কুরবানির পশু জবাইয়ে সতর্কতা


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১২ আগস্ট ২০১৯, ১০:১৪,  আপডেট: ১২ আগস্ট ২০১৯, ১০:২৪

কুরবানির পশু জবাইয়ের সময় কিছু সতর্কতা অবলম্বন না করলে এক দিকে যেমন স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ে, তেমনি ঈদের খুশিকে নষ্ট করবে। এজন্য কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলা দারকার। পশু জবাইয়ের সময় স্থানটি পরিষ্কার ও পরিছন্নও করা দরকার। যাতে কোন প্রকার জীবানু পরবর্তীতে রোগের কারণ না হয়ে দাঁড়ায়।

কোরবানির পশু জবাইয়ের সময় যেসব স্বাস্থ্য ঝুঁকি হতে পারে:

১. মাংস কাটার জায়গা ও ছুরি, চাপাতিসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতি ভালোভাবে পরিষ্কার না করলে স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়তে পারে।

২. পশুর চামড়া কাটার সময় সতর্ক থাকতে হবে। যাতে শরীরে কোন অংশ কেটে না যায়।

২. দীর্ঘ সময় মাংস কাটাকাটির জন্য হাতে ফোসকা পড়তে পারে।

৩.পশু জবাইয়ের পর রক্ত ক্ষরণের সময় না দিয়ে চামড়া ও মাংস কাটলে রক্ত মিশ্রিত মাংস খেলে বিভিন্ন স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ে।

৪) হঠাৎ করে গরু নিয়ে টানাটানি, চামড়া ছোলা, মাংস কাটাকাটিতে হাত-পায়ে ব্যথা হতে পারে।

৫) কোরবানির পশু জবাইয়ের সময় চোখে রক্ত গিয়ে ইনফেকশন হতে পারে।

৬) পশু সঠিকভাবে জবাই না হলে অর্ধ জবাই পশু ওঠে দৌড় দিলে ভয়ের কারণে বিভিন্ন স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়তে পারে।

৭) মাংসের হাড় কাটার সময় হাত ফসকে চাপাতি, দা, কুড়ালের কোপ লেগে বেশি রক্তক্ষরণ হতে পারে।

কুরবানির পশু জবাইয়ের সময় স্বাস্থ্যঝুঁকি প্রতিরোধে করণীয়:

১. দক্ষ লোক দিয়ে ভালোভাবে পশু জবাই করুন।

২.চামড়া ও মাংস কাটার সময় তাড়াহুড়া করবেন না।

৩. মাংসের হাড় কাটার সময় সাবধানের সাথে চাপাতি, কুড়ালের ব্যবহার করুন।

৪.হাতে নরম সুতি কাপড় পেঁচিয়ে কাটাকাটি করলে ফোসকা পড়বে না।

৫. যদি কেটে যায়, তবে প্রথমে রক্ত বন্ধ করে ভালোভাবে হেক্সিসল দিয়ে পরিষ্কার করে এন্টিসেপ্টিক মলম লাগাতে পারেন।

৬. পশু জবাইয়ের পর রক্তক্ষরণের জন্য পর্যাপ্ত সময় দিন।

মানবকণ্ঠ/এএম




Loading...
ads





Loading...