মোংলায় করোনা সন্দেহে ৩ চীনাসহ ৫ মাদক কারবারি হাসপাতালে, আতঙ্কে এলাকাবাসী 

মানবকণ্ঠ
ছবি - প্রতিবেদক

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ০৩ মার্চ ২০২০, ১৫:০০,  আপডেট: ০৩ মার্চ ২০২০, ১৫:২৮

বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার পশুর নদী সংলগ্ন সাইলো এলাকা থেকে রোববার (১ মার্চ) দিবাগত মধ্যরাতে ৩০০ বোতল মদসহ ৩ চীনা নাগরিকসহ ৫ জনকে আটক করেছে কোস্টগার্ড পশ্চিম জোন। আটককৃতদের বাগেরহাট আদালতে প্রেরণ করা হলে, আদালত তাদের জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

কিন্তু সোমবার (২ মার্চ) রাতে বাগেরহাট কারাগার কর্তৃপক্ষ আসামিদের জেলখানার ভিতরে না নিয়ে সতর্কতা অবলম্বনের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। আর এতেই মুহুর্তের মধ্যে বাগেরহাট শহর জুড়ে ছড়িয়ে পরে করোনাভাইরাস আতঙ্ক। এরই সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেসবুক) করোনাভাইরাস নিয়ে নানা পোস্ট এ আতঙ্ক আরও বাড়িয়ে তোলে জনসাধারণের মাঝে।

তবে বাগেরহাট সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে ৩ চীনা নাগরিকসহ হাসপাতালে ভর্তি ৫ জনের কারও মধ্যে করোনাভাইরাসের কোনো লক্ষণ পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে হাসপাতালে অবস্থানরত রোগী, রোগীর স্বজন ও স্থানীয় সকলকে আতংকিত না হয়ে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালে ভর্তিকৃতরা হলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার চিটাগং রোডের মনসুর আহমেদের ছেলে হাসানাত (২৮), বাগেরহাট জেলার মোরেলগঞ্জ উপজেলার সোনাখালী গ্রামের মো. আফজাল সিকদারের ছেলে মো. রুমন সিকদার (৩২), চায়না‘র জে সনের ছেলে জেরী (২৬), জ্যাক জিয়াও চ্যাংয়ের ছেলে জ্যাক জিয়া (৩৩), লিং হং‘র ছেলে ফু (৩৩)।

বাগেরহাট সদর হাসপাতালের করোনাভাইরাস আইসোলেশন ইউনিটের ইনচার্জ মেডিকেল অফিসার ডা. জুনায়েদ সাফার মাহমুদ জানান, সতর্কতা অবলম্বনের জন্য পুলিশ ৩ চীনা নাগরিকসহ পাঁচজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। আমরা তাদেরকে করোনাভাইরাস আইসোলেশন ইউনিটে রেখে দুই ঘণ্টা পরীক্ষা করেছি। তাদের মধ্যে করোনাভাইরাসের কোনো লক্ষণ পাওয়া যায়নি। তাদের শরীরের তাপমাত্রাও স্বাভাবিক রয়েছে। তারা সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন। করোনাভাইরাসের লক্ষণ তাদের শরীরে পাওয়া না গেলেও আগামী ২৪ ঘণ্টার জন্য তাদের আইসোলেশন ইউনিটে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/জেএস

 



poisha bazar

ads
ads