কুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার্থীদের ফ্রি থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা

কুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার্থীদের ফ্রি থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা
কুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার্থীদের ফ্রি থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা - ফাইল ছবি

poisha bazar

  • আলমগীর হান্নান, খুলনা ব্যুরো
  • ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২১:৫১

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসা শিক্ষার্থীদের ফ্রি থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। খুলনা মহানগরীর শিববাড়ি মোড় এলাকায় সেনা কল্যান সংস্থার তত্তাবধানে পরিচালিত হোটেল টাইগার গার্ডেন ইন্টারন্যাশনালে ওই ব্যবস্থা করা হয়েছে। ১৮ অক্টোবর কুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

যেসব শিক্ষার্থী খুলনা শহরে থাকার জায়গা পাবে না তাদের জন্য ওই ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে হোটেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

হোটেলটির পক্ষ থেকে কুয়েটের ভর্তি পরীক্ষায় আগত শিক্ষার্থী এবং অভিভাবক যারা এখনও আবাসন ব্যাবস্থা করতে পারেননি, তাদের জন্য অত্র হোটেলের ব্যাংকোয়েট হলে এবং কনফারেন্স রুমে ফ্রি থাকার ও খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ছেলে মেয়েদের জন্য পৃথক ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারা অসহায় তারা এই সুযোগ সুবিধা পাবেন বলে জানিয়েছেন ম্যানেজার শামীম হোসেন। তিনি বলেন, প্রতিবছর অসংখ্যা শিক্ষার্থী দূর দূরান্ত থেকে এসে হোটেল বা অন্য কোথাও থাকার ব্যবস্থা করতে পারেন না। ফলে অনিদ্রায় যেখানে সেখানে দিন রাত কাটাতে হয়। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে হোটেল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের থাকার জন্য এমন সুযোগ দিয়েছে।

কুয়েট সূত্র জানিয়েছে, এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬ টি বিভাগে ১ হাজার ৬৫ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। এর বিপরীতে ১২ হাজার ৩৪৮ শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এই বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকদের জায়গার সংকুলান হওয়ার মত আবাসিক হোটেলের সংখ্যা খুলনায় নেই। একটি আসনের বিপরীতে প্রায় ১২ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছেন। এ বিপুল শিক্ষার্থীরা দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে খুলনায় আসেন। যারা আত্মীয় স্বজনসহ হোটেল মোটেলে রাত যাপন করেন। অনেকে থাকার জায়গা না পেয়ে বাস স্ট্যান্ড, রেল স্টেশনেই রাত কাটান। এসব দূর্ভোগ কমাতেই হোটেলে টাইগার গার্ডেন শিক্ষার্থীদের জন্য এমন সুযোগ দিচ্ছে।

যে সকল পরিক্ষার্থী এবং অভিভাবকগন থাকতে আগ্রহী তাদের নাম, ঠিকানা এবং মোবাইল নাম্বারসহ হোটেলের মোবাইল নাম্বারে (০১৬৭৬৬১৭৩৯১ অথবা ০১৭৬৯০৫৬৩৬৮) এসএমএস করে বুকিং দেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ/এআইএস




Loading...
ads





Loading...