ঢাবি ছাত্রলীগের হল সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ

ঢাবি ছাত্রলীগের হল সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ - সংগৃহীত

poisha bazar

  • ঢাবি প্রতিনিধি
  • ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:২৫,  আপডেট: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০:৪৭

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের হল সংসদ সম্মেলনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয় শাখার দুই শীর্ষ নেতার সঙ্গে বৈঠকে বসে আগামী ২৮ মার্চ নির্ধারণ করে দেন সংগঠনের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় মানবকণ্ঠকে বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের অন্তর্গত হল সংসদগুলোর সম্মেলনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। আগামী ২৮ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি বলেন, ছাত্রলীগ নিয়মিত শিক্ষার্থীদের সংগঠন। ফলে নিয়মিত শিক্ষার্থীরা দলের নেতৃত্ব দিয়ে থাকে।নিয়মিত শিক্ষার্থীদেরকে নেতৃত্বে নিয়ে আসতেই সংগঠনে সম্মেলন অনুষ্ঠিত করা হয়। আগামী সম্মেলনের মধ্য দিয়ে হল শাখাগুলো নতুন নেতৃত্ব পাবে।

আরো পড়ুন : ১৯ মাসেও হয়নি ঢাবি ছাত্রলীগের হল কমিটি

ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, সংগঠনকে আরো চাঙ্গা করতে সম্মেলনের বিকল্প নেই। ভবিষ্যতে ছাত্র আন্দোলনে ভূমিকা রাখতে ও সংগঠনকে শক্তিশালী করতে তাই সম্মেলন আহ্বান করা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখা ছাত্রলীগের কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে সাত মাস আগে। নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষ হওয়ার দুই মাস আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটি দিতে পারলেও ১৯ মাসেও হয়নি ঢাবি ছাত্রলীগের হল কমিটি। বিষয়টি নিয়ে মেয়াদ উত্তীর্ণ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি দেখাতে পারেননি বলে বার বার অভিযোগ উঠেছে। এ কারণে বিষয়টি নিয়ে একই সঙ্গে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে হল কমিটিতে পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীদের মধ্যে।

এদিকে নিদিষ্ট সময় অনেক আগে অতিবাহিত হওয়ার পরও হল কমিটি না হওয়ার কারণে অনেকে সামনের বিসিএস প্রিলিকেন্দ্রীক পড়াশোনা শুরু করেছে। কেউ কেউ আবার হতাশায় নিয়মিত কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ ছেড়ে দিয়েছেন।

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ১০ (খ) ধারায় বলা হয়েছে, ‘জেলা শাখার কার্যকাল এক বছর। জেলা শাখাকে উপরিউক্ত সময়ের মধ্যে নির্বাচিত কর্মকর্তাদের হাতে দায়িত্বভার বুঝিয়ে দিতে হবে। বিশেষ পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের অনুমোদনক্রমে ৯০ দিন সময় বৃদ্ধি করা যাবে। এই সময়ের মধ্যে সম্মেলন না হলে জেলা কমিটি বিলুপ্ত বলে গণ্য হবে। সেক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ আহ্বায়ক বা এডহক কমিটি গঠন করে ৯০ দিনের মধ্যে সম্মেলন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা নেবে।’

মানবকণ্ঠ/এমএইচ




Loading...
ads






Loading...