তদন্ত কমিটির ক্যাম্পাস পরিদর্শন

ইবি ছাত্রলীগের দুগ্রুপের সংঘর্ষের তদন্ত শুরু

মানবকণ্ঠ

poisha bazar

  • প্রতিনিধি, দৈনিক মানবকণ্ঠ
  • ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৯:২৯,  আপডেট: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:৪৬

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) ক্যাম্পাস পরিদর্শন করেছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যরা। সোমবার দুপুরে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে তদন্ত সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেন।

জানা গেছে, তদন্ত কমিটির সদস্য বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম ও সমাজসেবা সম্পাদক শেখ স্বাধীন শাহেদ বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছে ক্যাম্পাসস্থ মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। এ সময় তারা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষ করেন।

পরে দুই সদস্যের তদন্ত দল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক রশিদ আসকারীসহ ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মী ও ক্যাম্পাসের অন্যান্য কর্তাব্যক্তিদের সাথে তথ্যাদি আদান-প্রদান করেন। এদিন সন্ধ্যায় তারা ইবি শাখা ছাত্রলীগের অন্তত ২০ জন পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীদের সাথে একান্তে কথা বলেন।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশী নেতা মিজানুর রহমান লালন বলেন, তদন্ত কমিটির সদস্যবৃন্দ ক্যাম্পাসে এসেছেন। আমাদের সাথে তারা কথা বলেছেন; আমরা তাদের কাছে ঘটনার সত্যাসত্য জানিয়েছি। সামনে মুজিববর্ষ। আমরা চাই সুষ্ঠু ও স্বচ্ছ তদন্ত শেষে নতুন নেতৃত্বের মাধ্যমে ইবি ছাত্রলীগ গতিশীল হবে।

ইবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন, ক্যাম্পাসে অবস্থান করার মত পরিবেশ না থাকায় বাইরে রয়েছি। তবে আমাদের বিশ্বাস, সেদিনের ঘটনায় একটি সুষ্ঠু তদন্ত প্রক্রিয়া চলছে। নিরপেক্ষ তদন্ত শেষে ইবি শাখা ছাত্রলীগকে গতিশীল করতে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ যথাযথ ব্যবস্থা নিবেন।

এ বিষয়ে তদন্ত কমিটির সদস্য ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম বলেন, আমরা ক্যাম্পাসে নেতাকর্মীসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সাথে কথা বলছি। ইতোমধ্যে উভয় গ্রুপের প্রতিনিধির সাথে কথা হয়েছে। একটি নিরপেক্ষ তদন্তের বিষয়ে আমরা আশাবাদী।

উল্লেখ্য, ২১ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক নেতাকর্মীদের নিয়ে ক্যাম্পাসে ঢুকতে চাইলে তাদের ধাওয়া করে পদবঞ্চিত গ্রুপের নেতাকর্মীরা। পরে প্রধান ফটক সংলগ্ন এলাকায় সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবসহ কয়েকজনকে বেধড়ক মারধর করে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা। একইসময় ঘটনাস্থলে অন্তত তিনটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। এছাড়া ওইদিনই হানিফ নামের এক ছাত্রলীগকর্মীর মামলায় আহতাবস্থায় পুলিশের হাতে আটক হন সাধারণ সম্পাদক রাকিব। এই ঘটনায় পর (২৩ জানুয়ারি) দুই সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। কমিটি গঠনের প্রায় ১০ দিনের মাথায় তদন্ত কাজে তারা ইবি ক্যাম্পাসে এলেন। তদন্ত কমিটি গঠনের ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/আরবি




Loading...
ads






Loading...