অগ্নিগর্ভ পুরান ঢাকায় মৃত্যুঝুঁকিতে বসবাস

মুসাহিদ উদ্দিন আহমদ
মুসাহিদ উদ্দিন আহমদ - ছবি : সংগৃহীত

poisha bazar

  • মুসাহিদ উদ্দিন আহমদ
  • ০৪ মে ২০২১, ১২:৫৮

পুরান ঢাকার রাসায়নিক কারখানায় ও গুদামে আগুন লাগছে বারবার, জ্বলে-পুড়ে অঙ্গার হচ্ছে মানুষ। বিনষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার সম্পদ। কত স্বপ্ন পুড়ে ছাই হচ্ছে। চরম অনিশ্চয়তার মাঝে আজও কাটছে পুরান ঢাকার লাখো মানুষের জীবন।

এবারে আগুন লাগলো পুরান ঢাকার আরমেনিয়ান স্টিটের একটি পাঁচতলা আবাসিক ভবনে যার নিচতলায় ছিল ১৮টি কেমিক্যালের দোকান আর ওপরের চারটি তলায় ছিল মানুষের বসবাস। ২২ এপ্রিলের এই অগ্নিকাণ্ডে ৪ জন মারা যান এবং আহত হন ২১ জন। নিচতলার দোকানগুলো ছিল কস্টিক সোডা, ব্লিচিং পাউডার, জিলেটিন, এসিটিক এসিড, হাইড্রলিক-পার-অক্সাইড জাতীয় নানা দাহ্য কেমিক্যালে ঠাসা এবং সেখান থেকেই আগুনের সূত্রপাত।

পরে তা ছড়িয়ে পড়ে ওপরের তলায়, ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে যায় গোটা ভবন। জানালার গ্রিল কেটে শাড়ি বেয়ে নেমে আসেন ওপর তলার কিছু বাসিন্দা। ভবনের বেশ কিছু অংশ, ভেতরের মালামাল অধিকাংশ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এই তো কিছুদিন আগে পুরান ঢাকার উর্দু রোডের নোয়াখালি ভবনে চতুর্থবারের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা নতুন করে এলাকাবাসীকে আতঙ্কের মধ্যে ফেলে।

প্রায় ৩০টির মতো কারখানা সম্বলিত এক ভবনে প্লাস্টিকের বিপুল কাঁচামালসহ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিগত কয়েক বছরে পুরান ঢাকার কেমিক্যাল গোডাউনে অন্তত ২ শতাধিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ২০১০ সালের ৩ জুনের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে প্রায় ৩০ লাখের অধিক মানুষের বসতি পুরান ঢাকার নবাব কাটারার নিমতলীতে সংঘটিত স্মরণকালের মর্মান্তিক অগ্নিকাণ্ডে সম্পূর্ণ ভস্মীভূত হয় এলাকার ১১টি ভবন, কেড়ে নেয় ১২৪টি তরতাজা প্রাণ।

আহত হন ২ শত জনের বেশি মানুষ। একটি ভবনের গ্যাস সিলিন্ডারের চুলা থেকে নিচতলার গোডাউনে রক্ষিত ড্রামভর্তি বিপুল পরিমাণ দাহ্য পদার্থ মিথাইল ক্লোরাইডে আগুন লাগে। পরে তা পার্শ্ববর্তী ভবনগুলোতে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। দাহ্য কেমিক্যালের তীব্র আগুন, পর্যাপ্ত আধুনিক অগ্নিনির্বাপক সাজসরঞ্জাম এবং পানির অপ্রতুলতা, গাদাগাদি গড়ে-ওঠা ভবনের মাঝে সরুগলিতে যানবাহন চলাচলে প্রতিকূলতায় বাড়ে অগ্নিকাণ্ডের ভয়াবহতা।

