ঢাকায় পা দিয়েই ধরা নব্য জেএমবির তিন সদস্য

মানবকণ্ঠ
প্রতীকী ছবি

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ১৪:০৫

রাজধানীর গাবতলী বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে নিষিদ্ধ ঘোষিত ইসলামী সংগঠন জামাআতে মুজাহেদীন বাংলাদেশ (জেএমবি) বর্তমানে নব্য জেএমবির তিন সদস্যকে আটক করেছে ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। বুধবার রাতে তাদের আটক করা হয়। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

আটককৃতরা হলেন- মো. আব্দুল্লাহ (২৪), সফিকুল ইসলাম ওরফে মোল্লাজী (৩৮) ও মোস্তফা হোসেন আরিফ (২৫)।

কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগ সূত্রে জানা যায়, উওরবঙ্গের একটি জেলা হতে বাসযোগে নব্য জেএমবির কয়েকজন সদস্য ঢাকায় আসছে এমন গোপন তথ্যের ভিত্তিতে কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগ বুধবার রাতে গাবতলী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানান, তারা প্রত্যেকেই পুরাতন জেএমবির সদস্য ছিলেন। পরবর্তী সময়ে গুলশান হলি আর্টিজান মামলাসহ একাধিক মামলার আসামি সোহেল মাহফুজের মাধ্যমে তারা নব্য জেএমবির দীক্ষা লাভ করেন। তাদের মোবাইল ফোনে অ্যাপসসহ বিভিন্ন মাধ্যমে নব্য জেএমবি ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠনের সদস্যদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে আসছিলেন।

২০১৭ সালের শেষের দিকে তারা চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সদর থানার সদর হাসপাতালের পাশে মহানন্দা নদীর পাড়ে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ সন্ত্রাসী সংগঠন নব্য জেএমবির এক সভায় মহসিন ও বাদরুলের মাধ্যমে এ সংগঠনের সদস্যপদ গ্রহণ করেন । ওই সভায় উপস্থিত সংগঠনের আরো কয়েক জনের তারা নাম-ঠিকানা প্রকাশ করেছেন।

এতে আরো বলা হয়, আটককৃত সফিকুল ইসলাম ওরফে মোল্লাজী এবং মোস্তফা হোসেন আরিফ নব্য জেএমবির অন্যান্য সদস্য শাহিন আলম ওরফে আলামিন, জিয়াউর রহমান ওরফে মহসিন, আরিফ, কবির, জহিরুল ওরফে মামুনুর রশিদ ও হারুনসহ বেশ কয়েকজনকে বিভিন্ন সময়ে সশস্ত্র প্রশিক্ষণের জন্য ভারতে নিয়ে যায়।

উলেখ্য, জিয়াউর রহমান ওরফে মহসিন ২০১২ সালে বান্দরবানে জেএমবির অন্তর্কোন্দলে নিহত সালমান ওরফে তারেক হত্যা মামলার আসামি এবং জহিরুল ওরফে মামুনুর রশিদ, ২০১৫ সালে ঢাকার মোহাম্মদপুরে কলেজ শিক্ষিকা কৃষ্ণাকাবেরী বিশ্বাস হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। ভারতে গিয়ে তারা সংঘবদ্ধ হয়ে ঝাড়খন্ড, কেরালাসহ বিভিন্ন রাজ্যে ভারতীয় জঙ্গিদের সাথে যৌথভাবে বোমা তৈরি ও অস্ত্র পরিচালনার প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।

২০১৯ সালের জুন মাসে তাদের সংগঠনের সদস্য মামুন, জিয়াউর রহমান ওরফে বাদল ওরফে মহসিন ও আল আমিন ওরফে শাহিন ভারতীয় পুলিশের হাতে গ্রেফতার হলে তারা সেখান থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে চলে আসে। প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে সন্ত্রসীরা দেশে ফিরে এসে গ্রেফতারকৃত মোঃ আব্দুল্লাহ এর মাধ্যমে সংগঠিত হয়ে তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম পুনরায় শুরু করে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তারা সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র, সশস্ত্র পন্থায় বর্তমান সরকারকে উৎখাত, দেশে তথাকথিত ইসলামি খিলাফত প্রতিষ্ঠা, সদস্য সংগ্রহ ও বৃদ্ধিসহ, দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি ও সংগঠনের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নির্ধারণ ইত্যাদির লক্ষ্যে সমন্বিত পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য ঢাকায় এসেছেন বলে জানায়। তাদের বিরুদ্ধে দারুস সালাম থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে মামলা করা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/আরবি




Loading...
ads





Loading...