টিএসসি এলাকায় জ্যাম নিয়ে ব্যারিস্টার সুমনের লাইভ, সমালোচনার ঝড়

টিএসসি এলাকায় জ্যাম নিয়ে ব্যারিস্টার সুমনের লাইভ, সমালোচনার ঝড়
টিএসসি এলাকায় জ্যাম নিয়ে ব্যারিস্টার সুমনের লাইভ, সমালোচনার ঝড় - ছবি: সংগৃহীত

poisha bazar

  • অনলাইন ডেস্ক
  • ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২২:০৪,  আপডেট: ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২২:৩৮

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক কর্মসূচির কারণে যানজট হচ্ছে অভিযোগ তুলে লাইভে আসায় ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচিত ব্যক্তি ব্যারিস্টার সুমন। বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে যেখানে গণপরিবহণ চলাই নিষেধ সেখানে গণপরিবহণের যানজটের কারণ হিসেবে সাংস্কৃতিক কর্মসূচিকে দায়ী করে অনুষ্ঠান বন্ধের দাবি জানিয়েছিলেন তিনি।

এই লাইভের পরপরই নেতিবাচক কমেন্ট করা শুরু করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তারা বলছেন, স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব জায়গায় গণপরিবহণ চলাটাই বেআইনি। সেখানে লাইভে এসে গণপরিবহনের জ্যামের জন্য শিক্ষার্থীদের দায়ী করা যৌক্তিক নয়।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয় আইনের কথা তুলে ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী সৈয়দ উজ্জ্বল নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, 'ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনির্দিষ্ট কোন সীমানা না থাকার কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাস্তাকে পাবলিক রোড মনে করা অস্বাভাবিক নয়। শুধু মাত্র জনগণের সুবিধার্থে এই রোড ব্যবহার করতে দেওয়া হয়; এই রোড ব্যবহার করার অধিকার শুধুমাত্র ছাত্রদের। ইহা কোন সরকারি রোড নয়, ইহা স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব জায়গা। "স্বায়ত্তশাসিত" শব্দের অর্থ জেনে কমেন্ট করিবেন।'

রাকিবুল হাসান রকি নামে আরেক ছাত্র বলেন, 'পৃথিবীর কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাধে বহিরাগত যান চলাচল করে বলবেন কি? আর ওটা নিয়ে একটা লাইভ করা যায় না, জনাব?'

চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থী হিমায়িত লুব্ধক লিখেছেন, 'বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতরের রাস্তা পাবলিকের জন্য বন্ধ থাকবে এটা খুবই স্বাভাবিক, অথর্ব প্রশাসনেরা এটা করতে পারে নি সেটা তাদের ব্যর্থতা। আপনি আবার খোলার জন্য বলছেন, বরং যেদিন এমনিতেই জ্যাম থাকবে সেদিন লাইভ করবেন যে, এটা একটা বিশ্ববিদ্যালয়, বিশ্বের এমন কোন বিশ্ববিদ্যালয় আছে যার বুক,পাজর,ঘাড় চিরে প্রতিনিয়ত ২৪/৭ ছুটে চলে গণপরিবহন।?'

পলিটিকাল সায়েন্স বিভাগের শিক্ষার্থী তুষার আহমেদ লিখেছেন, 'সুমন সাহেব, ঢাবি বহিরাগত কোনো মানুষের চলাচলের জন্যে নয়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা তাদের কাজ করে যাবে। আপনি বরং যৌক্তিক কিছু বলুন।'

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক একেএম গোলাম রব্বানী দৈনিক মানবকণ্ঠকে বলেন, ‘যানজটের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সম্পর্ক কী?  সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের জন্য যানজট হয় এটা কী ধরনের কথা? এখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড করবেই।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রক্টর বলেন, ‘হুট করে একজন এসে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে কথা বললেই হলো? কে কী বলল তা পাত্তা দেওয়ার দরকার নেই।’

এবিষয়ে জানতে ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমনকে মুঠোফোনে কল দেয়া হলেও তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads





Loading...