২০১৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি সেই পুরান ঢাকারই চকবাজারের চুড়িহাট্টার ওয়াহেদ ম্যানসনে অগ্নিদগ্ধ হয় প্রাণ হারান ৭৯ জন। গুরুতর আহত ৪১, পুড়ে ছাই ৫টি ভবন। ওয়াহেদ ম্যানশনের বেসমেন্টের বস্তাভর্তি ১১ ধরনের কেমিক্যালে লাগা আগুনের লেলিহান শিখায় পুরো এলাকা হয় ভস্মীভূত। লালবাগের পোস্তার আরেকটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার সময় ঈদের ছুটি না থাকলে সিরিঞ্জ, স্যালাইন ব্যাগ তৈরি কারখানায় সেদিন প্রাণহানি চুড়িহাট্টা বা নিমতলীকেও ছাড়িয়ে যেতে পারতো।

প্রায় চারশ’ বছরের রাজধানী পুরান ঢাকার রয়েছে দীর্ঘকালের ঐতিহ্য। পুরান ঢাকায় বেশ কিছু ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা রয়েছে, দেশ এবং দেশের বাইরে যা সুপরিচিত। পুরান ঢাকার মতো ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় শত বছর ধরে নানা ধরনের পণ্য উৎপাদনকারী ছোট-বড় শিল্পকারখানা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং সময়ের প্রয়োজনে এর সংখ্যা ধীরে ধীরে বেড়েই চলেছে।

পুরান ঢাকার বংশাল, বাবুবাজার, মিডফোর্ড, লালবাগ থানা এলাকায় প্রায় ৪০০টি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে রয়েছে সোডিয়াম, গ্লিসারিন, হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড, মিথাইল থিনার টলুইনের মতো দাহ্য পদার্থ। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) ২০১৭ সালের গবেষণায় বলা হয়, পুরান ঢাকার ২৫ হাজার রাসায়নিক গুদাম রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ১৫ হাজারই রয়েছে বাসাবাড়িতে।

মাত্র ২ হাজার পাঁচ শত গুদামের সিটি করপোরেশন ট্রেড লাইসেন্স দিলেও বাকি প্রায় ২২ হাজার অবৈধ। দেশব্যাপী উন্নত শিল্পের প্রসার ও বিকাশের পরেও পুরান ঢাকার ওই সব ব্যবসার তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি। আবার এসব কারখানাকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন কেমিক্যালের গুদাম। অথচ রাসায়নিক দ্রব্য মজুদের ব্যাপারে অদ্যাবধি তেমন কোনো নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

পরিসংখ্যান বলছে, পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ২৫ হাজার রাসায়নিক ও প্লাস্টিক কারখানা এবং গুদাম রয়েছে। এসব গোডাউনে নানা প্লাস্টিক সামগ্রী ও ড্রামভর্তি রাসায়নিক দাহ্য পদার্থ এবং ফসফরাস জাতীয় দ্রব্য রয়েছে। এছাড়া মিডফোর্ড এলাকায় রয়েছে অসংখ্য পাইকারি ওষুধ ও কেমিক্যালের বিশাল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। সেখানেও মজুদ রয়েছে নানা প্রকার রাসায়নিক দ্রব্য যার অনেকটাই দাহ্য পদার্থ ও বিস্ফোরক। এসব মজুদের জন্য অগ্নিকাণ্ড নিরোধক তেমন কোনো গুদাম বা স্টোরেজ নাই।

পুরান ঢাকার অনেক বাড়ির মালিক বেশি ভাড়ার লোভে বাসার নিচতলায় রাসায়নিক পদার্থ মজুদের জন্য ভাড়া দেন। অনেক ভবনেই মানা হয় না বিল্ডিং কোড, নেই তাতে রাজউকের অনুমতি। এমনকি কারখানা ও গুদামের বেশির ভাগেরই পরিবেশ অধিদফতর, জেলা প্রশাসন, বিস্ফোরক অধিদফতর, শ্রম অধিদফতর, ফায়ার সার্ভিস বা ডিডিসি’র ছাড়পত্র নেই।

