আইডিয়ালের ‘জিম্মি’ ছাত্রকে হস্তান্তর করলো ঢাকা কলেজ


  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২৩ নভেম্বর ২০২১, ২১:৩১

পুলিশের সামনে থেকে রাজধানীতে গণপরিবহণে হাফ পাশের দাবিতে আন্দোলনরত আইডিয়াল কলেজের ছাত্রকে দিনদুপুরে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় আইডিয়াল কলেজ ও ঢাকা কলেজ কর্তৃপক্ষের মধ্যে বৈঠকের পর ‘জিম্মি’ থেকে ওই ছাত্র মুক্তি পান।

ওই ছাত্রের মুক্তি পাওয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছেন পুলিশের নিউমার্কেট জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার শাহেন শাহ মাহমুদও।

জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে হাফ পাশের দাবিতে ছাত্ররা প্রথমে রাজধানীর নীলক্ষেত ও পরে সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে সমাবেশ করে। বেলা ২টা ১০ মিনিটের দিকে আন্দোলনের সমাপ্তি টানে তারা। পরে মিছিল নিয়ে নীলক্ষেতের দিকে যাওয়ার সময় হঠাৎ লাঠিসোঁটা নিয়ে একদল তরুণ এসে ছাত্রদের ধাওয়া করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতিতে আইডিয়াল কলেজের এক ছাত্রকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা দুই পক্ষের দেনদরবার শেষে শর্তসাপেক্ষে সন্ধ্যা ৭টার দিকে ওই ছাত্রকে ছাড়া হয়েছে।

হাফ পাশ নিয়ে চলা আন্দোলন আজকের মতো সমাপ্তির পর মিছিল নিয়ে ফেরার সময় অতর্কিত দুইদল ছাত্রের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এর জেরে আইডিয়াল কলেজের ওই ছাত্রকে ধরে নিয়ে যায় ঢাকা কলেজের কিছু ছাত্র। পরে আইডিয়াল কলেজের ১১ জন শিক্ষকের একটি প্রতিনিধি দল ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ আইকে সেলিম উল্লাহ খন্দকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

যেসব শর্তে মীমাংসা হয়, তার মধ্যে রয়েছে- ঢাকা কলেজের আহত ছাত্রের চিকিৎসার সব ব্যয় আইডিয়াল কলেজ কর্তৃপক্ষ প্রদান করবে, ঢাকা কলেজের আহত ছাত্রের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল মেরামতের খরচ বহন করতে হবে ও নতুন মোবাইল কিনে দিতে হবে, ঘটনার সঙ্গে জড়িত আইডিয়াল কলেজের ছাত্রদের আজীবন বহিষ্কার করতে হবে এবং ভবিষ্যতে আইডিয়াল কলেজের কোনো ছাত্র ঢাকা কলেজের সামনে এসে কোনো আন্দোলন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে পারবে না।

মীমাংসাপত্রে আইডিয়াল কলেজের পক্ষে বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. তরুণ কুমার গাঙ্গুলী, ঢাকা কলেজের পক্ষে উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক এ.টি.এম. মইনুল হোসেন এবং পুলিশ প্রশাসনের পক্ষে নিউমার্কেট ও কলাবাগান থানার ওসিরা (অপারেশন) স্বাক্ষর করেন।

এ সময় আইডিয়াল কলেজের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক মজিবর রহমান বলেন, আজকের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় আমরা ঢাকা কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বসে সুষ্ঠু সমাধান করতে পেরেছি। আমরা ছেলেটিকে বুঝে পেয়েছি। আমরা তাকে নিয়ে যাচ্ছি। যদি তার দোষ-ত্রুটি থাকে তবে আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

আইডিয়াল কলেজের অধ্যক্ষ জসিমউদ্দীন আহমেদ জানান, তারা তাদের ছাত্রটিকে ফিরিয়ে এনেছেন।


poisha bazar

ads
ads