড়িচং উপজেলার আবিদপুর গ্রামে জমি থেকে লাউ পেরে নিতে বাধা দেওয়ায় প্রতিপক্ষ পুরো ফলন্ত লাউক্ষেত কেটে সাবার করে দিয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার গভীর রাতে উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের আবিদপুর গ্রামে। এতে প্রায় লাউ ক্ষেতের মালিকের ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে বুড়িচং থানার দেবপুর ফাঁড়ি পুলিশের এসআই নন্দন চন্দ্র সরকার সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায় জেলার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের আবিদপুর গ্রামের আলী আশ্রাফের ভাতিজা মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে শামসুল হক নাহিদ ২৪ শতক জমিতে এ বছর লাউ চাষ করেন।

বর্তমানে পুরো জমিতে লাউয়ের বাম্পার ফলন হয়। এ সুযোগে স্থানীয় সিদ্দিকুর রহমানের বাড়ির জয়নাল আবেদীন এর ছেলে মামুন মিয়া (২৫) বিভিন্ন সময় লাউয়ের গাছ থেকে লাউ পেরে নিয়ে যায়। বেশ কয়েকদিন লাউ পেরে নিয়ে যাওয়ার পর হাজী আলী আশ্রাফ ও তার ভাতিজা জমির মালিক শামসুল হক নাহিদ এ বিষয়ে মামুন মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তাদের ওপর সে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে।

এরপর শামসুল হক নাহিদ ও তার চাচা হাজী আলী আশ্রাফকে পুরো জমির ক্ষেত কেটে ফেলার এবং তারা দুইজনকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি ধমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। এ ঘটনার জের ধরে বুধবার দিবাগত গভীর রাতে মামুনসহ চার-পাঁচজন লাউক্ষেতে প্রবেশ করে কুপিয়ে সমস্ত লাউগাছ কেটে ফেলে।

এই ঘটনার খবর পেয়ে হাজী আলী আশ্রাফ ও তার ভাতিজা শামসুল হক নাহিদ জমিতে গিয়ে ঘটনার সত্যতা দেখে। পরে বুড়িচং থানার দেবপুর ফাঁড়ির পুলিশকে জানালে পুলিশ ফাঁড়ির এস আই নন্দন চন্দ্র সরকার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

আলী আশ্রাফ ও তার ভাতিজা নাহিদ অভিযোগ করে বলেন, আমার ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ২ লাখ ৫০ পঞ্চাশ হাজার টাকা হবে। আমার সমস্ত আশা ও স্বপ্ন সন্ত্রাসীরা চুরমার করে দিয়েছে।

এ ব্যাপারে পুলিশ ফাঁড়ির এস আই নন্দন চন্দ্র সরকার জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। অপরাধিদেরকে দ্রুত সময়ের মধ্য আইনের আওতায় আনা হবে এবং পুলিশি অভিযান অব্যহত রয়েছে।

মানবকণ্ঠ/আরবি





ads







Loading...