ডিসি স্যারের কোনো দোষ নাই, ভিডিও প্রচারকদের বিচার চাই: সাধনা

- ছবি: সংগৃহীত।

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১৬:৫১,  আপডেট: ২৭ আগস্ট ২০১৯, ১২:১৭

জামালপুরের সেই জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের সঙ্গে অফিস সহকারী সানজিদা ইয়াসমিন সাধনার আপত্তিকর ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর তাদেরকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তবে সোমবার (২৬ আগস্ট) সকালে বোরখা এবং হিজাব পরিবর্তন করে অফিসে হাজির হন সাধনা। তার হাতে একটি ছুটির দরখাস্ত দেখা যায়। এ সময় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, যারা ভিডিও প্রকাশ করেছে আমি তাদের বিচার চাই। তবে স্যারের কোনো দোষ নাই।

সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা বলেন, এসব কিভাবে হল আমি কিছুই জানি না। আমি বাঁচতে চাই না। কিন্তু আমার সন্তানের জন্য মরতে পারছি না।

এর আগে জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর ও অফিস সহকারী সানজিদা আফরিন সাধনার আপত্তিকর ভিডিওটি প্রকাশিত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে ডিসি আহমেদ কবীরকে ওএসডি করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে এবং মো. এনামুল হককে নতুন ডিসি হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৫ আগস্ট বিকেলে ‘খন্দকার সোহেল আহমেদ’ নামের একটি পাবলিক ফিগার ফেসবুক পেজ থেকে জেলা পর্যায়ের সর্বোচ্চপদধারী এই সরকারি কর্মকর্তা তার অফিসেই একজন নারীর সঙ্গে অবৈধ মেলামেশার এই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রকাশ করা হয়। ফেসবুক আইডি থেকে এটি ভাইরাল হয়ে যাওয়ায় গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে ব্যাপক হারে নজরে আসতে থাকে ফেসবুক আইডি ব্যবহারকারীদের কাছে। এদিকে শুক্রবার ভোররাত থেকে রহস্যজনক কারণে ওই আইডির ওয়াল থেকে ভিডিও লিংকটি সরিয়ে নেয়ায় সন্দেহ আরো দানা বেঁধে উঠেছে।

এমন ভিডিও প্রকাশ পাওয়ায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে বিভিন্ন মহলে। ওই ভিডিওটিতে যে কক্ষটি দেখা যাচ্ছে সেটি জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের অফিস কক্ষে তার চেয়ারের ঠিক ডান পাশের ছোট একটি কক্ষ। ছোট এই কক্ষটিতে একটি ছোট খাট বসানো হয়েছে। কক্ষটি বেশ পরিপাটি দেখা যাচ্ছে। ভিডিওটিতে পুরুষ ব্যক্তিটিই জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর। আর যে নারীকে দেখা যাচ্ছে তিনি এই জেলা প্রশাসকের মাধ্যমেই সম্প্রতি নিয়োগ পাওয়া একই অফিসের অফিস সহায়ক সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা।

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads





Loading...