খুলনায় করোনারোধে প্রস্তুত ১৫৫ শয্যা

খুলনায় করোনারোধে প্রস্তুত ১৫৫ শয্যা

  • ব্যুরো অফিস, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ১০ মার্চ ২০২০, ২০:১৩

করোনাভাইরাস শনাক্ত ও আক্রান্তদের চিকিৎসায় খুলনা বিভাগের সরকারি হাসপাতাল এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে বিশেষ ইউনিট ‘আইসোলেশন ইউনিট’ চালু করা হয়েছে। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ জেলার ১১টি সরকারী হাসপাতালে প্রস্তুত রাখা হয়েছে ১৫৫টি শয্যা। প্রতিটি হাসপাতালের বিশেষ এই ইউনিটে দ্রুত এ সংক্রান্ত রোগীর চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করা হবে বলে জানিয়েছেন খুলনার সিভিল সার্জন। তবে খুলনায় এখনো করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য মেলেনি।

খুলনার স্বাস্থ্য বিভাগীয় সূত্র জানায়, প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই ভালো। সেজন্য জনসাধারণকে যেকোনো সর্দি-কাশি-জ্বর হলেই বিলম্ব না করে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়ার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। করোনাভাইরাস মুক্ত হলেও এ সময় নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ারও আশঙ্কা থাকে। দু’টি রোগেরই বাহন একই ধরনের। তাই কাঁচা রস, অতিথি পাখি, পাখিতে খাওয়া ফল খাওয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে এবং হচ্ছে।

এ ছাড়া আপাতত বিদেশ ভ্রমণ বন্ধ এবং বিদেশ থেকে আসা বিশেষ করে চীনা নাগরিকদের সংস্পর্শে না যাওয়াই ভালো। এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে সচেতনতার বার্তা পৌঁছাতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

খুলনার সিভিল সার্জন সুজাত আহম্মেদ বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেগুলোতে পাঁচ শয্যার ‘আইসোলেশন ইউনিট’ খোলা হয়েছে। প্রত্যেক ইউনিটে আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে এই ইউনিটের প্রধান করে পৃথক টিম গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়াও সার্বিক প্রস্তুতি রয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগের।

খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের (রোগ নিয়ন্ত্রণ) সহকারী পরিচালক ফেরদৌসী আক্তার বলেন, খুলনা বিভাগের সব হাসপাতালে বিশেষ ইউনিট চালুর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যেই অনেক হাসপাতালে ইউনিটটি চালু করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশনায় বিশেষ টিম গঠন করা হয়েছে এবং তারা বিশেষ ইউনিটের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক এ টি এম মঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান কামাল হোসেনকে প্রধান করে পাঁচ শয্যার ‘আইসোলেশন ইউনিট’ খোলা হয়েছে। তবে, খুলনায় এখনো পর্যন্ত করোনাভাইরাস আক্রান্ত কোনো রোগী শনাক্ত হয়নি।

মানবকণ্ঠ/আরবি



poisha bazar

ads
ads