অনেক গুদামে মজুদ থাকে বিপুল পরিমাণ প্লাস্টিক, জুতার সোল তৈরির এডহেসিভ ও পেস্টিং সলিউশন- যার সবই দাহ্য পদার্থ। অপরিকল্পনা, অব্যবস্থাপনা, অসাবধানতার ছাপ স্পষ্ট সর্বত্র। বিশেষজ্ঞের মতে, এরমধ্যে বেশকিছু কেমিক্যালের একটি ড্রাম এক হাজার বোমার চেয়েও বেশি শক্তিশালী যা থেকে আগুনের সূত্রপাত হলে পুরান ঢাকার অধিকাংশ জায়গাই পুড়ে যেতে পারে।

নিমতলী ট্র্যাজেডির পর সরকার গঠিত টাস্কফোর্সের তালিকায় থিনার-বি, থিনার-সি, এসিটেট, ইথানল, ইথাইল এসিটেট, টলুইন, প্রোপাইলিন এলকোহল, প্রোপাইলিন গ্লাইকলসহ ২০টি দাহ্য পদার্থকে চিহ্নিত করে। তখন পুরান ঢাকার সকল প্রকার রাসায়নিক কারখানা স্থাপন, রাসায়নিক পদার্থের মজুদ ও বিপণন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়।

নিমতলী এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতও পরিচালনা করা হয়। আদালত অভিযান চালিয়ে ১০৪টি মামলা করে ৩৫ লাখ ১৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে। গঠিত দুটি কমিটি পুরান ঢাকায় ৮০০টি উচ্চমাত্রার বিপজ্জনক রাসায়নিকের গুদাম ও কারখানার তালিকা প্রস্তুত করে সেগুলো নারায়ণগঞ্জ ও কেরানীগঞ্জে সরিয়ে নেওয়ার সুপারিশের পাশাপাশি টাস্কফোর্স গঠন করার পরিকল্পনা প্রণয়ন বাস্তবায়িত হয়নি।

তবে ওই সময়ে আবাসিক ভবনের নিচে মজুদকৃত কিছু কেমিক্যাল ও দাহ্য পদার্থ উদ্ধার ও মিডফোর্ডের ৪টি গুদাম সিলগালা করে দেওয়া হয়েছিল। পুরান ঢাকার অগ্নিদুর্ঘটনা রোধকল্পে ২০১০ সালের ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সময় বেধে ব্যবসায়ীদের সব রাসায়নিক দোকান ও গুদাম অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

২০১১ সালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বৈঠকে ঢাকা মহানগরের আবাসিক এলাকা থেকে রাসায়নিক কারখানা ও গুদাম কামরাঙ্গীর চর ও কেরানীগঞ্জে সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এ ব্যাপারে একটি টেকনিক্যাল কমিটিও গঠন করা হয়। ২০১৪ সালের মধ্যে কেরানীগঞ্জে ২০ একর জমির ওপর রাসায়নিক পল্লী স্থাপনের সিদ্ধান্ত হলেও তা বাস্তব রূপ নেয়নি।

এই পল্লীতে ১৭টি ভবনে ১০৭৯টি শিল্প প্রতিষ্ঠান ঝুঁকিমুক্তভাবে তাদের কার্যক্রম পরিচালনার সম্ভাবনা ছিল। রাসায়নিক কারখানা ও গুদাম নিরাপদ স্থানে সরিয়ে না নেওয়া পর্যন্ত শ্রেণিবিন্যাস অনুযায়ী লাল-হলুদ বিপদ সংকেতযুক্ত সাইনবোর্ড প্রদর্শন বাধ্যতামূলক করাসহ হোল্ডিংয়ে লোকজন বসবাস নিষিদ্ধ ঘোষণারও সিদ্ধান্ত হলেও তা কার্যকর হয়নি।

