কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে ‘সুরক্ষা সামগ্রী’ উপহার


poisha bazar

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২০ মে ২০২০, ১১:৪০,  আপডেট: ২০ মে ২০২০, ১৪:১৪

জনগণের বন্ধু হয়ে বাংলাদেশ পুলিশ সময়ের সাথে সাথে সারাদেশে করোনা মহামারী মোকাবেলায় স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে। কারণ পুলিশ সদস্যদের কাজের পরিবেশটাই ঝুঁকিপূর্ণ। জনগণের খুব কাছে থেকে পুলিশকে কাজ করতে হয়। দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে সবাই যখন নিজের নিরাপত্তা নিয়ে খুবই সচেতন তখন বাংলাদেশ পুলিশ তাদের সক্ষমতার দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অনবরত মানুষের পাশে এসে দাঁড়াচ্ছে। মানবিকতার উৎকর্ষ বৃদ্ধি করছে নানামাত্রায়।

মানবিক ও সামাজিক সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পুলিশের প্রতিটি সদস্য আজ অনন্য ভূমিকা রাখছে। জনগণের নিরাপত্তা দিতে গিয়ে প্রায় আড়াই হাজার পুলিশ সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত তবুও পুলিশ সদস্যদের মানবিক কাজ থেমে নেই। অপ্রতিরোধ্য গতিতে পেশাদারিত্বের পাশাপাশি মানুষের সেবায় সকল মানবিক কাজ করছে পুলিশ। সরকার প্রধান ও আইজিপি পুলিশ সদস্যদের মনোবল বৃদ্ধিতে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। পুলিশ সদস্যদের মনোবল চাঙ্গা রাখতে নানাভাবে পুলিশের প্রতিটি সদস্যদের উজ্জীবিত করা হচ্ছে। অসুস্থ পুলিশ সদস্যদের যথাযথ চিকিৎসা নিশ্চিত করতে ও নিয়মিত খোঁজ খবর নিতে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল সার্বক্ষণিক তৎপর থেকে কাজ করছে হাসপাতালের প্রতিটি সদস্য। পুলিশ সদস্যদের নিয়মিত খোঁজ খবর নিতে আইজিপি "বিশেষ টিম" গঠন করেছেন।

ইতোমধ্যে অনেক পুলিশ সদস্য কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে আবারো কাজে যোগ দিয়েছেন। এখন তারা নতুন উদ্যমে জনগণের জন্য কাজ করছেন। কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের যে সকল বীর সদস্যগণ করোনা মহামারী মোকাবেলায় দিনরাত পরিশ্রম করছেন তাদের মনোবল বৃদ্ধি ও সাহস যোগাতে দেশের সকল স্তরের মানুষ ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নানাভাবে উৎসাহ যোগাচ্ছেন।

তেমনিভাবে পুলিশ সদস্যদের প্রতি আন্তরিক ভালোবাসা, শ্রদ্ধা ও উৎসাহ সৃষ্টি করতে ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে "সুরক্ষা সামগ্রী" হস্তান্তর করেছেন কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে। হাসপাতালের পক্ষে শুভেচ্ছা উপহার গ্রহণ করেন ডাঃ এমদাদুল হক পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) এবং মোঃ সাইফুল ইসলাম সানতু অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন)।

বিশেষ করে ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস এর সম্পাদক ৩০ তম বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডারের ডাক্তার লতিফুল বারী করোনা মহামারী মোকাবেলায় পুলিশ সদস্যদের অনন্য ভূমিকার বিষয়ে তুলে ধরেন এবং দেশের এই প্রেক্ষাপটে ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস এর ৭ জন ডাক্তারের পক্ষ থেকে পুলিশ হাসপাতাল ও যে কোন পুলিশ সদস্যদের স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোন পরামর্শ, সহযোগিতা, উৎসাহ ও মনোবল বৃদ্ধির ব্যাপারে "ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস" সর্বদা পাশে থাকবার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। এতে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের পুলিশ সুপার "ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস" পুলিশ সদস্যদের প্রতি ভালোবাসা ও উৎসাহ বৃদ্ধির জন্য "সুরক্ষা সামগ্রী " উপহারের জন্য কৃতজ্ঞতা জানান।

কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোঃ সাইফুল ইসলাম সানতু আরও জানান, "ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস" বিভিন্ন হাসপাতালে "সুরক্ষা সামগ্রী" উপহার কার্যক্রম সময়োপযোগী প্রশংসনীয় উদ্যোগ। এছাড়াও দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করা "ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস" সংগঠনটির কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করেন। ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস এর পক্ষে উপস্থিত ছিলেন সভাপতি, সম্পাদক ও শিক্ষা ক্যাডারের মোঃ আবদুল কাদের (সোহাগ)।

ত্রিমাত্রিক-৩০ বিএসসি অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান, দেশের করোনা মহামারী মোকাবেলায় সম্মুখযোদ্ধা ডাক্তার, পুলিশ সদস্য ও স্বাস্থ্যকর্মীগণ ঝুঁকি নিয়ে দেশের মানুষের জন্য কাজ করছেন। কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে "সুরক্ষা সামগ্রী" শুভেচ্ছা উপহারের ভাবনা ও উদ্যোগ পুলিশের প্রতি ভালোবাসা, উৎসাহ ও মনোবল বৃদ্ধির নিয়ামক মাত্র। কিন্তু সম্মুখযোদ্ধাদের প্রতি আমাদের সুগভীর ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা নিয়ে "ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস" সবসময় পাশে থেকে সাহস যোগাতে চাই। দেশের এই প্রেক্ষাপটে ও করোনা মহামারী মোকাবেলায়, দেশ ও মানুষের কল্যাণে অপ্রতিরোধ্য গতিতে "ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস"র সাথে ৩০ তম বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের কিছু উদ্যোমী বন্ধুদের প্লাটফর্ম "ডায়নামিক-৩০" এবং ৩০ বিসিএস বিভিন্ন ক্যাডারের বন্ধুগণ আমাদের সাথে থেকে সাহস ও শক্তি যোগাচ্ছেন এবং জনকল্যাণে তাদের সম্পৃক্ততা আমাদেরকে বড় পরিসরে কাজ করবার উৎসাহ যোগাচ্ছে। সবার জন্য শুভ কামনা রইলো।

মানবকণ্ঠ/এইচকে




Loading...
ads






Loading...