নারকেল ছিনিয়ে নিতেই ব্যবসায়ীকে হত্যা

মানবকণ্ঠ
ছবি - প্রতিবেদক।

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:২১

কুমিল্লার বুড়িচংয়ে মহাসড়কের পাশে অজ্ঞাত লাশের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় আটককৃত আসামি আলেয়া বেগম হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত ৩ ফেব্রুয়ারি নারকেল ব্যবসায়ী চারু মিয়ার মরদেহ কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের পাশ থেকে অজ্ঞাত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।

বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক জানান, গত ৩ ফেব্রুয়ারি বুড়িচং এর পারুয়ারা এলাকার কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক এর পাশ থেকে আজ্ঞাত অবস্থায় এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করা হয় এবং অজ্ঞাত অবস্থায় মরদেহটি দাফন করা হয়। এই ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে বুড়িচং থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। পরে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর ও ছবি দেখতে পেয়ে ওই ব্যক্তির নাম চারু মিয়া বলে নিশ্চিত করে তার স্বজনরা। চারু মিয়া একই জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মাধবপুর এলাকার বাসিন্দা এবং পেশায় সে একজন নারকেল ব্যবসায়ী।

তিনি আরো জানান, হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হবার রাতে সে নোয়াখালি থেকে ৭ বস্তা নারকেল নিয়ে ময়নামতি সেনানিবাস এলাকায় নামে। পরে সেনানিবাস এলাকা থেকে একটি পিকআপ ভাড়া করে নারকেল নিয়ে নিজ বাড়িতে রওনা হয়। মাঝপথে তাকে হত্যা করে ফেলে দেয় পিকআপে থাকা অন্যান্যরা। এরপর চারু মিয়ার কিনে আনা নারকেল, তার সাথে থাকা টাকা ও মোবাইল নিয়ে পালায় খুনীরা। পরে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার করে নিহতের মোবাইল ফোন এর মাধ্যমে অবস্থানের সন্ধান পায় পুলিশ।

সেই সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার রাতে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানাধীন শাকতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে মূল হত্যাকারীর স্ত্রী মোসা. আলেয়া বেগম (২৬) কে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এসময় তার কাছ থেকে ৩ বস্তা নারকেলও জব্দ করে পুলিশ। আসামি আলেয়া বেগম হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে আদালতে স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দিয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই নন্দন চন্দ্র সরকার এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

মানবকণ্ঠ/জেএস





ads