চুরির ঘটনাকে ডাকাতি সাজাতে গিয়ে ফাঁসলো ২ যুবক

চুরির ঘটনাকে ডাকাতি সাজাতে গিয়ে ফাঁসলো ২ যুবক
চুরির ঘটনাকে ডাকাতি সাজাতে গিয়ে ফাঁসলো ২ যুবক

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৭:৫১

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় পানির পাম্প মেশিন চুরির ঘটনাকে ডাকাতির ঘটনা সাজাতে গিয়ে থানা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আটকে গেল দুই যুবক।

পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষকে মিথ্যা মামলায় হয়রানি করতে এ কাজ করার অভিযোগ উঠেছে আড়ালিয়া গ্রামের রহমানের ছেলে পুলিশ সদস্য দীন ইসলামের বিরুদ্ধে।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় উপজেলার বালুয়াকান্দি ইউনিয়নের আড়ালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। আটক ২ যুবক একই গ্রামের শাজাহান মিয়ার ছেলে দেলোয়ার এবং ছোবহান মিয়ার ছেলে সুমন।

চোরাই মেশিন মালিক আড়ালিয়া গ্রামের রুপ মিয়ার প্রতিপক্ষ একই গ্রামের বাছেদ, ইউছুফ, আলতাফ গং এর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা সাজাতে গিয়ে মামাত ভাই পুলিশ সদস্য দীন ইসলাম এ কাজ করেছে অভিযোগ আলতাফ, ইউছুফ গংদের।

আলতাফ, ইউছুফসহ একই এলাকার ২০ থেকে ৩০জন ঘটনা প্রতক্ষদর্শী জানান, পুলিশ সদস্য দীন ইসলাম চোরির ঘটনাকে ডাকাতির মামলা সাজাতে দেলোয়ার ও সুমনকে দিয়ে প্রকাশ্য জনসম্মুখে অটো চালক ইয়াকুব মিয়ার গাড়িতে করে প্রথমে মুদারকান্দি খেয়া ঘাটে নেয়া হয়। সেখানে স্থানীয় লোকজনের সন্দেহে ঘটনা প্রকাশ পেলে, দেলোয়ার এবং সুমন জনরোষে পড়ে। তার পর থেকে পুলিশ সদস্য দীন ইসলাম দেলোয়ার ও সুমনের মাধ্যমে যোগাযোগ করে শত শত লোকের সামনে আড়ালিয়া ষ্ট্যান্ড হয়ে ইউপি সদস্য ছালাউদ্দিনের বাড়িতে পৌঁছে। সেখানে একাধিক ইউপি সদস্যর উপস্থিতিতে দীন ইসলাম গজারিয়া থানা পুলিশের সামনে প্রভাব ঘাটিয়ে দেলোয়ার ও সুমনকে দিয়ে ঘটনায় আলতাফ, লাক মিয়াসহ প্রতিপক্ষর নাম প্রকাশ করিয়েছে।

অটো চালক ইয়াকুব জানান, অভিযুক্ত দেলোয়ার তাকে মোবাইল করে এনে তাদের কিনা মেশিন রায়পাড়া নিয়ে যাবে বলেছে। তার গাড়ি মুদারকান্দি পৌঁছলে তিনি বুঝতে পারেন এটা চুরির।

ইউপি সদস্য ছালাউদ্দিন জানান, দীন ইসলাম অটো গাড়ি দিয়ে মেশিনসহ দেলোয়ার এবং সুমনকে নিয়ে আমার অফিসে আসে। পুলিশ আসার পর আমাদের সামনে আটক দেলোয়ার ও সুমন এক রকম বক্তব্য দিয়েছে। থানায় গিয়ে অন্যরকম বক্তব্য দিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে পুলিশ সদস্য দীন ইসলামকে ফোন করলে তিনি সাংবাদিক জেনে গাড়িতে আছি বলে ফোন কেটে দেন। পরে একাধিকবার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন ধরেন নি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই উত্তম কুমার জানান, ইউপি সদস্যদের সামনে এক পরোক্ষ প্রভাব খাটিয়ে মিথ্যাভাবে অন্য লোকদের ফাঁসাতে নাম বলেছে। থানায় জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেছে এক লোক তাদেরকে দিয়ে চুরির কাজটি করিয়েছে। চুরির মামলায় ব্যবস্থা নিয়ে আটকদের কোর্ট হাজতে পাঠানো হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এসকে




Loading...
ads






Loading...