যাত্রী সেজে বাসে ডাকাতি

যাত্রী সেজে বাসে ডাকাতি
যাত্রী সেজে বাসে ডাকাতি - ফাইল ছবি।

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ২৫ জানুয়ারি ২০২০, ১৯:০৭

যাত্রী সেজে বাসে উঠে অন্য যাত্রীদের গয়না, নগদ টাকা, মোবাইল ফোন সেটসহ কয়েক লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়েছে সশস্ত্র ডাকাতদল। ডাকাতদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গাড়িচালক দীন ইসলাম জখম হয়েছেন। তাকে সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

শুক্রবার রাত ১টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বাসটি ফরিদপুরের ভাঙ্গার মোড়ে পৌঁছালে ডাকাতদল বাসের চালক দীন ইসলাম ও তার সহকারী আবিদ হোসেনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বাসের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। পরে তারা কালো মুখোশ পরে যাত্রীদের নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার ও অন্যান্য মালামাল লুট করে। প্রায় আড়াই ঘণ্টা পর শনিবার ভোর সাড়ে ৩টার দিকে ডাকাতদল ডাকাতি শেষে বাগেরহাট-খুলনা মহাসড়কের বাগেরহাট সদর উপজেলার মাথাভাঙা এলাকায় এসে গাড়ি থামিয়ে নেমে যায়। তবে পুলিশ ডাকাতির ঘটনায় জড়িত কাউকে এখনো শনাক্ত করতে পারেনি।

মালামাল লুট হওয়া যাত্রীদের বাড়ি বাগেরহাট, গোপালগঞ্জ ও পিরোজপুর জেলায়। ডাকাতির শিকার এনজিও কর্মী শিল্পী আক্তার বলেন, যাত্রীবেশী সাত-আটজনের কালো মুখোশ পরা ওই ডাকাত দলটি অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আমার গলার স্বর্ণের হার, চুড়ি, কানেরদুল, নগদ কুড়ি হাজার টাকা, দুটি মোবাইলসেট এবং কাপড়ের ব্যাগ নিয়ে নেয়। পরে তারা একে একে বাসে থাকা সব যাত্রীর কাছ থেকে নগদ টাকাসহ সব মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। বাগেরহাট পৌঁছার পর আমি এই ঘটনা পুলিশকে জানালে পুলিশ এসে যাত্রীদের কাছ থেকে ঘটনা শুনেছে।

বাসের সহকারী আবিদ হোসেন বলেন, ডাকাতির শিকার হয়েছেন অন্তত ৩০ জন যাত্রী।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন যাত্রী বলেন, ঢাকার হাইওয়ে পুলিশের কাছে ওই বাসের সব যাত্রীদের ভিডিও ফুটেজ ধারণ করা রয়েছে। পুলিশ ওই ভিডিওটি সংগ্রহ করলে ডাকাতির ঘটনায় কারা জড়িত তা শনাক্ত করা সহজ হবে।

ডাকাতির কথা স্বীকার করে বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ আবজাল বলেন, বাসের ডাকাতির ঘটনা জানতে পেরে পুলিশ যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলেছে। ডাকাতি হওয়া বাসের চালক দীন ইসলাম ডাকাতদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হয়েছে। তাকে সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে থানায় আনা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। যাত্রীদের মামলা দিতে বলা হয়েছে। ওই ডাকাতদলকে শনাক্ত করতে পুলিশ কাজ শুরু করেছে।

মানবকণ্ঠ/এআইএস






ads
ads