চুড়িহাট্টা ট্র্যাজেডির পর ২০১৮ সালের ৩০ অক্টোবর ‘বিসিক কেমিক্যাল পল্লী ঢাকা’ প্রকল্প একনেকের অনুমোদন পেয়ে ২০১ কোটি ৮১ লাখ টাকায় বিসিকের প্রকল্পের আওতায় কেরানীগঞ্জে ৫০ একর জমি চিহ্নিত করে ৯৩৬টি প্লট করার সিদ্ধান্ত হয়। ২০১৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত কয়েকশ’ রাসায়নিক কারখানা টঙ্গী ও পোস্তগোলায় সরিয়ে নেওয়ার কাজও অনিশ্চিত।

সর্বশেষ ২০২০ সালের ১৮ এপ্রিল মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে ৩০৮ দশমিক ৩৩ একর জমি নিয়ে ‘বিসিক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক, মুন্সীগঞ্জ (প্রথম সংশোধিত)’ নামে একটি প্রকল্প প্রস্তাব বিসিক পাঠায় শিল্প মন্ত্রণালয়ে। এ প্রকল্পের আওতায় ২ হাজার ১৫৪টি প্লট তৈরি করে রাসায়নিক কারখানা ও গুদামকে বরাদ্দ দেওয়ার কথা। এতকিছুর পরেও পুরান ঢাকার রাসায়নিক কারখানা ও গুদাম কবে নাগাদ নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হবে তা অনিশ্চিত।

পুরান ঢাকার একের পর এক অগ্নিকাণ্ডকে নিছক দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়া সঙ্গত নয়। এসব অগ্নিকাণ্ড কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগও নয়। কতিপয় অপরিণামদর্শী মানুষের লোভের কারণে বারবার অগ্নিকাণ্ডের শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। পুরান ঢাকার বিশাল জনগোষ্ঠীর জীবননিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে সেখানকার সকল দাহ্য কেমিক্যালের দোকান, গোডাউন দ্রুত নিরাপদ স্থানে সরাতে হবে।

এছাড়া রাসায়নিক কারখানা বা গুদাম যেখানেই স্থাপিত হোক রাসায়নিক দ্রব্য মজুদের জন্য বিস্ফোরক অধিদফতরের ফায়ার লাইসেন্স গ্রহণ বাধ্যতামূলক করা অত্যাবশ্যক। গুদাম নির্মাণের নকশায় অবশ্যই রাজউকের অনুমোদন থাকা চাই। আগুন নেহায়েৎ যদি লেগেই যায় সেজন্য অগ্নিকাণ্ডক দ্রুত মোকাবিলার জন্য বিভিন্ন জায়গায় ফায়ার-হাইড্রেন্ট বসানো প্রয়োজন।

অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থাকে জোরদার করতে ডিডিসি, বিস্ফোরক অধিদফতর, ফায়ার সার্ভিস, পরিবেশ অধিদফতরসহ সংশ্লিষ্ট মহলের সম্মিলিত কার্যকর ভূমিকা অনস্বীকার্য। অগ্নিনির্বাপণ কার্যক্রমকে সক্রিয় ও গতিশীল করতে পর্যাপ্ত সংখ্যক আধুনিক অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রপাতি দিয়ে দক্ষ জনবল কাঠামো গড়ে দমকল বাহিনীকে উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

পুরান ঢাকার বিশাল জনগোষ্ঠীর জীবনের নিরাপত্তার গুরুত্ব উপলব্ধি করে দ্রুততম সময়ে রাসায়নিক কারখানা ও গুদামকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে হবে। অন্যথায় এসব অপ্রত্যাশিত, অস্বাভাবিক মৃত্যুর দায়ভার সংশ্লিষ্ট কেউ এড়াতে পারবে না।

লেখক : সাবেক প্রকৌশলী ও শিক্ষক।






ads
ads