ট্রলকারী ইউটিউবারদের ১০ দিনের আলটিমেটাম তাহেরীর

গিয়াসউদ্দিন আত তাহেরী - ছবি: সংগৃহীত।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৫:৫৫

ওয়াজ মাহফিলের নামে উদ্ভট জিকির এবং হাস্যরসাত্মক কথা বলার কারণে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রীতিমত সেলিব্রেটি গিয়াসউদ্দিন আত তাহেরী। এইসব বক্তব্যের কারণে বিভিন্ন ধরণের ট্রলেরও শিকার হতে হচ্ছে তাকে।

'বসেন বসেন বইসা যান', 'ঢেলে দেই', 'পরিবেশটা সুন্দর না', 'হৈ চৈ আছে', 'ডাব্বা মারছে' এসব ছাড়াও ওয়াজের মজলিসে বসে গাওয়া তার নানারকম গানগুলোও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ মানুষের মুখে মুখে।

এভাবে ট্রলের শিকার হতে থাকায় দাওয়াতে ঈমানী বাংলাদেশ সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও ইসলামী বক্তা মুফতি মুহম্মদ গিয়াস উদ্দিন আত-তাহেরী এবার আইনের আশ্রয় নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুরে নোয়াপাড়া গ্রামে রায়হানীয়া দরবার শরীফে গণমাধ্যমকে একথা জানিয়ে  তিনি বলেন, ‘আমার বক্তব্যগুলোকে সঠিকভাবে প্রকাশ করা হয়নি। কিছু অসাধু ইউটিউবার অর্থ উপার্জন ও জনপ্রিয়তার জন্য আমার বক্তব্যগুলো খণ্ডিত ও বিকৃত করে প্রকাশ করেছে।’

তিনি এসব ইউটিউবারদের সাবধান করে বলেন, ‘কমপক্ষে এ ধরনের ১৫টি ইউটিউব চ্যানেল আমি ইতোমধ্যে শনাক্ত করেছি। আগামী ১০ দিনের মধ্যে যদি তারা এসব অপপ্রচার বন্ধ না করে তবে বাধ্য হয়ে আমাকে আইনের আশ্রয় নিতে হবে।’

তাহেরী তার উদ্ভট বক্তব্যের কারণে মামলার মুখেও পড়েছিলেন। তবে বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আ স ম জগলুল হোসেন মামলাটি গ্রহণ করার মতো পর্যাপ্ত উপাদান না পেয়ে তা খারিজ করে দেন। পরে এসব বক্তব্যের জন্য তাহেরী তার নিজের ভুল স্বীকার করেছেন গণমাধ্যমে।

মানবকণ্ঠ/জেএস






ads