বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে যা জানালেন শিক্ষামন্ত্রী


poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ২৯ অক্টোবর ২০২০, ২০:৪১

এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ও পরীক্ষা নিয়ে ব্রিফ করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা বিষয়ে তিনি বলেছেন, কোন বিশ্ববিদ্যালয় বলতেই পারে আমরা পরীক্ষা নেব। তবে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ও ঝুঁকির কথা ভাবতে হবে। সবাই পরীক্ষা নিলে কী হতে পারে সে বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে।

তিনি বলেন, ‘আমরা যে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলছি, তা করলে কী হবে সেটিও ভাবতে হবে। কোন বিশ্ববিদ্যালয়কে নিজের স্বার্থ দেখলে হবে না। ভারতে পরীক্ষা হয়েছে, অন্য দেশ কি করছে দেখব। বিষয়গুলো আমরা পর্যালোচনা করে দেখছি। যা সম্ভব হবে আমাদের পক্ষে, তার সবটুকুই করব। শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের কথা চিন্তা করেই সব করা হবে।’ এ বিষয়ে সামনের দিনগুলোতে সব বলা যাবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) দুপুরে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা জানান।

তিনি বলেন, আগামী ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। এ সময়ের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় বিবেচনা করা হবে। চেষ্টা করছি খুব সীমিত আকারে হলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা যায় কিনা। তবে সবকিছু করোনা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে বলেও জানান তিনি।

এ সময় এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে সামনের মাসে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সীমিত পরিসরে খোলার চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ডা. দীপু মনি বলেন, আগামী বছরের এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সীমিত পরিসরে খোলা যায় কিনা সেই চেষ্টা করা হচ্ছে। তাদের প্রস্তুতিতেও ঘাটতি রয়েছে। সেজন্য সীমিত পরিসরে হলেও তাদের ক্লাসে নিয়ে আসা গেলে কিছুটা হলেও তাদের সুবিধা হবে। তবে সবকিছু স্বাস্থ্যবিধি মেনেই করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর পর গত ১৭ মার্চ থেকে আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত দেশের সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। আজ আরও এক দফায় এই ছুটি বাড়ানো হলো। জানা গেছে, সংবাদ সম্মেলনের আগে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় বৈঠকে বসে ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেন। ওই বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

উল্লেখ্য, করোনার কারণে এরই মধ্যে চলতি বছরের প্রাথমিকের সমাপনী, জেএসসি-জেডিসি, এইচএসসি পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। একই সাথে বাতিল করা হয়েছে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষাও।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর এই ভাইরাসের বিস্তার রোধে ১৮ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। পরে কয়েক দফায় সেই ছুটির মেয়াদ বাড়িয়ে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত করা হয়।






ads