যুবলীগ চেয়ারম্যানের কাছে ৫ ভূমিহীন পরিবারের আকুতি

গোফরান পলাশ, কলাপাড়া

মানবকণ্ঠ

poisha bazar

  • ০১ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৬:৫১

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় ৫ ভূমিহীন পরিবারের সরকারি বন্দোবস্ত পাওয়া জমি রক্ষা ও একাধিক মিথ্যা মামলাসহ খুন জখমের হুমকি থেকে বাঁচতে যুবলীগ চেয়ারম্যানের কাছে আকুতি জানিয়েছে ৫ ভূমিহীন পরিবার।

রোববার (১ ডিসেম্বর) ডাকযোগে কেন্দ্রীয় যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের কাছে ভূমিহীন মোসা. ইনারা বেগম এ লিখিত আকুতি জানান।

এর আগে যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক শামিম আল সাইফুল সোহাগের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনপূর্বক ভূমিহীনদের নামে মিথ্যা হয়রানিমূলক মামলা থেকে অব্যাহতি পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে লিখিত অভিযোগ প্রেরণ করেন কলাপাড়ার এই পাঁচ ভূমিহীন পরিবার। একই সঙ্গে বিষয়টি তদন্তের জন্য যুবলীগ ট্রাইব্যুনালের ই-মেইলে ও ডাকযোগে লিখিত অভিযোগ প্রেরণ করা হয়। কিন্তু রহস্যজনক কারণে অদ্যবধি কোনো প্রতিকার না পাওয়ায় যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদ্য নির্বাচিত চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শাম্স পরশের কাছে রোববার ফের ডাকযোগে উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের মোসা. ইনারা বেগম পাঁচ ভূমিহীন পরিবারের পক্ষে এ অভিযোগ প্রেরণ করেন।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কলাপাড়া উপজেলাধীন ৩৮নং জেএল সোনাপাড়া মৌজার বিভিন্ন খতিয়ান ও দাগে ৫টি বন্দোবস্ত কেস মূলে পাঁচ ভূমিহীন পরিবার ৭.৫০ একর জমি বন্দোবস্তমূলে প্রাপ্ত হয়। এরপর ওই জমিতে বাড়ি-ঘর, বাগান-পুকুর করে তারা প্রায় ৩৫ বছর যাবৎ শান্তিপূর্ণভাবে ভোগ দখল করছেন। কিন্তু যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক শামিম আল সাইফুল সোহাগ দলীয় ক্ষমতার অপব্যবহার করে তাদের ওই জমি থেকে উৎখাত করার জন্য তার অনুসারীদের বাদী করে তাদের বিরুদ্ধে চুরি, ছিনতাইয়ের মত মিথ্যা ঘটনায় কলাপাড়া থানা, মহিপুর থানা, কলাপাড়া জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ও ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় একাধিক মামলা করে হয়রানি করছে। আদালত প্রত্যেকটি মামলায় তাদের প্রত্যক্ষ করে জামিন প্রদান করেন। এরপরও সোহাগ তাদের বন্দোবস্তকৃত জমি মাছের ঘেরের নামে আত্মসাতের লক্ষ্যে নানা ধরনের ষড়যন্ত্রসহ খুন-জখমের ভীতি প্রদর্শন করছে।

এ বিষয়ে যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামিম আল সাইফুল সোহাগ তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি ওই পাঁচ পরিবারের জমিতে কোনো ধরনের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছেন না। এ অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেন তিনি।

মানবকণ্ঠ/আরবি






ads