না ফেরার দেশে চলে গেলেন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ০৩ মার্চ ২০২১, ১৩:০২

রাজশাহীর বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক তারিক সাইফুল ইসলাম ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। নিহতের বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর।

মঙ্গলবার (২ মার্চ) রাতে নগরীর নিজ বাসায় হঠাৎ শ্বাসকষ্ট দেখা দেয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত এই অধ্যাপকের। পরে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা রাত সাড়ে ১১টার দিকে মৃত ঘোষণা করেন।

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. আতাউল গনি ওসমানী এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ‘স্যার পুরো সুস্থ ছিলেন। তিনি গতকাল সারা দিন অফিসের কাজ করেছেন। রাতে খাওয়া-দাওয়া করার পর তার হালকা শ্বাসকষ্ট হয়েছিল। পরে শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ায় তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

বুধবার (৩ মার্চ) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রাজশাহীর বায়তুল আওয়াল জামে মসজিদে (কয়েরদাড়া, সপুরা) তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। সেখান থেকে তার মরদেহ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানান বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপদেষ্টা অধ্যাপক সাইদুর রহমান খানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ অন্যরা।

পরে শেষবারের মতো এই অধ্যাপকের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় তার সাবেক কর্মস্থল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে। মমতাজ উদ্দিন কলাভবনের সামনে তাকে শ্রদ্ধা জানান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এম আবদুস সোবহান, অর্থনীতি বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক সনৎ কুমার সাহা, রফিকুল ইসলাম ও দিলীপ কুমার নাথসহ অনেকে।

সেখান থেকে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক তারিক সাইফুল ইসলামের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় তার পৈতৃক নিবাস যশোরের নোয়াপাড়ায়। সেখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন এই গুণী অধ্যাপক।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ থেকে অবসরক নেওয়ার পর ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিনি বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে শিক্ষকতা শুরু করেন। পরে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়টির কোষাধ্যক্ষের দায়িত্ব পান। সবশেষে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন।

তিন ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন এই অধ্যাপক। তার মৃত্যুতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা গভীর শোক প্রকাশ করেন।

মানবকণ্ঠ/এমএ






ads
ads