চাঁদা না দেয়ায় সহপাঠীর গোপনীয় ভিডিও ভাইরাল, ববির প্রেমিক-প্রেমিকা কারাগারে

- ছবি: সংগৃহীত।

poisha bazar

  • সালেহ টিটু, বরিশাল ব্যুরো
  • ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৫৬

চাঁদা না দেয়ায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) এক ছাত্রীর গোপনীয় ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করার অভিযোগে হওয়া মামলায় কারাগারে পাঠানো হয়েছে প্রেমিকা সাকিবুন নাহার অমি ও প্রেমিক সেলিম হোসেন রেজাকে। গত সোমবার দুপুরে প্রেমিক-প্রেমিকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভিডিও ভাইরালের দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

ওই ছাত্রীর দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় বিচারক মো. শামীম আহম্মেদ তাদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

অমি ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের বেয়ারা এলাকার এসএমএ ফারুকের মেয়ে এবং ববির মৃত্তিকা পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থবর্ষের ছাত্রী। তার প্রেমিক রেজা কুষ্টিয়ার ফুলতলা চৌড়হস এলাকার মৃত সেকেন্দার আলীর ছেলে একই বিভাগের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র। ভিডিও ভাইরালের পূর্বে বাদীর কাছে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেছিল রেজা।

বরিশাল মেট্রোপলিন বন্দর থানার সরকারি নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) মিলি মামলার এজাহারের উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, ২০১৫ সালে বরিশাল সদর উপজেলার কর্ণকাঠী এলাকায় বাদীর বাবার বাসা ভাড়া নেয় ববির শিক্ষার্থী অমি। ২০১৫ সালের ১৪ আগস্ট রাত সাড়ে ১১টার সময় অমি ওই ছাত্রীর ব্যাগ হতে ৩ হাজার টাকা, ১টি পেনড্রাইভ ও ১টি মেমোরি কার্ড চুরি করে। যার ভেতর ওই ছাত্রীর ব্যক্তিগত তথ্য সংরক্ষণ ছিল। পরবর্তীতে অমিকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে চুরির কথা স্বীকার করে। কিন্তু চুরি করা মালামাল ফেরত দেয় না। এ নিয়ে অমির মা আজেবাজে কথা বললে ওই ছাত্রীর বাবা তাদরে বাসা ছেড়ে দিতে বলে। এতে তারা বাসা ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়।

পরে ৫ থেকে ৬ মাস পর অমির প্রেমিক রেজা বিভিন্ন সময় ওই ছাত্রীর ব্যক্তিগত তথ্য ফেসবুকে ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। ওই ছাত্রী চাঁদা না দিলে ২০১৮ সালে অমি ও তার প্রেমিক রেজা ওই ছাত্রীর গোপনীয় ভিডিও সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করে। চলতি বছরের ৩০ আগস্ট ওই ছাত্রী তার বন্ধুদের ফেসবুকের মাধ্যমে ওই ভিডিও যোগাযোগ মাধ্যমে দেখতে মামলাটি দায়ের করেন। ওই মামলায় আটককৃতদের গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়। সেখানে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভিডিও ভাইরালের দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয় গ্রেফতারকৃতরা।

এদিকে ক্যাম্পাস সূত্র থেকে জানা গেছে, এ ঘটনাকে কেন্দ্র্র করে গত রোববার রাতে ববির ছাত্রী হোস্টেলে বাদী ও অভিযুক্তদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে ক্যাম্পাস পুলিশ তিনজনকেই আটক করে বন্দর থানায় নিয়ে যায়। এরপর আসল ঘটনা বেরিয়ে এলে বাদী মামলাটি দায়ের করেন।

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads





Loading...